Home /News /south-bengal /
মায়ের বিবাহ-বহির্ভূত সম্পর্ক জেনে ফেলায় খুন ছেলে

মায়ের বিবাহ-বহির্ভূত সম্পর্ক জেনে ফেলায় খুন ছেলে

মায়ের বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্কের প্রতিবাদ করায় খুন হতে হল ছেলেকে।

  • Pradesh18
  • Last Updated :
  • Share this:

    #নোদাখালি: মায়ের বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্কের প্রতিবাদ করায় খুন হতে হল ছেলেকে। দক্ষিণ চব্বিশ পরগনার নোদাখালির দক্ষিণ বাওয়ালির ঘটনায় তীব্র চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ, বাওয়ালি পঞ্চায়েতের সদস্য কৃষ্ণপদ দাস পরিকল্পনা করে খুন করেছে তিরিশ বছর বয়সী শঙ্কর দাসকে। এই খুনে তাকে সাহায্য করেছে আরও দুইজন।

    ঘটনার পর থেকেই পলাতক কৃষ্ণপদ। এই কৃষ্ণপদর সঙ্গেই দীর্ঘদিনের বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্ক শঙ্করের মা আরতি দাসের। হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পথেই মৃত্যু হয় শঙ্করের। নোদাখালি থানার পুলিশ গ্রেফতার করেছে শঙ্করের মা আরতি দাসকে।

    স্থানীয়রা জানিয়েছেন, এলাকার বাওয়ালি পঞ্চায়েত সদস্য কৃষ্ণপদ দাসের সঙ্গে দীর্ঘদিনের বিবাহ বর্হিভূত সম্পর্ক ছিল আরতি দাসের ৷ সে সম্পর্কে বাধ সাধে ছেলে শঙ্কর দাস ৷ মায়ের সম্পর্কের কথা জানতে পারার পর নিত্য অশান্তি লেগেই থাকত মা ছেলের ৷ কৃষ্ণপদর সঙ্গে হাতাহাতি, ঝামেলাও হয় শঙ্করের ৷

    বাড়লা জুটমিলে চাকরি করত শঙ্কর ৷ মায়ের সঙ্গে সমস্যার কারণে মাস ছয়েক ধরে বাড়ি থাকত না ছেলে ৷ গতকাল সন্ধেবেলা এটিকে ও কেরালা ব্লাস্টার্সের খেলা দেখায় মশগুল ছিল সে ৷ হঠাৎ তাঁকে ফোন করে বাড়িতে ডাকে কৃষ্ণপদ দাস ৷ কিন্তু বাড়িতে ঢোকার আগেই ভারী অস্ত্র দিয়ে আঘাত করা হয় শঙ্করকে ৷ কৃষ্ণপদর দুই সাগরেদ গৌতম ও সৌরভ তাকে মারধর করে বলে অভিযোগ ৷

    প্রাণে বাঁচতে সাহায্যের আশায় চিৎকার করে শঙ্কর ৷ তাঁর চিৎকারে এলাকাবাসীরা ছুটে আসলে অভিযুক্তরা সেখান থেকে পালিয়ে যায় ৷ কিন্তু তাদের দেখে ফেলে এলাকাবাসী ৷ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পথে মৃত্যু হয় শঙ্করের ৷ এরপর ক্ষোভে ফেটে পড়েন স্থানীয় বাসিন্দারা ৷ ভাঙচুর চালানো হয় অভিযুক্তদের বাড়িতে ৷ নোদাখালি থানার পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি সামাল দেয় ৷ এলাকায় উত্তেজনা থাকায় বসানো হয়েছে পুলিশ পিকেট ৷ কৃষ্ণপদ ও তাঁর সঙ্গীদের খোঁজ চালাচ্ছে পুলিশ ৷

    First published:

    Tags: Extra Marital Affair, Mother Accused for Son's Murder, Son Murdered

    পরবর্তী খবর