দক্ষিণবঙ্গ

?>
corona virus btn
corona virus btn
Loading

লকডাউনের সুফল পেতে কন্টেইনমেন্ট জোনের এলাকা বাড়ানোর পক্ষে বাসিন্দারা

লকডাউনের সুফল পেতে কন্টেইনমেন্ট জোনের এলাকা বাড়ানোর পক্ষে বাসিন্দারা

বর্ধমান শহরে পাঁচটি জায়গায় লকডাউন চলছে। শহরের রাজগঞ্জ, রামকৃষ্ণ রোড, বেড় মোড়, বড়নীলপুর, লবনগোলা, শহর সংলগ্ন রায়নগর,রেনেসাঁ এলাকায় কন্টেইনমেন্ট জোনে লকডাউন চলছে।

  • Share this:

#বর্ধমান: কন্টেইনমেন্ট জোনের এলাকা বাড়ানো হোক। চাইছেন বর্ধমান শহরের সচেতন বাসিন্দারা। এমনিতেই কন্টেইনমেন্ট জোন ও বাফার জোন মিলিয়ে সমগ্র জায়গায় লকডাউন কঠোর করার কথা ঘোষণা করেছে রাজ্য সরকার। সেই মতো বৃহস্পতিবার থেকে কন্টেইনমেন্ট জোন এলাকায় লকডাউন চলছে। কিন্তু বর্ধমান শহরের সচেতন বাসিন্দারা বলছেন, এই লকডাউনের কোনও প্রভাব শহরে দেখা যাচ্ছে না। কোথাও কোথাও দু'চারটে বাড়িকে ঘিরে লকডাউন চলছে। বাকি সবকিছু স্বাভাবিক থাকছে। কন্টেইনমেন্ট জোনের এলাকা বাড়িয়ে লকডাউন করা গেলে করোনার সংক্রমণ ঠেকাতে তা অনেক কার্যকরী হবে বলে মনে করছেন তাঁরা।

বর্ধমান শহরে পাঁচটি জায়গায় লকডাউন চলছে। শহরের রাজগঞ্জ, রামকৃষ্ণ রোড, বেড় মোড়, বড়নীলপুর, লবনগোলা, শহর সংলগ্ন রায়নগর,রেনেসাঁ এলাকায় কন্টেইনমেন্ট জোনে লকডাউন চলছে। এইসব এলাকায় যে বাড়িতে করোনার সংক্রমণ দেখা দিয়েছে সেই বাড়ি ও তার আশপাশের কয়েকটি বাড়ি মিলিয়ে কন্টেইনমেন্ট জোন করা হয়েছে। ওই এলাকা চিহ্নিত করতে দুপাশে বাঁশের ব্যারিকেড দিয়ে দেওয়া হয়েছে। তার আশপাশ এলাকার বাসিন্দারা ঘোরাঘুরি করছেন নিজেদের মর্জিমাফিক অনেকে ওই এলাকার বাইরে দিয়ে মুখে মাস্ক না লাগিয়েই যাতায়াত করছেন।

সচেতন বাসিন্দারা বলছেন, এভাবে কয়েকটি বাড়িকে ঘিরে কন্টেইনমেন্ট জোন না করে তার সীমানা বাড়ানো হোক। তার আশপাশ এলাকায় যান চলাচল নিয়ন্ত্রণ করা হোক। বাফার জোনেও যাতে লোক চলাচল বন্ধ থাকে তা নিশ্চিত করা হোক। তা না হলে এই লকডাউনের সুফল মিলবে না। অনেক এলাকাতেই দেখা যাচ্ছে বাঁশের ব্যারিকেডের পাশ দিয়ে অনবরত বাসিন্দাদের যাতায়াত চলছে। তাই তাদেরও আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা থেকেই যাচ্ছে। যে অর্থে কন্টেইনমেন্ট জোন ও বাফার জোনকে এক করে লকডাউনের কথা বলা হয়েছে এখানে তা সেভাবে কার্যকর করা হচ্ছে না বলেই মত ওই বাসিন্দাদের। যদিও জেলা প্রশাসন জানিয়েছে, রাজ্য সরকারের স্বাস্থ্য দপ্তরের গাইড লাইন মেনেই কন্টেইনমেন্ট জোন ও বাফার জোনকে এক করে লকডাউন করা হচ্ছে। যথাযথ ভাবে লকডাউন নিশ্চিত করতে পুলিশি টহল ও পুলিশি নজরদারি চলছে। তবে শুধু ওই এলাকার বাসিন্দাদেরই নয়, সব এলাকার সব বাসিন্দাদেরই এখন স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা জরুরি।

Published by: Dolon Chattopadhyay
First published: July 12, 2020, 3:44 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर