corona virus btn
corona virus btn
Loading

নিম্নচাপের বৃষ্টি শুরু হওয়ার আগেই জলমগ্ন, নর্দমা উপচে জল উঠে এসেছে বাড়ির মধ্যে

নিম্নচাপের বৃষ্টি শুরু হওয়ার আগেই জলমগ্ন, নর্দমা উপচে জল উঠে এসেছে বাড়ির মধ্যে

এলাকাবাসীদের দাবি, তাঁরা খুবই কষ্টের মধ্যেই দিন কাটাচ্ছেন পোকামাকড়, সাপ নোংরা আবর্জনাকে নিয়ে। পৌর এলাকার কোথাও রাস্তার উপরে জল প্রায় হাটু সমান।

  • Share this:

#গোবরডাঙ্গা: কয়েকদিনের টানা বৃষ্টিতে গোবরডাঙ্গা পৌরসভা এবং তার পার্শ্ববর্তী বেড়গুম ১ নং পঞ্চায়েতের বেশ কয়েকটি এলাকা জলমগ্ন হয়ে পড়েছে। পৌরসভা এলাকার ৮ নম্বর ওয়ার্ড এবং ৩ নম্বর ওয়ার্ডের প্রায় ৫০টি পরিবার এবং বেড়গুম ১ নং পঞ্চায়েতের অন্তর্গত বাজেবেলেনী কাহারপাড়ার ১৭৮ নম্বর বুথ এবং ১৭৩ নম্বর বুথের প্রায় ৩০টি পরিবার জলের মধ্যে দিন কাটাচ্ছে। গত কয়েক দিন ধরে জলমগ্ন। জলের স্তর এখনও নামেনি। তার মধ্যেই এই নিম্নচাপ। আরও বেশি দিন জলমগ্ন থাকার আশঙ্কা তাদের।

এক প্রকার বাধ্য হয়ে তাঁরা জল ভেঙে বাজারঘাট থেকে শুরু করে হাসপাতালেও যাচ্ছেন। এলাকাবাসীদের দাবি, তাঁরা খুবই কষ্টের মধ্যেই দিন কাটাচ্ছেন পোকামাকড়, সাপ নোংরা আবর্জনাকে নিয়ে। পৌর এলাকার কোথাও রাস্তার উপরে জল প্রায় হাটু সমান। রাস্তার পাশে অবস্থিত নলকূপ থেকে পানীয় জলও নিচ্ছেন কেউ কেউ। গত দু'বছর ধরে বর্ষার সময় তাদের এভাবেই দিন কাটাতে হয়।

প্রশাসনের কাছে এর সমাধানের জন্য আবেদন করা হলেও সাময়িকভাবে জল নিকাশি, নর্দমা পরিষ্কার করা হলেও তা আবার আবর্জনা ভর্তি হয়ে জল চলাচলের রাস্তা বন্ধ হয়ে যায়। তাই নর্দমা উপচে জল উঠে এসেছে রাস্তা এবং বাড়ির মধ্যে। অন্যদিকে, পঞ্চায়েতের অধীন এলাকায় রাস্তার পুরোটাই জলের তলায়। অনেকেই নৌকা করে ডাঙায় জায়গায় উঠে এসেছেন।

গোবরডাঙ্গা পৌরসভার প্রশাসকমন্ডলীর সদস্য শঙ্কর দত্ত জানান, যমুনা নদী সংলগ্ন ওই এলাকার এমনিতেই নিচু জমি। বর্ষাকালে ওই এলাকা কখনও কখনও জলে প্লাবিত হয়। নদীতে ড্রেজিংয়ের মাধ্যমে পলি তোলা হয়েছে কিন্তু প্রাকৃতিক বিপর্যয়ে আমাদের কোনও হাত নেই। পৌরসভার তরফ থেকে নর্দমা নিকাশির ব্যবস্থা করা হয়েছিল। কিন্তু প্রত্যেক বছরের থেকে এবার একটু বেশি বৃষ্টি হওয়াতে জল জমে গিয়েছে কোথাও কোথাও।

পৌরসভার প্রশাসকমন্ডলী সবসময়ই এলাকা পরিদর্শন করে উন্নয়নের কাজ করে যাচ্ছেন। বিরোধিরা এখন কোনও ইস্যু খুঁজে না পেয়ে সাধারণ মানুষকে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করছেন। অন্যদিকে, পঞ্চায়েতের ওই এলাকার ১৭৮ নম্বর বুথের পঞ্চায়েত সদস্যা সুপ্রিয়া মণ্ডল জানান, আমরা বর্ষার আগেই জলে প্লাবিত ওই রাস্তা সংস্কারের জন্য টেন্ডার ডেকে সারাইয়ের ব্যবস্থা করেছি।

জল একটু কমলে প্রস্তাবিত ওই রাস্তা সারাইয়ের কাজ শুরু হবে। আমি সবে দু'বছর ক্ষমতায় এসে এলাকার উন্নয়ন করেছি। এখানে কাঁচা রাস্তা ছিল সেই রাস্তা ঢালাই হয়েছে। আম্ফান ঝড়ের ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের পাশে থেকে তাঁদের ক্ষতিপূরণের ব্যবস্থা করেছি। বার্ধক্য ভাতা, বিধবা ভাতা সহ অন্যান্য সরকারি সুযোগ-সুবিধা গ্রামের মানুষের মধ্যে বিলিয়ে দিয়েছি। বিগত বামফ্রন্ট সরকারের আমলে বারবার নেতারা এই অঞ্চলে এসে প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন শুধুমাত্র। কিন্তু কাজের কাজ কিছুই হয়নি। গ্রামের মানুষ সকলেই জানেন। তাঁদের সমস্যা সম্পর্কে আমরাও ওয়াকিবহাল। দলমত নির্বিশেষে উন্নয়নে আমাদের পঞ্চায়েত প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

Published by: Dolon Chattopadhyay
First published: August 21, 2020, 2:31 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर