জিয়াগঞ্জে খুনে উঠে এল চাঞ্চল্যকর তথ্য, ঘর থেকে উদ্ধার ডায়েরিতেই মিলল খুনের মোটিভ

বিউটি পালের হাতে লেখা চিঠি। অনুমান পুলিশের। চিঠি থেকেই স্পষ্ট গত কয়েকমাসে দুজনের সম্পর্ক তলানিতে এসে ঠেকেছিল। তাহলে কী অন্য কেউ ঢুকে পড়েছিল সেই ফাঁকে?

Bangla Editor | News18 Bangla
Updated:Oct 11, 2019 09:32 AM IST
জিয়াগঞ্জে খুনে উঠে এল চাঞ্চল্যকর তথ্য, ঘর থেকে উদ্ধার ডায়েরিতেই মিলল খুনের মোটিভ
Bangla Editor | News18 Bangla
Updated:Oct 11, 2019 09:32 AM IST

#জিয়াগঞ্জ: জিয়াগঞ্জে দম্পতি ও শিশু খুনের ঘটনায় এখনও ধন্দে পুলিশ। ঘর থেকে উদ্ধার ডায়েরি থেকে ব্রেক থ্রুয়ের খোঁজে পুলিশ। ডায়েরি থেকে স্পষ্ট, স্বামী-স্ত্রীর সম্পর্কের অবনতি হচ্ছিল। পারিবারিক কোনও কারণ, না কী এর পিছনে সম্পত্তি সংক্রান্ত বিবাদ, খতিয়ে দেখছে পুলিশ।

ডায়েরির ছত্রে ছত্রে অশান্ত দাম্পত্যের ছবি। মুর্শিদাবাদের জিয়াগঞ্জে প্রাথমিক শিক্ষক বন্ধুপ্রকাশ পাল ও তাঁর আট মাসের অন্তসত্ত্বা স্ত্রী বিউটির খুনের পর তাঁদের ঘর থেকে উদ্ধার ডায়েরিতেই কী লুকিয়ে খুনের মোটিভ?

বিউটি পালের হাতে লেখা চিঠি। অনুমান পুলিশের। চিঠি থেকেই স্পষ্ট গত কয়েকমাসে দুজনের সম্পর্ক তলানিতে এসে ঠেকেছিল। তাহলে কী অন্য কেউ ঢুকে পড়েছিল সেই ফাঁকে? তারই জেরে এই নৃশংস খুনের ঘটনা? উত্তর হাতরাচ্ছে জিয়াগঞ্জ থানার পুলিশ। হাতের লেখা বিউটির কিনা, জানতে বিশেষজ্ঞের সাহায্য নেওয়া হচ্ছে।

দশমীর সকালে জিয়াগঞ্জের লেবুবাগানের বাড়িতে পাল দম্পতির সঙ্গে তাঁদের পাঁচ বছরের ছেলে আর্যর গলাকাটা দেহ উদ্ধার হয়। গত দু'বছর েই বাড়িতেই ছিলেন তাঁরা। আগে থাকতেন সাগরদিঘির সাহাপুরে। পুলিশের দাবি, সাগরদিঘিতে টাকা-পয়সা, জমি নিয়ে স্থানীয় জমি মাফিয়াদের সঙ্গে ঝামেলা হওয়ায় জিয়াগঞ্জে চলে আসেন বন্ধুপ্রকাশ। সেই জমি মাফিয়াদের খোঁজ করছে পুলিশ। কথা বলা হচ্ছে আত্মীয়দের সঙ্গে। খতিয়ে দেখা হচ্ছে বিউটির মোবাইলের কললিস্ট।

মঙ্গলবার বাড়ি থেকে খুনের পর এক যুবককে পালাতে দেখেন প্রতিবেশীরা। অজ্ঞাতপরিচয় সেই যুবকের স্কেচ আঁকানো হচ্ছে। পুলিশ নিশ্চিত, পরিচিত কেউ এই ঘটনায় জড়িত। এদিকে, এখনও খুনি ধরা না পড়ায় জিয়াগঞ্জ থানার সামনে বিক্ষোভ দেখান নিহত শিক্ষকের সহকর্মীরা।

First published: 09:32:14 AM Oct 11, 2019
পুরো খবর পড়ুন
Loading...
अगली ख़बर