Home /News /south-bengal /
Dugra Puja: মা দুর্গার কেশসজ্জা তৈরিতে ব্যস্ত গোটা গ্রাম! পার্বতীপুর নামেই লুকিয়ে মায়ের কথা

Dugra Puja: মা দুর্গার কেশসজ্জা তৈরিতে ব্যস্ত গোটা গ্রাম! পার্বতীপুর নামেই লুকিয়ে মায়ের কথা

নিজস্ব চিত্র

নিজস্ব চিত্র

Dugra Puja: গ্রামের ৯৫ শতাংশ মানুষ ক্রমাগত কাজ করে চলেছেন পুজোর জন্য। অপেক্ষা করছেন মায়ের আসার।

  • Share this:

#জগৎবল্লভপুর: একটা গোটা গ্রাম। গ্রামের ৯৫ শতাংশ মানুষ ক্রমাগত কাজ করে চলেছেন পুজোর জন্য। অপেক্ষা করছেন মায়ের আসার। কারণ, তাঁদের হাতেই কেশরাজিতে সাজবেন মা দুর্গা। হোক বৃত্ত আলাদা, হোক তাঁদের আরাধনার প্রকার ভিন্ন। তবু তাঁরা নিজ গোষ্ঠীর উৎসবের ছুটিকে দূরে সরিয়ে তৈরি করছেন মায়ের মাথার চুল। জগৎবল্লভপুরের পার্বতীপুরের মানুষেরা এখন ব্যস্ত ঠাকুরের পরচুলা তৈরিতে । শুধু রাজ্য বা দেশ নয়, পৃথিবীর একমাত্র পরচুল তৈরি হয় হাওড়ার জগৎবল্লভপুরের পার্বতীপুরেই । রাজ্য থেকে দেশ আবার দেশ ছাড়িয়ে ভিনদেশেও প্রতিমা থেকে যে কোনও মূর্তি তৈরিতে ব্যবহৃত হয় পার্বতীপুরের পরচুলা, দাবি ব্যবসায়ীদের | পার্বতীপুর গ্রামটিতে বসবাসকারীদের মধ্যেই ৯৫ শতাংশ  মানুষই সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের। অন্য ধর্মের মানুষ হলেও তাঁরাই বংশপরম্পরায় বানিয়ে আসছেন হিন্দু ধর্মের দেবদেবীর মূর্তির মাথার চুল।| গ্রামের প্রায় প্রতি ঘরের মহিলারাই এই কাজে যুক্ত। এই পরচুলাই এই গ্রামের অর্থনীতি বহন করে। সারাবছরই এখানে এই কাজ হয়, তবে বাংলার সব থেকে বড় উৎসব দুর্গাপুজোতে সব থেকে বেশি ব্যস্ত থাকেন এই গ্রামের মানুষজনেরা | পুরুষরা মূলত পাটকে রঙ করা ও তৈরী হওয়া পরচুলা বাজারে বিক্রির কাজ করেন |  রঙ করা পাটকে চুলের রূপ দেন বাড়ির মহিলারই।

আরও পড়ুন: ববির থেকে বাদ আবাসন-পরিবহণ! দায়িত্ব বাড়ল অরূপের, পার্থর দফতর বণ্টনে চমক

আরও পড়ুন: CID-র ক্ষমতা নেই, সিবিআই চাই! বিধায়কদের লক্ষ-লক্ষ টাকা উদ্ধারে হাই কোর্টে জোর সওয়াল

রঙকরা পাটকে আলাদা করে, সেগুলিকে পেরেকের পিঁড়িতে আঁচড়ে পাটের মসৃন অংশকে সংগ্রহ করে সর্ষের তেল লাগিয়ে তারপর পাঠকাঠিতে পেঁচিয়ে সেগুলিকে ব্যবহার যোগ্য করে তোলেন | কালো ও লাল রঙের হয় এই পরচুল | পরচুলা ব্যবসায়ী শামসের দোহা মল্লিক-এর দাবি, এই শিল্প পৃথিবীর একমাত্র হাওড়ার জগৎবালভপুরের পার্বতীপুরেই হয়। গত দুবছর করোনার কারণে ব্যবসা সেই ভাবে হয়নি, এ বার পরচুলার চাহিদা অনেক বেশি। এ বার ভারতের বিভিন্ন রাজ্যের সঙ্গে সঙ্গে বাংলাদেশের থেকেও অনেক বেশি অর্ডার এসেছে। পরচুলা শিল্পী আমিনা বিবির দাবি, আমরা অন্য ধর্মের হলেও ছোট থেকেই মা ঠাকুমার কাছ থেকে এই কাজ শিখেছি। দূর্গা পুজোর সময় যখন কলকাতা শহরের ঠাকুর দেখতে যাই, তখন খুব ভাল লাগে যে মায়ের মাথায় লাগানো পরচুলা আমাদের হাতেই তৈরি।

Published by:Uddalak B
First published:

Tags: Durga Puja

পরবর্তী খবর