Nandigram: নন্দীগ্রামে পঞ্চায়েত প্রধানের পদ ছাড়লেন মন্ত্রী শিউলি সাহার মা, দলের চাপেই ইস্তফা?

মন্ত্রী শিউলি সাহার মা বনশ্রী খাঁড়া৷

নন্দীগ্রাম গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান ছিলেন বনশ্রী খাঁড়া৷ এ দিন সকালে স্থানীয় বিডিও অফিসে গিয়ে পদত্যাগপত্র জমা দেন তিনি৷

  • Share this:

#নন্দীগ্রাম: সোমবারই রাজ্যের মন্ত্রী হিসেবে শপথ নিয়েছেন মেয়ে শিউলি সাহা৷ তার পর ৪৮ ঘণ্টাও কাটলা না৷ আচমকাই নন্দীগ্রামের তৃণমূল পরিচালিত গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধানের পদ থেকে ইস্তফা দিলেন শিউলিদেবীর মা বনশ্রী খাঁড়া৷ বনশ্রীদেবীর দাবি, শারীরিক অসুস্থতার কারণেই পদত্যাগ করেছেন তিনি৷ যদিও তৃণমূলের অন্দরের খবর, নন্দীগ্রামে নির্বাচনে বিজেপি-র হয়ে কাজ করার অভিযোগ ছিল বনশ্রীদেবীর বিরুদ্ধে৷ শুভেন্দু অধিকারীকেও তিনি জিততে সাহায্য করেছেন বলে অভিযোগ৷ সেই কারণে দলের চাপে পড়েই পদত্যাগ করেছেন তিনি৷

নন্দীগ্রাম গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান ছিলেন বনশ্রী খাঁড়া৷ এ দিন সকালে স্থানীয় বিডিও অফিসে গিয়ে পদত্যাগপত্র জমা দেন তিনি৷ যদিও একটি সূত্রের খবর, বনশ্রীদেবীর বিকুদ্ধে পঞ্চায়েতের বাকি সদস্যরাই অনাস্থা প্রস্তাব এনেছিলেন৷ ভোটের ফল প্রকাশের পর কয়েকদিন আগে নন্দীগ্রামে একটি সভাও করা হয় তৃণমূলের পক্ষ থেকে৷ সেই সভা থেকেই দলের যে নেতারা ভোটে বিজেপি-র হয়ে কাজ করেছেন, তাঁদের সরকারি সমস্ত পদ থেকে ইস্তফা দিতে বলা হয়৷

বনশ্রীদেবী অবশ্য এ দিন বলেন, 'আমার পেস মেকার বসাতে হয়েছে৷ শারীরিক অসুস্থতার জন্যই আমি পদত্যাগ করব বলে অনেকদিন আগেই ঠিক করে রেখেছিলাম৷ আমার বিরুদ্ধে অনাস্থা আনা হয়েছে বলেও কোনও খবর নেই৷ আজকেও বিডিও অফিসে অনেকক্ষণ ছিলাম, সেখানেও এরকম কিছু শুনিনি৷' তৃণমূল সূত্রের অবশ্য খবর, শুভেন্দু অধিকারীর সঙ্গে বরাবরই ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ বনশ্রীদেবীর৷ এমন কি, তাঁর এলাকা থেকে শুভেন্দু নির্বাচনে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের থেকে বেশি ভোট পেয়েছেন৷

এর পাশাপাশি, নন্দীগ্রামে ভোটের পর থেকেই রাজনৈতিক হিংসার ঘটনা ঘটেছে৷ বিভিন্ন দোকানপাটে লুট, ভাঙচুরের ঘটনাও ঘটে৷ বনশ্রীদেবীর অভিযোগ, তাঁর নিজের গাড়িও ভাঙচুর করা হয়েছে৷ এই দুষ্কৃতী তাণ্ডবের বিরুদ্ধে সরব হয়েছিলেন বনশ্রীদেবী৷ গত ৬ মে বিভিন্ন দলের কর্মীদের নিয়ে একটি ঐক্যবদ্ধ মঞ্চ গড়ে তুলে এই সন্ত্রাসের প্রতিবাদও করেন তিনি৷ যা ভাল ভাবে নেয়নি দলীয় নেতৃত্ব৷ এর পরেই পদত্যাগের বার্তা দেওয়া হয় বনশ্রীদেবীকে৷ সূত্রের খবর, একা বনশ্রীদেবী নন, নন্দীগ্রামে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের হারের জন্য কারা দায়ী, তাঁদের চিহ্নিত করে আরও কঠোর পদক্ষেপের পথে হাঁটবে তৃণমূল৷ বনশ্রীদেবী অবশ্য জানিয়েছেন, তিনি দলের সঙ্গেই আছেন৷ মেয়ে শিউলি সাহা মন্ত্রী হওয়াতেও তিনি খুবই খুশি বলে জানিয়েছেন বনশ্রীদেবী৷

নন্দীগ্রামের তৃণমূল নেতা আবু তাহেরও স্বীকার করেছেন, দল বিরোধী কাজের জন্য বেশ কয়েকজনকে চিহ্নিত করা হয়েছে৷ তার মধ্যে দাউদপুর অঞ্চলের পঞ্চায়েত খাদ্য কর্মাধক্ষ বাপি খুঁটি, কেন্দুমারি অঞ্চলের উপপ্রধান শানোয়ার আলি শাহ সহ বেশ কয়েকজনকে চিহ্নিত করা হয়েছে৷ এঁদের প্রত্যেককেই পদত্যাগ করতে নির্দেশ দিয়েছে দল৷ এ দিনও নন্দীগ্রামে গিয়ে দলের হার নিয়ে দলীয় নেতাদের সঙ্গে আলোচনা করেন জেলা সভাপতি সৌমেন মহাপাত্র৷

Sujit Bhoumik
Published by:Debamoy Ghosh
First published: