Home /News /south-bengal /
Hooghly: চন্দননগরের সুড়ঙ্গ নিয়ে রহস্য ক্রমে বাড়ছে! কোথায় গিয়ে মিলেছে এই পথ, দেখুন

Hooghly: চন্দননগরের সুড়ঙ্গ নিয়ে রহস্য ক্রমে বাড়ছে! কোথায় গিয়ে মিলেছে এই পথ, দেখুন

নিজস্ব চিত্র

নিজস্ব চিত্র

Hooghly: স্বাধীনতা সংগ্রামের সময় এই সুড়ঙ্গ ধরেই হয়তো বিপ্লবীরা যাতায়াত করতেন।

  • Share this:

    #চন্দননগর: সোশ্যাল মিডিয়া ট্রেন্ডসে এখন শুধুই চোখে পড়ছে চন্দননগর। নেটিজেনরা বলছেন প্রাচীন সুড়ঙ্গ দেখতে পাওয়া গিয়েছে চন্দননগরের রাস্তায়। সেই সুড়ঙ্গ দেখতে বিভিন্ন জায়গা থেকে লোকজনও আসছে। জানেন এই সুড়ঙ্গের রহস্য। দিন কয়েক আগে চন্দননগরের স্ট্যান্ড রোড জোড়া ঘাটের সামনে রাস্তার উপরে ধ্বস নামে। ধ্বস নামার পর মেরামতের দরুণ রাস্তা খনন শুরু করা হয়। তা থেকেই বেরিয়ে পড়ে এই সুড়ঙ্গ।

    আরও পড়ুন: নববর্ষের ভুরিভোজ হোক বিরিয়ানিতে, শহরের এই রেস্তোরাঁয় হবে ফুড ফেস্টিভ্যাল! জানুন

    প্রথম দেখায় যে কারুর এটিকে সুড়ঙ্গ বলেই মনে হবে। পুরনো ফরাসি আমলের ইটের তৈরি দেওয়াল। মধ্যে থেকে একটি মানুষের হামাগুড়ি দিয়ে যাওয়ার মতো রাস্তা। সুড়ঙ্গের কথা ইন্টারনেট মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়তেই বিভিন্ন জায়গা থেকে মানুষজন ভিড় জমান এই সুড়ঙ্গ দেখতে। নেটিজেনরা বলছেন, চন্দননগরের বিভিন্ন জায়গায় এরকম গুপ্ত-রাস্তা আগে ছিল। চন্দননগর পাতাল বাড়ি থেকে গির্জা ও বিভিন্ন জায়গায় নাকি এইরকম সুড়ঙ্গপথ ছড়িয়ে রয়েছে।

    স্বাধীনতা সংগ্রামের সময় এই সুড়ঙ্গ ধরেই হয়তো বিপ্লবীরা যাতায়াত করতেন। সুড়ঙ্গ দেখতে আসা এক ব্যাক্তি বলেন, সোশ্যাল মিডিয়ায় এই ছবি দেখে তিনি দেখতে এসেছেন এই সুড়ঙ্গ। ঘটনাটি নজরে আসতেই সরজমিনে এলাকা পরিদর্শনে আসেন চন্দননগরের মেয়র পরিষদ রাম চক্রবর্তী। তার সঙ্গে ছিলেন পুরাতত্ত্ব আধিকারিক-সহ পূর্ত দফতরের আধিকারিকরা। মেয়র রাম চক্রবর্তী বলেন, খিলানের গাঁথনি ও ইটের ধাঁচ দেখেই বোঝা যায় এটি ফরাসি আমলের। এর আগেও পাতাল বাড়ির সামনে রাস্তায় ধস নেমেছিল, সেখানেও মাটির তলা থেকে একই রকম সুড়ঙ্গ বেরিয়ে আসে। তিনি আরও বলেন, যেহেতু চন্দননগর ফরাসিদের এলাকা ছিল, তাই ফরাসিদের সময়কালেই নিকাশি ব্যবস্থার জন্য এই আন্ডার গ্রাউন্ড ড্রেনগুলি তৈরি করা হয়। যেহেতু ড্রেনগুলির বয়স হয়েছে তাই কিছু কিছু জায়গায় সেগুলি ভেঙে ধ্বস নামছে। কিন্তু এতে চিন্তার কিছু নেই। যেখানে যেখানে এই রকম হচ্ছে, তৎক্ষণাৎ সেই রাস্তা গুলি মেরামতের কাজ শুরু হয়ে যাচ্ছে।

    রাহী হালদার

    Published by:Uddalak B
    First published:

    Tags: Hoogly

    পরবর্তী খবর