পোস্ট অফিসের কর্মীদের বিরুদ্ধে টাকা জালিয়াতির অভিযোগ

পোস্ট অফিসের কর্মীদের বিরুদ্ধে টাকা জালিয়াতির অভিযোগ

সাতজন পোস্ট অফিস কর্মীকে ৫ বছর ৬ মাসের জেল এবং ২০ হাজার টাকার জরিমানার দেওয়ার শাস্তি ঘোষণা করা হয়েছে ৷ অনাদায়ে আরও ৬ মাস জেলের নির্দেশ দিয়েছে সিউড়ি আদালত।

  • Share this:

#সিউড়ি: পোস্ট অফিসের কর্মীর বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করে টাকা জালিয়াতির অভিযোগ ৷ সাতজন পোস্ট অফিস কর্মীকে ৫ বছর ৬ মাসের জেল এবং ২০ হাজার টাকার জরিমানার দেওয়ার শাস্তি ঘোষণা করা হয়েছে ৷ অনাদায়ে আরও ৬ মাস জেলের নির্দেশ দিয়েছে সিউড়ি আদালত।

২০০৩ সালে ভোলানাথ দত্ত নামে এক ব্যক্তির ৬২ টি কিষাণ বিকাশ পত্রের ম্যাচিউরিটির টাকা নেওয়ার জন্য সিউড়ি পোস্ট অফিসে আবেদন জানান। এরপরই সেই কিষাণ বিকাশ পত্রগুলিকে বর্ধমানের কালিপাহাড়ি পোস্ট অফিসে পাঠানো হয় ভেরিফিকেশনের জন্য ৷ তৎকালীন কালিপাহাড়ি পোস্ট অফিসের সাব-পোস্টমাস্টার নবনী কাহার।

তিনি সেই কিষান বিকাশ পত্র গুলি যাচাই করে সঠিক বলে দাবি করেন এবং সিউড়ি পোস্ট অফিসে পাঠিয়ে দেন। এরপরই ভোলানাথ দত্ত একটি আবেদনের মাধ্যমে ওই ৬২ কিষাণ বিকাশ পত্রের ম্যাচিউরিটির মোট ৬ লক্ষ ২০ হাজার টাকা নগদ তোলার জন্য আবেদন জানান। কিন্তু নিয়ম অনুসারে কিষাণ বিকাশ পত্রের ম্যাচিউরিটির একটি আবেদনের মাধ্যমে ২০ হাজার টাকার বেশি নগদ টাকায় তোলা সম্ভব নয়। কিন্তু ভোলানাথ আবেদনের মাধ্যমে সব টাকাটাই নগদে তোলেন। টাকা তোলার তিন দিন পর অর্থাৎ ২০০৩ সালে তৎকালীন সিউড়ি পোস্ট অফিসের আধিকারিক দেবাশীষ সোম দেখেন, যে ৬২ টি কিষান বিকাশ পত্রকে ভেরিফিকেশন করে টাকা দেওয়া হয়েছে তার কালিপাহাড়ি পোস্ট অফিসে কোন অস্তিত্বই নেই।

এছাড়া আবেদনের সময় ভোলানাথ দত্ত যে ঠিকানা দিয়েছেন আর কিষাণ বিকাশ পত্রে তার যা ঠিকানা আছে তাও আলাদা। এরপরে কালিপাহাড়ি সাব পোস্টমাস্টার সহ বেশ কয়েকজনের নামে অভিযোগ দায়ের করেন। সেই ঘটনায় অভিযুক্ত সাতজনকে পাঁচ বছর ছয় মাসের জেল হেফাজত এবং কুড়ি হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরও ছয় মাসের জেলের নির্দেশ দেন বিচারক

First published: November 8, 2019, 5:37 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर