প্রেমের প্রস্তাবে রাজি হতেই গ্রেফতার যুবক ! কিন্তু কেন ?

অনেক চেষ্টাতেও চার আন্তঃরাজ্য মাদক পাচারকারীকে ধরতে পারছিল না বারাকপুর কমিশনারেট। শেষে পাতা হল প্রেমের ফাঁদ।

অনেক চেষ্টাতেও চার আন্তঃরাজ্য মাদক পাচারকারীকে ধরতে পারছিল না বারাকপুর কমিশনারেট। শেষে পাতা হল প্রেমের ফাঁদ।

  • Share this:

    #কলকাতা: অনেক চেষ্টাতেও চার আন্তঃরাজ্য মাদক পাচারকারীকে ধরতে পারছিল না বারাকপুর কমিশনারেট। শেষে পাতা হল প্রেমের ফাঁদ। তাতেই কেল্লাফতে। জালে ৪ জনই। উদ্ধার হয়েছে প্রচুর মাদক ও আগ্নেয়াস্ত্র।

    জগদ্দল, নৈহাটি, বীজপুর এলাকায় বাড়ছিল মাদক পাচারকারী, চোরাকারবারিদের রমরমা। খোঁজ খবর করেও দুষ্কৃতীদের নাগাল পাচ্ছিল না পুলিশ। অবশেষে হাতে আসে আনন্দ মণ্ডল নামে এক সন্দেহভাজনের ফোন নম্বর। তারপরেই অপারেশনের ছক কষে ফেলে পুলিশ। দায়িত্ব দেওয়া হয় এক মহিলা পুলিশ কর্মীকে।

    আনন্দ মণ্ডলকে ফোন করেন ওই মহিলা পুলিশ কর্মী। আলাপ জমে উঠেতেই প্রেমের প্রস্তাব দেন তদন্তকারী অফিসার। পুলিশের পাতা জালে পা দেয় অভিযুক্ত । মহিলার সঙ্গে দেখা করতে চায়। এক গোছা গোলাপ ও চকোলেট নিয়ে কল্যানী হাইওয়েতে তাকে আসতে বলেন মহিলা পুলিশকর্মী। বুধবার সকালেই কল্যানী হাইওয়ের ওপর জগদ্দল মোড় ঘিরে ফেলে সাদা পোশাকের পুলিশ। ১০টা নাগাদ ফুল, চকোলেট নিয়ে লাল স্কুটিতে করে আসে আনন্দ। মহিলা পুলিশ কর্মীর সামনে হাজির হতেই তাকে ঘিরে ফেলে পুলিশ।

    আনন্দকে দিয়েই ফোন করে ডাকা হয় তার আরও তিন শাগরেদ শাহিদ আহমেদ, আজগর আলি ও আকাশ লাহিড়িকে। চার জনের কাছ থেকে উদ্ধার হয়েছে প্রচুর মাদক ও আগ্নেয়াস্ত্র। এই চক্রে আরও কেউ যুক্ত কিনা তা খতিয়ে দেখছে পুলিশ।

    First published: