চুপচাপ শান্তিকুঞ্জ, টিভি-তেই চোখ রাখল অধিকারী পরিবার

চুপচাপ শান্তিকুঞ্জ, টিভি-তেই চোখ রাখল অধিকারী পরিবার
মমতার সভায় নজর ছিল শিশির- দিব্য়েন্দুর৷

  • Share this:

#কাঁথি: শান্তিকুঞ্জের সাথে দুরত্ব বেড়েছে অনেক দিন হল। এবার ফাটল ক্রমশ চওড়া হল মমতা বন্দোপাধ্যায়ের নন্দীগ্রামের সভার দিনে। রবিবার অধিকারী পরিবার স্পষ্ট করে দিয়েছিল, মমতা বন্দোপাধ্যায়ের সভায় তাঁদের পরিবারের কেউ যোগ দেবে না। এ দিন মুখ্যমন্ত্রীর সভায় দেখা গেল না অধিকারী পরিবারের দুই সদস্য যারা এখনও তৃণমূলেই আছেন সেই সাংসদ শিশির অধিকারী ও দিব্যেন্দু অধিকারীকে।

যাঁকে নিয়ে এত আলোচনা সেই শুভেন্দু অধিকারী অবশ্য যথা সময়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে কলকাতায় গিয়েছিলেন পূর্ব ঘোষণা মতো বিজেপির রোড শো'তে যোগ দিতে। ফলে সকাল থেকেই শান্তিকুঞ্জ ছিল চুপচাপ ছিল। ২০০০ সাল থেকে মুখ্যমন্ত্রী যতবারই নন্দীগ্রাম বা পূর্ব মেদিনীপুর সফর করেছেন ততবারই অধিকারী পরিবারের সদস্যরা সারাক্ষণ থেকেছেন তাঁর সঙ্গে। এবারই ব্যতিক্রম, বলা ভাল সম্পর্ক এতটাই খারাপ হয়েছে মমতা বন্দোপাধ্যায় সভা নিয়ে একটা বাক্যও খরচ করলেন না অধিকারী পরিবারের কোনও সদস্য।

শিশির অধিকারী আগেই জানিয়েছেন, তিনি অসুস্থ, চোখে অস্ত্রোপচার হয়েছে। এছাড়া করোনা পরিস্থিতিতে তিনি কোথাও যাতায়াত করছেন না। যে নন্দীগ্রামে সভা হল, সেখানকার তৃণমূল সাংসদ হলেন দিব্যেন্দু অধিকারী। তিনি কেন এলেন না? জবাব এড়িয়ে গিয়েছেন দিব্যেন্দু৷ তবে অধিকারী পরিবারের দুই সদস্য যাঁরা এখনও খাতায় কলমে তৃণমূল আছেন তাঁরা সারাদিন টিভি'তে নজর রেখেছেন। নন্দীগ্রামে দাঁড়িয়েই সেখান থেকে ভোটে লড়ার ঘোষণাও টিভি-তেই শুনেছেন সাংসদ পিতা-পুত্র৷  যদিও প্রকাশ্য়ে কোনও প্রতিক্রিয়া দেননি তাঁরা৷


 মমতা বন্দোপাধ্যায় অবশ্য একটি বারের জন্যও এ দিন অধিকারী পরিবারের নাম নেননি। বরঞ্চ বলেছেন, 'অনেকেই এখন ইধার-উধার করছে। যে যেখানেই যাক, আমার কিছু বলার নেই। আমি শুধু শুভেচ্ছা জানাচ্ছি। তোমরা প্রধানমন্ত্রী হও, তোমরা রাষ্ট্রপতি হও, তোমরা দেশের নেতা হও, বিশ্বের নেতা হও। শুধু বাংলাটাকে বেচতে এসো না। আমি যতদিন বেঁচে আছি ওটা হতে দেব না।'

কার ঘরে পদ্ম ফুটবে তা নিয়ে বিগত বেশ কয়েক দিন ধরেই চলছে চর্চা। তবে এদিন মমতার অভিযোগ, যাঁদের অনেক টাকা, সম্পত্তি আছে তাঁরা সেগুলো ঢাকা দিতেই বিজেপিতে যাচ্ছে। নাম না নিলেও বিজেপির তোলাবাজ কটাক্ষের জবার এদিন দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। একই সঙ্গে অধিকারী পরিবারের উদ্দেশে বলেছেন, "কেউ আমাকে  চোর বলেছে বলে আমি কাউকে বলব না। ওদের ভুল ওরা একদিন  বুঝবে। আমি সবটাই দিয়েছি। আমি চাই ওরা ভালো থাকুক। শতায়ু হোক।'

Abir Ghosal

Published by:Debamoy Ghosh
First published: