দক্ষিণবঙ্গ

corona virus btn
corona virus btn
Loading

সংক্রমণ বাড়তে থাকায় উদ্বেগ, এলাকায় করোনা হাসপাতাল চাইছেন কালনার বাসিন্দারা

সংক্রমণ বাড়তে থাকায় উদ্বেগ, এলাকায় করোনা হাসপাতাল চাইছেন কালনার বাসিন্দারা

জেলা স্বাস্থ্য দফতর সূত্রে জানা গিয়েছে, কালনা মহকুমা হাসপাতালের সুপার স্পেশালিটি উইংয়ে করোনা হাসপাতালের পরিকাঠামো তৈরির পরিকল্পনা আগেই নেওয়া হয়েছিল।

  • Share this:

#‌কালনা:‌ সংক্রমণ ক্রমশ বাড়তে থাকায় এলাকায় করোনা আক্রান্তদের চিকিৎসার উপযুক্ত পরিকাঠামোর চাইছেন পূর্ব বর্ধমানের কালনার বাসিন্দারা। তাঁরা বলছেন, মহকুমা জুড়ে করোনার সংক্রমণ বেড়েই চলেছে। অথচ এলাকায় করোনা আক্রান্তদের চিকিৎসার উপযুক্ত পরিকাঠামো নেই। করোনা আক্রান্তদের ষাট কিলোমিটার দূরে বর্ধমানের করোনা হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। তাতে অনেক সময় লেগে যাচ্ছে। হঠাৎ করে শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটলে আক্রান্তদের সঙ্গে সঙ্গে প্রয়োজনীয় চিকিৎসা পরিকাঠামোর আওতায় নিয়ে যাওয়া যাচ্ছে না। তাই কালনাতেই করোনা চিকিৎসার উপযুক্ত পরিকাঠামোর তৈরির দাবি জানিয়েছেন তাঁরা।

প্রতিদিনই পূর্ব বর্ধমান জেলায় আক্রান্তের সংখ্যা লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে। প্রতিদিন জেলায় যত জন আক্রান্ত হচ্ছেন তার তিনভাগের একভাগ কালনা মহকুমা বাসিন্দা। গত চব্বিশ ঘণ্টায় পূর্ব বর্ধমান জেলায় ১১৫ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। তার মধ্যে ৩৬ জন কালনা মহকুমা এলাকার বাসিন্দা। গত চব্বিশ ঘন্টা নতুন করে আক্রান্ত বাসিন্দাদের মধ্যে কালনা পৌরসভা এলাকায় রয়েছেন সাতজন। কালনা এক নম্বর ব্লকে আক্রান্ত হয়েছেন দশজন। কালনা দু নম্বর ব্লকে আক্রান্ত হয়েছেন বারো জন। মন্তেশ্বর ব্লকে আক্রান্ত হয়েছেন চারজন। পূর্বস্থলী এক নম্বর ব্লকেও তিনজন করোনা পজিটিভের হদিশ মিলেছে।

বাসিন্দারা বলছেন, কালনা পৌরসভা এলাকার প্রায় সব প্রান্তেই করোনা আক্রান্তের হদিশ মিলেছে। উদ্বেগ বাড়াচ্ছে কালনা শহর লাগোয়া কালনা এক ও কালনা দু নম্বর ব্লক।এই দুই ব্লকে প্রায় প্রতিদিনই বেশ কয়েকজন করে করোনা আক্রান্ত হচ্ছেন। অথচ এই মহকুমায় করোনা হাসপাতাল না থাকায় সমস্যা বাড়ছে। বাড়িতে থাকা আক্রান্তদের শারীরিক অবস্থার হঠাৎ করে অবনতি ঘটলে তাঁকে চিকিৎসা পরিষেবার আওতায় আনা যাচ্ছে না। অ্যাম্বুল্যান্স জোগাড় করে সেই রোগীকে নিয়ে বর্ধমানের করোনা হাসপাতালে পৌঁছতে অনেক সময় লেগে যাচ্ছে। পরিবার পরিজন ছেড়ে দূরের বর্ধমানের করোনা হাসপাতলে ভর্তি হওয়ার আশঙ্কায় অনেকেই করোনার পরীক্ষার আগ্রহ দেখাচ্ছেন না। অথচ এলাকায় কোনও হাসপাতাল থাকলে চিকিৎসা পরিকাঠামোর আওতায় সকলকে সহজেই নিয়ে আসা যেত বলে মনে করছেন তাঁরা।

জেলা স্বাস্থ্য দফতর সূত্রে জানা গিয়েছে, কালনা মহকুমা হাসপাতালের সুপার স্পেশালিটি উইংয়ে করোনা হাসপাতালের পরিকাঠামো তৈরির পরিকল্পনা আগেই নেওয়া হয়েছিল। দু’‌মাস আগেই সেই পরিকাঠামো খতিয়ে দেখেন জেলার মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক। সেখানে ১০০ শয্যার করোনা হাসপাতাল করার পরিকল্পনাও নিয়েছিল জেলা প্রশাসন। কিন্তু শেষ মুহূর্তে তা থেকে পিছিয়ে আসা হয়। জেলা প্রশাসনের এক আধিকারিক জানান, কালনাতে রেখেই যাতে মহকুমার রোগীদের উপযুক্ত চিকিৎসা দেওয়া যায় তার ভাবনাচিন্তা চলছে। এ ব্যাপারে রাজ্য স্বাস্থ্য দফতরের পরামর্শ চাওয়া হচ্ছে।

Saradindu Ghosh

Published by: Uddalak Bhattacharya
First published: October 31, 2020, 2:09 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर