জমি বিবাদে আক্রান্ত শ্যামপুর থানার ওসি কোমায়, হাসপাতালে চলছে জীবন-মৃত্যুর লড়াই !

জমি বিবাদে আক্রান্ত শ্যামপুর থানার ওসি কোমায়, হাসপাতালে চলছে জীবন-মৃত্যুর লড়াই !

দুষ্কৃতীদের তাণ্ডবের শিকার হয়ে হাসপাতালে মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছেন সুমন দাস।

দুষ্কৃতীদের তাণ্ডবের শিকার হয়ে হাসপাতালে মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছেন সুমন দাস।

  • Share this:

    #কলকাতা: ইন্সপেক্টর পদে প্রোমোশন হয়ে গিয়েছিল। শ্যামপুর থানার ওসি-র পদ ছেড়ে খুব শিগগিরই ডিআইবি-তে যোগ দেওয়ার কথা। তার আগেই ঘটে গেল দুর্ঘটনা। দুষ্কৃতীদের তাণ্ডবের শিকার হয়ে হাসপাতালে মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছেন সুমন দাস। কোমা থেকে জীবনে ফিরে আসার লড়াই চালাচ্ছেন। আর তাঁর বাড়ি ফেরার অপেক্ষায় মা, স্ত্রী ও ১০ বছরের ছেলে।

    বাবা মৃণাল দাস ছিলেন পুলিশকর্মী। তিনিই পথ দেখিয়েছিলেন ছেলে সুমনকে। স্কটিশ চার্চ থেকে পাশ করার পর রিষড়া রামকৃষ্ণ মিশনে শিক্ষকতা করতেন সুমন দাস। বাড়ি জানত না ছেলে পুলিশের চাকরিতে যোগ দেওয়ার তোড়জোড় শুরু করেছে। পরে তা জানতে পেরে অবশ্য গর্বিত হয়েছিলেন সুমনের বাবা-মা। কিন্তু, আশঙ্কাও কম ছিল না।

    ছোটবেলা থেকেই কুইজ কনটেস্টে সিদ্ধহস্ত। ছোটপত্রিকার সঙ্গেও ছিল নিবিড় যোগ।হাওড়ার চ্যাটার্জিহাটের ডাকাবুকো যুবক সুমন। অসম সাহসে ভর করে চাকরিজীবনে অনেকটা উঠে পড়েন তিনি।

    সুমনের কেরিয়ার - ২০০২ সাসে পুলিশে যোগ দেন সুমন দাস - ২০০৭ সালে যোগ দেন হাওড়া জেলা পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগে - পরে সাঁকরাইল থানার নাজিরগঞ্জ আইসি-তে ওসি হিসেবে যোগ দেন - এরপর শ্যামপুর থানায় পোস্টিং হয় তাঁর - সেখান থেকে পাঁচলা থানা হয়ে ফের আসেন শ্যামপুর থানায় - বছর দেড়েক ধরে শ্যামপুর থানায় ওসি পদে সুমন - ডিআইবি-র ইন্সপেক্টর পদে প্রোমোশনও হয়ে যায় তাঁর - খুব তাড়াতাড়ি সেই পদে যোগ দেওয়ার কথা ছিল

    সুমনের বাবা মারা গিয়েছেন আগেই। কিন্তু, মায়ের মনে আশঙ্কার কাঁটা রয়েই গিয়েছে। শত শত মানুষের প্রশংসা। হাজারও শুভেচ্ছাবার্তায় সেসব কিছুটা ভুলেছিল সুমনের পরিবার। কিন্তু, শুক্রবার রাতে, তিনি বাড়ি না ফিরতেই মাথার উপর নেমে আসে ভাবনার পাহাড়।

    কলকাতার বেসরকারি হাসপাতালে গভীর সংকটে সুমন। কোমায় জীবন-মৃত্যুর সঙ্গে লড়াই চালাচ্ছেন শ্যামপুর থানার ওসি। আর অপেক্ষায় হাওড়ার ১২/৫ ঠাকুর রামকৃষ্ণ লেনের বাসিন্দারা। সুমনের জন্য দিন গুনছেন তাঁর মা। উদ্বেগ বাড়ছে স্ত্রী সুমিতা ও ছেলে সাগ্নিকের।

    নিজস্ব চিত্র নিজস্ব চিত্র
    First published: