• Home
  • »
  • News
  • »
  • south-bengal
  • »
  • জয়নগর থেকে উদ্ধার প্রচুর শব্দবাজি

জয়নগর থেকে উদ্ধার প্রচুর শব্দবাজি

গোপনসূত্রে খবর পেয়ে প্রচুর শব্দবাজি উদ্ধার করল দক্ষিণ ২৪ পরগণার জয়নগর থানার পুলিশ। উদ্ধার প্রায় ৬০০ কেজি চকলেট বোমা।

গোপনসূত্রে খবর পেয়ে প্রচুর শব্দবাজি উদ্ধার করল দক্ষিণ ২৪ পরগণার জয়নগর থানার পুলিশ। উদ্ধার প্রায় ৬০০ কেজি চকলেট বোমা।

গোপনসূত্রে খবর পেয়ে প্রচুর শব্দবাজি উদ্ধার করল দক্ষিণ ২৪ পরগণার জয়নগর থানার পুলিশ। উদ্ধার প্রায় ৬০০ কেজি চকলেট বোমা।

  • Pradesh18
  • Last Updated :
  • Share this:

    #জয়নগর: গোপনসূত্রে খবর পেয়ে প্রচুর শব্দবাজি উদ্ধার করল দক্ষিণ ২৪ পরগণার জয়নগর থানার পুলিশ। উদ্ধার প্রায় ৬০০ কেজি চকলেট বোমা। ঘটনায় গ্রেফতার এক। ধৃতের নাম বিশ্বজিৎ ঘটক। ঘটনাটি ঘটেছে জয়নগর থানার মজিলপুর ঘটক পাড়ায়।

    বেশ কিছুদিন ধরেই এলাকাবাসী সূত্রে খবর পাওয়া যাচ্ছিল রাতের অন্ধকারে নিজের বাড়ির একটি গোডাউনে শব্দবাজি মজুত করছেন বিশ্বজিৎ ঘটক নামে এক ব্যবসায়ী। সেই খবর পেয়ে  শুক্রবার ভোররাতে সেখানে হানা দিয়ে প্রায় ৬০০ কেজি শব্দবাজি উদ্ধার করে পুলিশ। বাড়িতে বেআইনি শব্দবাজি মজুত রাখার অপরাধে বিশ্বজিৎ ঘটক নামে ঐ ব্যক্তিকে গ্রেফতার করে পুলিশ। ধৃতকে এদিন বারুইপুর আদালতে তোলা হলে বিচারক ১৪ দিনের জেল হেফাজতের নির্দেশ দেন।

    শুক্রবারও গোপন সূত্রে খবর পেয়ে দুর্গাপুরের বেনাচিতির কাইজার লেনে একটি দোতলা বাড়ি থেকে ১৬টি দেশী বোমা, লোহার পাইপ, হকিস্টিক ও তলোয়ার  উদ্ধার করে দুর্গাপুর থানার পুলিশ ।

    ঐ বাড়িটির নিচে একটি ক্লাব ঘর ও সিপিএমের কার্যালয় রয়েছে । যেখান থেকে বোমা ও অস্ত্রগুলি উদ্ধার হয়েছে সেখান থেকে সিপিএম-কংগ্রেস জোটের প্রার্থীর একাধিক পোষ্টার উদ্ধার করেছে পুলিশ । বোমাগুলি উদ্ধার করার জন্য ঘটনাস্থলে ডাকা হয় সিআইডির বোমস্কোয়াড ।

    সিআইডির বোমস্কোয়াড বোমাগুলি উদ্ধার করে নিস্ক্রিয় করে দুর্গাপুরের বিজরা এলাকার পরিতক্ত্য বিমান বন্দরের পাশের জঙ্গলে । ঘটনায় বাড়ির মালিক ও কেয়ারটেকারকে আটক করেছে পুলিশ ।

    শুক্রবার শিবপুরে ৭টি তাজা বোমা উদ্ধার করেছে পুলিশ ৷ গদাধর মিস্ত্রি লেন থেকেই বোমা উদ্ধার করা হয় ৷ ভোটে সন্ত্রাস চালাতেই বোমা রাখা হয়েছিল ৷ কিন্তু ব্যবহার না হওয়ায় বোমা ফেলে পালিয়ে যায় দুষ্কৃতিরা বলে দাবি স্থানীয়দের ৷ ঘটনায় আতঙ্ক ছড়িয়েছে এলাকাবাসীদের মধ্যে ৷

    First published: