রাঢ়বঙ্গের অন্দরে লুকোন অজানা ইতিহাস? রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে আজ যাচ্ছে হারিয়ে...

রাঢ়বঙ্গের অন্দরে লুকোন অজানা ইতিহাস? রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে আজ যাচ্ছে হারিয়ে...

আস্ত এক সভ্যতা মুখ লুকিয়ে রাঢ়বঙ্গে।

  • Share this:

#পুরুলিয়া: আস্ত এক সভ্যতা মুখ লুকিয়ে রাঢ়বঙ্গে। ইতিহাস বলে, জৈনধর্মের অন্যতম পীঠস্থান ছিল পুরুলিয়া। পুঞ্চার পাকবিড়রায় ছড়িয়ে ছিটিয়ে পুরাতাত্ত্বিক নানা নিদর্শন। রয়েছে জৈন তীর্থঙ্করের মূর্তি। রক্ষণাবেক্ষণ ও পরিচর্যার অভাবে আজও অনেকটাই অজানা লালমাটির অন্দরমহল।

ইতিহাসবিদরা বলেন, একটা সময়ে পুঞ্চার কংসাবতী-শীলাবতী নদী অববাহিকা ছিল জৈনভূমি। তার প্রমাণ আজও মেলে পাকবিড়রায়। পুরুলিয়ার এই এলাকায় ছড়িয়ে ছিটিয়ে জৈনধর্মের পুরাতাত্ত্বিক নিদর্শন। আজও রয়ে গিয়েছে তিনটি দেউল। তাঁদের দাবি, পাকবিড়রার ইতিহাস নাকি আড়াই হাজার বছর পুরোন।

১৮৭২ সালে 'এ ট্যুর থ্রু দ্য বেঙ্গল প্রভিন্সেস ' --বইয়ে এই এলাকার কথা উল্লেখ করেছেন ব্রিটিশ লেখক জে ডি বাগলার। আর্য-অনার্যদের লড়াইয়ের ইতিহাস বুকে নিয়ে আজও বেঁচে পাকবিড়রা। তবে বড্ড অনাদরে। অবহেলায়।স্থানীয়দের অভিযোগ, রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে নষ্ট হয়ে যাচ্ছে অমূল্য ঐতিহাসিক দলিল। ছোট্ট ঘরে এএসআই-এর তৈরি সংগ্রহশালা ছাড়া আর কিছুই নেই। পর্যাপ্ত আলোর অভাব। অভাব নজরদারিরও।

গ্রামেরই বাসিন্দা নিমাই মাহাত একা কুম্ভের মত আগলে রেখেছে বিস্মৃত সভ্যতাকে। তিনি-ই গাইড। তিনি-ই পাহারাদার।

স্পিরিচুয়াল ট্যুরিজিম নিয়ে যখন এত প্রচার, তখন কী এভাবেই অবহেলায় পড়ে নষ্ট হবে রাঢ়বঙ্গের অন্দরে লুকোন জৈনদের অজানা ইতিহাস? প্রশ্ন ইতিহাসবিদদের। পাকবিড়রাও পাক পর্যটনের স্বীকৃতি। চাইছেন স্থানীয়রাও।

আরও দেখুন

First published: 07:57:37 PM Nov 08, 2019
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर