চুরি গেল কবি বিনয় মজুমদারের অ্যাকাডেমি পুরস্কার ! জারি পুলিশি তদন্ত

চুরি গেল কবি বিনয় মজুমদারের অ্যাকাডেমি পুরস্কার ! জারি পুলিশি তদন্ত

এখনও পাওয়া যায়নি পুরস্কার, ধরা পড়েনি চোরও

  • Share this:

RAJARSHI ROY

#ঠাকুরনগর: কবিগুরুর নোবেলের পর চুরি হল কবি বিনয় মজুমদারের সাহিত্য অ্যাকাডেমি পুরস্কার। বিনয় মজুমদার স্মৃতিরক্ষা কমিটির দায়িত্বে থাকা লোকজন জানান, শুধু মাত্র বিনয় মজুমদারের সাহিত্য অ্যাকাডেমি পুরস্কারের ট্রফি নিয়ে পালিয়েছে চোর। প্রসঙ্গত বিনয় মজুমদার (১৯৩৪-২০০৬) অকৃতদার হওয়ায় ও নিকট আত্মীয় না থাকায় তাঁর অর্জিত সাহিত্য পুরস্কার লাইব্রেরিতেই থাকত। কিন্তু সেখানে না ছিল পাহারা , না ছিল তত্বাবধান , না রক্ষনাবেক্ষণ । সোমবার চোরকে বেগ পেতে হয় নি । দেশের ইতিহাসে রবীন্দ্রনাথের নোবেল চুরি যতটা মর্মান্তিক , ঠাকুরনগর তথা উত্তর চব্বিশ পরগনাবাসীর কাছে বিনয় মজুমদারের সাহিত্য অ্যাকাডেমি পুরস্কার খোয়া যাওয়া প্রায় সমপরিমান গ্লানি ও বেদনার । 'ফিরে এসো চাকা' লিখে বিখ্যাত হওয়া বিনয় মজুমদার জীবনের শেষ দিকে সাহিত্য অ্যাকাডেমি ও রবীন্দ্র পুরস্কার পান । একটি খোয়া গেল সোমবার এবং মঙ্গলবার সেটি যে ধারকে ঢাকা থাকত সেটি ভাঙা অবস্থায় পাওয়া যেতেই উঠছে প্রশ্ন । সত্যি কি পেশাদার চোরের কাজ ? নাকি কৌটোতেই ভূত ?

বিনয় মজুমদারের ' হাসপাতালে লেখা কবিতাগুচ্ছ' বইটির জন্য ২০০৫ সালে সাহিত্য জগতের সেরা পুরস্কার, সাহিত্য অ্যাকাডেমি পুরস্কারে ভূষিত হন। এ ছাড়া ' কাব্য সমগ্র ' তাঁকে এনে দেয় রবীন্দ্র পুরস্কার । রবীন্দ্র পুরস্কার চুরি না গেলেও সাহিত্য অ্যাকাডেমি পুরস্কারটি এতদিন এই পুরস্কারটি রাখা ছিল বিনয় মজুমদার স্মৃতি রক্ষা কমিটির লাইব্রেরির একটি লকারে। রবিবার রাতে লাইব্রেরি বন্ধ করে চলে যান কমিটির এক সদস্য। সোমবার সন্ধ্যায় লাইব্রেরি খুলতে এসে তাঁরা দেখেন লাইব্রেরির ছিটকানির একটি লক ভাঙা, ঘরে ঢুকে দেখেন কিছু কাজগ পত্র ওলোটপালট। ভাঙ্গা হয়েছে লকারটি। খোয়া গিয়েছে লকারে থাকা বিনয় মজুমদারের সাহিত্য অ্যাকাডেমি পুরস্কারের ট্রফিটি । অন্য কিছুতে হাত দেয়নি চোর। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে আসে গাইঘাটা থানার পুলিশ। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

মঙ্গলবারের উল্লেখযোগ্য আপডেট, লাইব্রেরি থেকে ৫০ মিটার দূরে বাড়ির মধ্যে সবেদা তলায় ভাঙ্গা অবস্থায় পাওয়া গিয়েছে পুরস্কারের আবরণ তথা ঢাকনার (কভার ) ভাঙা অংশ ও স্মারকের গায়ে লাগানো নামাঙ্কিত প্লেট। বিনয় মজুমদার স্মৃতি রক্ষা কমিটি পরিচালিত লাইব্রেরির সম্পাদক বৈদ্যনাথ দলপতি ও ঠাকুর নগর স্টেশনের বুক স্টলের মালিক রমন দে বিনয় মজুমদার বেঁচে থাকাকালীন তার সঙ্গে কাটানো কিছু মুহূর্তের কথা মনে করিয়ে দিয়ে বলেন, শিবপুর বিই কলেজ থেকে ফার্স্ট ক্লাস ফার্স্ট হওয়া ছাত্র বিনয় মজুমদারের অঙ্ক নিয়ে গবেষণা ও কবিতা লেখাই ছিল প্রধান কাজ। বর্মা মুলূকে ১৯৩৪ সালে বিনয় মজুমদারের জন্ম। এদেশে চলে আসার পর তার ক্ষেত্রে কোনও সরকারিই তেমন ভূমিকা নেয়নি বলে অভিযোগ করেন স্মৃতি রক্ষা কমিটির সদস্যরা l সাহিত্য অ্যাকাডেমি পুরস্কার চুরি হয়ে যাওয়ায় স্মৃতি রক্ষা কমিটির সদস্য হয়ে আমরা লজ্জিত বলে মত সদস্যদেরl। পুলিশি তদন্ত জারি রয়েছে । পাওয়া যায়নি পুরস্কার। ধরা পড়েনি চোরও।

First published: December 31, 2019, 7:09 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर