corona virus btn
corona virus btn
Loading

রথ দেখতে গেলে জিলিপি পাঁপড় ভাজা নয়, মিলবে সাবান মাস্ক

রথ দেখতে গেলে জিলিপি পাঁপড় ভাজা নয়, মিলবে সাবান মাস্ক

করোনা আবহে রাস্তায় নামবে না রথ, তবে মন্দিরে গেলে মিলবে দর্শন

  • Share this:

#পূর্ব বর্ধমান:  ভাগীরথী ঘেঁষা পূর্বস্থলীর শ্রীরামপুর।  পাশেই নদিয়া জেলা। বিদ্যা চর্চার জন্য বারে বারেই পূর্বস্থলীতে আসতেন চৈতন্যদেব। বিশ্রাম নিতেন এখানে। তাই এলাকার নাম শ্রীরামপুর। এলাকার বাসিন্দারা দেড় দশক আগে এই এলাকা থেকে রথযাত্রা উৎসব শুরু করেছিলেন। তার অন্যতম হোতা এলাকার বাসিন্দা বর্তমানে রাজ্য সরকারের প্রাণী সম্পদ বিকাশ দপ্তরের মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ। করোনা সংক্রমনের আবহে এবার আর সেই শ্রীরামপুরের রথের রশিতে টান পড়বে না। তাই মনমরা মন্ত্রীসহ সকলেই। মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ বললেন, রথের মেলা মানে অগণিত ভক্তের সমাগম। আর এখন করোনার সংক্রমণ রুখতে ভিড় একেবারেই করা যাবে না। তাই এবার আমরা রথযাত্রা উৎসব বন্ধ রাখলাম।

রথের মেলায় যাওয়ার মানেই গরম গরম পাঁপড় ভাজা আর জিলিপি নিয়ে ঘরে ফেরা। তবে এবার রথযাত্রা না হলেও উত্তর শ্রীরামপুরের গোপীনাথ মন্দিরে রথের পুজো দেখার সুযোগ মিলবে। সেখানে গেলে মিলবে মাস্ক ও সাবান। মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ বললেন, উত্তর শ্রীরামপুর শ্রী শ্রী গোপীনাথ মন্দিরে সারাবছর প্রভু জগন্নাথ বলরাম ও সুভদ্রার পুজো করা হয়। রথের দিন পুজোর পর সেখান থেকে বিগ্রহ বের করে রথে বসিয়ে সেই রথ টেনে হেমাতপুরে জগন্নাথ দেবের মাসির বাড়িতে নিয়ে যাওয়া হয়। সেই রথযাত্রায় অগণিত  উৎসাহী পুরুষ মহিলা ভিড় করেন।

এবার সেই রথযাত্রা বন্ধ থাকলেও উত্তর শ্রীরামপুরের গোপীনাথ মন্দিরে রথ যাত্রার বিশেষ পুজো দেখার সুযোগ পাবেন দর্শনার্থীরা। এইজন্য মন্দিরের সামনে বাঁশের ব্যারিকেড দেওয়া হচ্ছে। ভক্তরা এক গেট দিয়ে ঢুকে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে জগন্নাথ বলরাম সুভদ্রা মূর্তি দর্শন করে অন্য দরজা দিয়ে বের হতে পারবেন। এজন্য ঢোকার মুখে দর্শনার্থীদের হাতে মাস্ক দেওয়া হবে। সেই সঙ্গে তাদের হাতে একটি করে সাবানও দেওয়া হবে। করোনার সংক্রমণ রুখতে এখনও যে মাস্ক পরা একান্তই জরুরি, সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা ও সাবান দিয়ে বারেবারে হাত ধোওয়া সমান প্রয়োজন সেই সব বিষয়ে বাসিন্দাদের সচেতন করতেই এই কর্মসূচি নেওয়া হয়েছে বলে মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ জানিয়েছেন।

Saradindu Ghosh

Published by: Debalina Datta
First published: June 22, 2020, 8:24 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर