• Home
  • »
  • News
  • »
  • south-bengal
  • »
  • সিঙ্গুর উৎসবেই কিছু জমি কৃষকদের হাতে তুলে দিতে চায় রাজ্য, আজ শেষ হবে স্যাটেলাইট ম্যাপিং

সিঙ্গুর উৎসবেই কিছু জমি কৃষকদের হাতে তুলে দিতে চায় রাজ্য, আজ শেষ হবে স্যাটেলাইট ম্যাপিং

প্রথমে জমি জরিপ। তারপর তার চরিত্র বদল। শেষে জমি চিহ্নিত করা হবে। ধাপে ধাপে সিঙ্গুরের জমি ফেরত প্রক্রিয়া এগোতে চায় রাজ্য সরকার।

প্রথমে জমি জরিপ। তারপর তার চরিত্র বদল। শেষে জমি চিহ্নিত করা হবে। ধাপে ধাপে সিঙ্গুরের জমি ফেরত প্রক্রিয়া এগোতে চায় রাজ্য সরকার।

প্রথমে জমি জরিপ। তারপর তার চরিত্র বদল। শেষে জমি চিহ্নিত করা হবে। ধাপে ধাপে সিঙ্গুরের জমি ফেরত প্রক্রিয়া এগোতে চায় রাজ্য সরকার।

  • Pradesh18
  • Last Updated :
  • Share this:

    #হুগলি: প্রথমে জমি জরিপ। তারপর তার চরিত্র বদল। শেষে জমি চিহ্নিত করা হবে। ধাপে ধাপে সিঙ্গুরের জমি ফেরত প্রক্রিয়া এগোতে চায় রাজ্য সরকার। নির্ধারিত সময়ে জমি ফেরত সম্ভব। রবিবার সিঙ্গুরের প্রকল্প এলাকা ঘুরে এমনটাই জানালেন পঞ্চায়েত ও গ্রামোন্নয়নমন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায়। সোমবার সিঙ্গুরে যাবেন ফিরহাদ হাকিম ৷

    সোমবার সকাল থেকেই বেড়াবেড়ি মৌজায় জমি জরিপের কাজ চলছে ৷ এর আগেই শেষ করা হয়েছে গোপালনগর মৌজায় ৷ আজকের মধ্যে স্যাটেলাইট ম্যাপিংয়ের কাজ শেষ হয়ে যাবে বলে জানিয়েছেন দায়িত্বে থাকা আধিকারিকরা ৷

    জমি জরিপের ক্ষেত্রে মূল সমস্যা সিমেন্টের তৈরি রিং রোড ৷ ৯৯৭.১১ একর জমির সমগ্র অঞ্চলের মধ্যে বিভিন্ন জায়গায় যাতায়াতের সুবিধার জন্য মাটি থেকে ৩ থেকে ৯ ইঞ্চি উঁচু সিমেন্টের রিং রোড তৈরি করা হয়েছে ৷

     মলয় ঘটক, পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের পর সুব্রত মুখোপাধ্যায়। জমি জরিপের তৃতীয় দিনে সিঙ্গুরে পঞ্চায়েত ও গ্রামোন্নয়নমন্ত্রী। রবিবার জেলাশাসক ও পুলিশ সুপারকে সঙ্গে নিয়েই ঘুরে দেখলেন প্রকল্প এলাকা। কথা বলেন সরকারি আধিকারিকদের সঙ্গেও। সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ মতো, নির্ধারিত সময়ে জমি ফেরতের বিষয়ে আশাবাদী মন্ত্রী।

    পুরো জায়গা ঘুরে দেখার পর সুব্রত মুখোপাধ্যায় জানান, ‘অধিকাংশ জায়গায় জমি পরিষ্কারের কাজ শেষ হয়ে গিয়েছে ৷ জমি জরিপের কাজ চলছে দ্রুতগতিতে ৷ জমিতে চাষ করতে কোনও অসুবিধা হবে না ৷ মুখ্যমন্ত্রীর সিঙ্গুর সফরের আগেই জমি চিহ্নিতকরণ হয়ে যাবে ৷’

    কৃষকদের জমি ফেরতের প্রাথমিক নকশাও ছকে ফেলেছে রাজ্য সরকার। স্যাটেলাইট ম্যাপিং-এর কাজ শেষ হলে প্রথমেই,

    - ২০০৬ ও ২০১৬ সালের ম্যাপ মিলিয়ে দেখা হবে - তারপর শুরু হবে জমি চিহ্নিতকরণ - ইতিমধ্যেই মাটির নমুনা সংগ্রহ হয়েছে - জমি চাষযোগ্য করে তুলতে সয়েল এক্সপার্টদের পরামর্শ নেওয়া হচ্ছে

    এদিন অনিচ্ছুকদের ক্ষতিপূরণ দেওয়ার প্রক্রিয়াও শুরু করেছে ভূমি ও ভূমি রাজস্ব দফতর। অনিচ্ছুক কৃষকদের মধ্যে একাংশ সুদ সহ ক্ষতিপূরণের টাকা ফেরানোর দাবি তুলেছে।

    ১৪ই সেপ্টেম্বর সিঙ্গুরে বিজয় উৎসব পালিত হবে। উৎসবে সামিল হবেন মুখ্যমন্ত্রী সেদিনই অন্তত কিছু জমি কৃষকদের ফিরিয়ে দিতে চায় রাজ্য সরকার।

    First published: