শনিবার খুলছে পানাগড় বাইপাস

শনিবার উদ্বোধন হতে চলেছে বহু প্রতীক্ষিত পানাগড় বাইপাস ৷ দীর্ঘ ১৭ বছরের যানজটের যন্ত্রণার অবসান হতে চলেছে আগামী ১০ ডিসেম্বর ।

শনিবার উদ্বোধন হতে চলেছে বহু প্রতীক্ষিত পানাগড় বাইপাস ৷ দীর্ঘ ১৭ বছরের যানজটের যন্ত্রণার অবসান হতে চলেছে আগামী ১০ ডিসেম্বর ।

শনিবার উদ্বোধন হতে চলেছে বহু প্রতীক্ষিত পানাগড় বাইপাস ৷ দীর্ঘ ১৭ বছরের যানজটের যন্ত্রণার অবসান হতে চলেছে আগামী ১০ ডিসেম্বর ।

  • Pradesh18
  • Last Updated :
  • Share this:

    #বর্ধমান: শনিবার উদ্বোধন হতে চলেছে বহু প্রতীক্ষিত পানাগড় বাইপাস ৷ দীর্ঘ ১৭ বছরের যানজটের যন্ত্রণার অবসান হতে চলেছে আগামী ১০ ডিসেম্বর । গত ২০১৪ সালের ফেব্রুয়ারি মাস থেকে পানাগড়কে যানজট মুক্ত করতে শুরু হয় বাইপাস নির্মানের কাজ । প্রায় ৭০০ কোটি টাকা ব্যায়ে ৮.১৫ কিলোমিটার লম্বা এই রাস্তা নানা বাধা-বিঘ্ন পেরিয়ে অবশেষে শনিবার উদ্বোধন করা হবে ।

    যদিও প্রায় চারমাস আগে বাইপাস নির্মানের কাজ শেষ হলেও কেন্দ্রীয় মন্ত্রী সময় না পাওয়ায় উদ্বোধন করা সম্ভব হয়নি । অবশেষে তৈরী হয়ে পড়ে থাকা বাইপাসটি উদ্বোধনের জন্য কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয় নিজেই উদ্যোগী হন । উদ্বোধনের পরেই বাইপাসটি খুলে দেওয়া হবে সবরকম যান চলাচলের জন্য । এতে একদিকে যেমন সুবিধে পাবেন পানাগড়ের ব্যবসায়ী ও বাসিন্দারা অপর দিকে স্বস্তি পাবে নিত্য যাত্রীরাও । এতদিন যেখানে ঘণ্টার পর ঘণ্টা যানজটে আটকে থাকতে হত, তা এবার কয়েক মিনিটেই পার হয়ে যাওয়া যাবে । বাইপাস চালু হয়ে গেলে যানজটের পাশাপাশি কমে যাবে দুর্ঘটনাও ।

    ১৯৯৮ সালে তত্কালীন বাজপেয়ী সরকার ২ নম্বর জাতীয় সড়কের সম্প্রসারণ কাজ শুরু করলে পানাগড়ে বাধা দেয় স্থানীয় বাবসায়িরা । ফলে থমকে যায় ৩.৫ কিলোমিটারে জাতীয় সড়ক সম্প্রসারণের কাজ । তারপর থেকেই নিত্য যানজট বেড়েই চলে । সমস্যায় পড়ে ব্যবসায়ীরাও । যানজটের কারনে পানাগড় বাজার থেকে মুখ ফেরায় ক্রেতারাও । একই সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বেড়েছে দুর্ঘটনা ।

    ২০১১ সালে রাজ্যে তৃণমূলের সরকার গঠন হলে এলাকার মানুষ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর কাছে ফের আবেদন করেন, এমনকি রাস্তায় দাঁড়িয়ে কখনও কখনও মানুষের কষ্টের কথাও শুনেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় । তার পরেই ২০১৩ সালে বর্ধমানে একটি সভায় তিনি বাইপাস তৈরির উদ্যোগের কথা জানিয়েছিলেন । সেইমত ২০১৪ সালে দ্রুত জমি অধিগ্রহনের কাজ শুরু হয় । তাতে কখনও বেআইনি ভাবে মাটি ভরাটের অভিযোগ, কখনও ব্রিজের দাবিতে আন্দোলন করেছেন এলাকার মানুষ ।

    সব সমস্যা কাটিয়ে অবশেষে বাইপাস নির্মাণের কাজ শেষ হয় চার মাস আগেই । শনিবার এই বাইপাসটি সম্ভবত উদ্বোধন করবেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয় । জেলা প্রশাসনের তরফে কাঁকসার বিডিও অরবিন্দ বিশ্বাসকে সঙ্গে নিয়ে বাইপাস দেখতে যান দুর্গাপুরের মহকুমা শাসক শঙ্খ সাঁতরা । ১০ ডিসেম্বর উদ্বোধন কিন্তু ৮ ডিসেম্বর পর্যন্ত তাঁদের অফিসিয়ালি কিছুই জানানো হয়নি এবং নিমন্ত্রনও করা হয়নি বলে জানালেন কাঁকসার বিডিও অরবিন্দ বিশ্বাস । তবে বাইপাস শুরু হলে যানজটের যন্ত্রনা থেকে যে মুক্তি মিলবে এই আশায় খুশি নিত্যযাত্রী ও গাড়ির চালকরা ।

    First published: