• Home
  • »
  • News
  • »
  • south-bengal
  • »
  • সুন্দরবনকে বাঁচাতে বিশেষ উদ্যোগ নেতাজির সহযোদ্ধার পুত্রের

সুন্দরবনকে বাঁচাতে বিশেষ উদ্যোগ নেতাজির সহযোদ্ধার পুত্রের

আগামী প্রজন্মের কাছে সুন্দরবনকে বাঁচানোর জন্য পাঠক্রমে উনি আনতে চান অ্যাকাডেমি অফ এনভারমেন্ট এন্ড সুন্দরবন লজি।

আগামী প্রজন্মের কাছে সুন্দরবনকে বাঁচানোর জন্য পাঠক্রমে উনি আনতে চান অ্যাকাডেমি অফ এনভারমেন্ট এন্ড সুন্দরবন লজি।

আগামী প্রজন্মের কাছে সুন্দরবনকে বাঁচানোর জন্য পাঠক্রমে উনি আনতে চান অ্যাকাডেমি অফ এনভারমেন্ট এন্ড সুন্দরবন লজি।

  • Share this:

#কলকাতা: পাহাড় জঙ্গলমহল সফরে মুখ্যমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রী যান বটে কিন্তু সুন্দরবন? পঞ্চাশের দশকে ইন্দিরা গান্ধীর নজর টানতে নেতাজির সহযোদ্ধা পুলিনবিহারী বৈদ্যের উৎসাহে তিনজন পায়ে হেঁটে পাড়ি দেন দিল্লী। ইন্দিরা সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছিলেন। কিন্তু আদতে কিছুই হয়নি। অগত্যা নিজের সাধ্য মতো উদ্যোগ নিয়েছেন তিনি এবং তাঁর পুত্র বিজেন্দ্র বৈদ্য। সামিল ছিলেন সুন্দরবন জাগরণ আন্দোলনে।

বাবাকে দেখেই সুন্দরবনের প্রতি টান ভালোবাসা। বিজেন্দ্র বাবু হলদিয়ার এক বেসরকারি সংস্থায় কর্মরত ছিলেন।  নব্বইয়ের শতকে নিজের পিঠে জঞ্জাল পরিষ্কার করা হয় লিখে বাজারে বাজারে ঘুরতেন। লোকে তাকে পাগল বলতেন। সকালের শৌচকর্ম করতে যারা মাঠে-ঘাটে যেতেন পিছন ঘুরে দেখতেন বিজেন্দ্র বাবু বালতিতে ছাই নিয়ে দাঁড়িয়ে আছেন। উদ্দেশ্য একটাই পরিবেশকে বাঁচাবেন বাঁচাবেন সুন্দরী সুন্দরবনকে। প্লাস্টিক লোকের ফেলে দেওয়ার শালপাতার সেগুলো কুড়িয়ে এনে টেরাকোটা তৈরির জ্বালানি হিসেবে ব্যবহার করতেন। পুলিনবাবু কাশিনগর এর খারী ছত্রভোগ সংগ্রহশালা গড়ে তুলেছিলেন নিজের হাতে।খ্রিস্টপূর্বাব্দের সুন্দরবনের ঐতিহাসিক জিনিসপত্র সংগ্রহ করেছিলেন নিজের হাতেই সংগ্রহশালায়। সুন্দরবনের গন্ডারের মাথার খুলি দাঁত চোয়াল রাখা রয়েছে এই সংগ্রহশালায়। বর্তমানে দেখভাল করেন বিজেন্দ্র বাবু। সুন্দরবনের এই ঐতিহাসিক সংগ্রহশালা কে বাঁচানোর জন্য  সরকারের কাছে আবেদন করেন বিজেন্দ্র বাবু। মিলছে না কোনো সুরাহা।

আগামী প্রজন্মের কাছে সুন্দরবনকে বাঁচানোর জন্য পাঠক্রমে উনি আনতে চান অ্যাকাডেমি অফ এনভারমেন্ট এন্ড সুন্দরবন লজি। তাই নিয়ে গঠন করা হয়েছে বোর্ড। এই পুঁথিগত শিক্ষার মাধ্যমে সুন্দরবনের প্রাচীন সংস্কৃতি লোকসংস্কৃতি টুসু উৎসব আগামী প্রজন্মের কাছে চিরন্তন করে রাখতে চান বিজেন্দ্র বাবু। অ্যাকাডেমি অফ এনভারমেন্ট এন্ড সুন্দরবন লজি বিদেশের পাঠ্যক্রমে ও রাখতে চান বিজেন্দ্র বাবু। নিজের হাতে তৈরি করেন একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন। শতমুখী পরিবেশ কল্যান কেন্দ্র। বাচ্চাদের নিয়ে শান্তিনিকেতনের পাঠশালার মতন গাছের নিচে পরান শিক্ষকরা। পুঁথিগত বিদ্যার সাথে সাথে নিয়মিত আলোচনা করা হয় সুন্দরবনের ইতিহাস নিয়ে। সংরক্ষণ করা হয় বিভিন্ন জায়গায় পড়ে থাকা প্লাস্টিকের। কলকাতার যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের কাছে আবেদন করা হয় সুন্দরবনের রাস্তা উন্নয়নের ইট তৈরীর জন্য । আর্থসামাজিক সমস্যা বরাবরই সুন্দরবনের। প্রস্তাব দিয়েছেন বিজেন্দ্র বাবু বড় পানা থেকে কিভাবে বিভিন্ন হস্তশিল্প তৈরি করা যেতে পারে, নিচে পানা ওপরে কাদা জমিতে কিভাবে চাষ করা যেতে পারে, তাহলে তো কিছুটা বাঘের পেট থেকে বাঁচানো যায় ওদের। পশু দের জন্য তৈরি করেছেন কবরস্থান। রাজ্য সরকার সুন্দরবন বিভাগের কাছে অনুরোধ যে ১৭ ই সেপ্টেম্বর সুন্দরবনের তিনজন উন্নয়নের জন্য সামিল হয়েছিলেন সুন্দরবন জাগরণ আন্দোলনে তাদের জন্য ১৭ সেপ্টেম্বর কে সরকার সুন্দরবন যুব দিবস হিসেবে ঘোষণা করুক। বহু নতুন প্রজন্মও সুন্দরবন ছেড়ে জীবিকা সংস্থানের জন্য পাড়ি দিচ্ছেন অন্য জেলায় অন্য রাজ্যে। সাউথইস্ট এশিয়ার ক্লাইমেট কে বাঁচিয়ে রেখেছে সুন্দরবন। বাঁচিয়ে রেখেছে কলকাতা কে। ভারত এবং বাংলাদেশ  সুন্দরবনকে বাঁচিয়ে রাখার জন্য লড়ুক একসাথে। আগামী প্রজন্ম যেখানেই থাকুক না কেন ফিরে চল মাটির টানে আর্জি বৃদ্ধার কন্ঠে। যতদিন বেঁচে থাকবেন সুন্দরবনকে বাঁচানোর জন্য তৈরি করবেন পরিবেশ সৈনিক। কুর্নিশ জানাতে চান সেই সমস্ত সৈনিকদের যারা সুন্দরবনকে বাঁচিয়ে রাখার জন্য আপ্রাণ লড়াই চালাচ্ছেন। এপার বাংলা ওপার বাংলার সুন্দরবন প্রেমীদের মেলবন্ধন সুন্দরবন নিয়ে থিম সং এর আবহে।

Susovan Bhattacharjee

Published by:Debalina Datta
First published: