• Home
  • »
  • News
  • »
  • south-bengal
  • »
  • অজানা সরীসৃপের আতঙ্ক ছড়াল বাঁকুড়ায়

অজানা সরীসৃপের আতঙ্ক ছড়াল বাঁকুড়ায়

অজানা সরীসৃপের কামড়ে ইতিমধ্যেই মৃত্যু হয়েছে দু’জনের । একজন গুরুতর অবস্থায় ভর্তি হাসপাতালে । প্রতিদিন  সন্ধ্যে নামলেই ওই অজানা সরীসৃপের শিকার হচ্ছে গ্রামের পথ চলতি মানুষ ।

অজানা সরীসৃপের কামড়ে ইতিমধ্যেই মৃত্যু হয়েছে দু’জনের । একজন গুরুতর অবস্থায় ভর্তি হাসপাতালে । প্রতিদিন সন্ধ্যে নামলেই ওই অজানা সরীসৃপের শিকার হচ্ছে গ্রামের পথ চলতি মানুষ ।

অজানা সরীসৃপের কামড়ে ইতিমধ্যেই মৃত্যু হয়েছে দু’জনের । একজন গুরুতর অবস্থায় ভর্তি হাসপাতালে । প্রতিদিন সন্ধ্যে নামলেই ওই অজানা সরীসৃপের শিকার হচ্ছে গ্রামের পথ চলতি মানুষ ।

  • Pradesh18
  • Last Updated :
  • Share this:

    #বাঁকুড়া: অজানা সরীসৃপের কামড়ে ইতিমধ্যেই মৃত্যু হয়েছে দু’জনের । একজন গুরুতর অবস্থায় ভর্তি হাসপাতালে । প্রতিদিন  সন্ধ্যে নামলেই ওই অজানা সরীসৃপের শিকার হচ্ছে গ্রামের পথ চলতি মানুষ ।

    গ্রামবাসীরা বলছেন চোখে দেখা না গেলেও সাপের মতো কোনও বিষধর সরীসৃপ বাসা বেঁধেছে গ্রামে । তারই শিকার হচ্ছেন গ্রামবাসীরা । ঘটনার চেয়েও গুজব ছড়িয়েছে তার কয়েকগুন বেশি । ফলে বাঁকুড়ার রাইপুর ব্লকের মটগোদা এলাকায় এখন চেপে বসেছে অজানা সরীসৃপের আতঙ্ক । সন্ধ্যা নামলেই ভরা বাজার হয়ে পড়ছে শুনশান । আতঙ্কে বাড়ির দরজা জানালা বন্ধ করে রাত কাটাচ্ছেন এলাকার বাসিন্দারা ।

    রাইপুর ব্লকের মটগোদা এলাকা জঙ্গলমহলের অন্তর্গত হলেও গ্রামের আশপাশে তেমন জঙ্গল নেই । গ্রামের এক প্রান্তে থাকা বন দফতর সংলগ্ন এলাকাতেই চলতি সপ্তাহের মঙ্গলবার প্রথম ওই অজানা সরীসৃপের শিকার হন স্থানীয় শ্যামসুন্দরপুর গ্রামের বাসিন্দা আনিসুদ্দিন শেখ । অজানা সরীসৃপের কামড় খাওয়ার পর তাঁর গায়ে আঁচড়ের মত দাগ দেখতে পান পরিবারের লোকজন । এর কিছুক্ষণ পর তাঁর রক্তবমি শুরু হয় । তৎক্ষণাৎ তাঁকে রাইপুর গ্রামীণ হাসপাতালে ও পরে বাঁকুড়া সম্মিলনী মেডিক্যাল কলেজে নিয়ে যাওয়া হলে তাঁর মৃত্যু হয় ।

    প্রায় একই ভাবে স্থানীয় এক গৃহবধূরও মৃত্যু হয়েছে বলে দাবি এলাকার মানুষের । অপর এক আক্রান্ত ব্যক্তি এখনও চিকিৎসাধীন রয়েছেন । পরপর তিনদিন তিনজন আক্রান্ত হওয়ার পর স্বাভাবিক ভাবেই এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে । স্থানীয়দের দাবি, সন্ধ্যার সময় বন দফতরের পাশ দিয়ে গেলেই ওই সরীসৃপের শিকার হতে হচ্ছে । সন্ধের পর পায়ে হেঁটে  যওয়াতো দূর আতঙ্কে বদলে গিয়েছে বাস চলাচলের রুট। স্থানীয় মানুষ বিষয়টি নিয়ে বন দফতরের হস্তক্ষেপ দাবি করেছে ৷

    First published: