• Home
  • »
  • News
  • »
  • south-bengal
  • »
  • ভূতের ভয়ে এই স্কুলে আসে না কোনও পড়ুয়া

ভূতের ভয়ে এই স্কুলে আসে না কোনও পড়ুয়া

স্কুল আছে কিন্তু পড়ুয়ারা ভয়ে স্কুলে আসে না ৷ এ ভয় কোনও গম্ভীর গলার গুঁফো শিক্ষকের বেতের ভয় নয় ৷ এ ভয় অশরীরীর ভয় ৷ ভূতের ভয়ে স্কুলে আসেন না ছাত্ররা ৷

স্কুল আছে কিন্তু পড়ুয়ারা ভয়ে স্কুলে আসে না ৷ এ ভয় কোনও গম্ভীর গলার গুঁফো শিক্ষকের বেতের ভয় নয় ৷ এ ভয় অশরীরীর ভয় ৷ ভূতের ভয়ে স্কুলে আসেন না ছাত্ররা ৷

স্কুল আছে কিন্তু পড়ুয়ারা ভয়ে স্কুলে আসে না ৷ এ ভয় কোনও গম্ভীর গলার গুঁফো শিক্ষকের বেতের ভয় নয় ৷ এ ভয় অশরীরীর ভয় ৷ ভূতের ভয়ে স্কুলে আসেন না ছাত্ররা ৷

  • Pradesh18
  • Last Updated :
  • Share this:

    #হাওড়া: স্কুল আছে কিন্তু পড়ুয়ারা ভয়ে স্কুলে আসে না ৷ এ ভয় কোনও গম্ভীর গলার গুঁফো শিক্ষকের বেতের ভয় নয় ৷ এ ভয় অশরীরীর ভয় ৷ ভূতের ভয়ে স্কুলে আসেন না ছাত্ররা ৷ বছরের পর বছর কেটে গিয়েছে ফাঁকা মাঠের মাঝে দাঁড়িয়ে একাকী এক স্কুল ৷ ব্ল্যাকবোর্ড, বেঞ্চ, চক-ডাস্টার সবই পড়ে রয়েছে ছোট ছোট ছাত্র-ছাত্রীদের পদক্ষেপের আশায় ৷

    সামনেই শ্মশান। তাই ভূতের ভয়ে স্কুল মুখো হয় না পড়ুয়ারা। তাই ছাত্রের অভাবে তিন বছর ধরে বন্ধ আমতার শতাব্দী প্রাচীন সোমনাথ উচ্চ প্রাথমিক বিদ্যালয়। কুসংস্কার নিয়ে বোঝানো সত্ত্বেও অভিভাবকরা সন্তানদের স্কুলে পাঠান না বলে অভিযোগ করেছে স্থানীয় পঞ্চায়েত। সমস্যা মিটিয়ে ফের স্কুল খোলার  দাবি তুলেছেন প্রাক্তনীরা।

    তিন বছরে যেন ভূতুড়ে বাড়ির রূপ নিয়েছে শতাব্দী প্রাচীন স্কুলটি। সৌজন্যে সেই ভূতের ভয়। ১৯১০ সালে আমতার রসপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের সোমেশ্বরে তৈরি হয় এই সোমনাথ উচ্চ প্রাথমিক বিদ্যালয়। গ্রামের অনেক প্রতিষ্ঠিত মানুষই একসময় এই স্কুলে পড়াশোনা করেছেন। কিন্তু আজ আর এই স্কুলের ধারে কাছে আসে না কোনও পড়ুয়া। কারণ একটাই, স্কুলের লাগোয়া শ্মশান। তাই ভূতের ভয়ই আতঙ্ক তৈরি করেছে পড়ুয়াদের মধ্যে। এই কারণে অভিভাবকরাও ছেলে-মেয়েদের স্কুলে পাঠাতে চান না। বাধ্য হয়ে আজ ছেলেদেরও ভরসা সোমেশ্বর বালিকা প্রাথমিক বিদ্যালয়। স্থানীয় পঞ্চায়েত উপপ্রধানের দাবি, শ্মশান সরিয়ে নেওয়া সম্ভব নয়। তবে অভিভাবকদের কুসংস্কার সম্পর্কে বুঝিয়ে সন্তানদের স্কুলে পাঠানোর আবেদন জানানো হয়েছে বেশ কয়েকবার। কিন্তু কাজের কাজ কিছু হয়নি। যদিও স্থানীয় বাসিন্দারা, বিশেষ করে প্রাক্তনীরা চান, ফের চালু হোক স্কুল। কিন্তু ভূতের ভয়ে স্কুল মুখো হচ্ছে না পড়ুয়ারা। এ তত্ত্ব অবশ্য মানতে নারাজ জেলার স্কুল পরিদর্শক। বরং তাদের দাবি, ছাত্রের অভাবেই বন্ধ হয়ে যাচ্ছে জেলার বহু স্কুল।
    First published: