Yaas Cyclone Update: ব্যান্ডেল, হালিশহরে মিনি টর্নেডোর কারণ জানাল আবহাওয়া দফতর

মুহূর্তের ঝড় যেন ইয়াসের ট্রেলর হয়ে থাকল।

মুহূর্তের ঝড় যেন ইয়াসের ট্রেলর হয়ে থাকল।

  • Share this:

    #ব্যান্ডেল:

    বাংলার বিভিন্ন জেলায় ইয়াসের দাপট শুরু হবে ২৬ মে অর্থাত্ বুধবার থেকে। তার আগে মঙ্গলবার টর্নেডোর তাণ্ডব দেখল হুগলি ও উত্তর ২৪ পরগণা। হুগলির ব্যান্ডেল ও উত্তর ২৪ পরগণার নৈহাটি এবং হালিশহরে টর্নেডোর দাপটে ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। মিনিট কয়েকের ঝড় দোকানপাট আছড়ে নিয়ে ফেলল খালের জলে। উপড়ে গেল রাস্তার ধারে থাকা গাছও। ইয়াসের দাপট শুরুর আগে টর্নেডোর দাপাদাপিতে আতঙ্ক যেন আরও বেড়েছে। ইয়াস আছড়ে পরার আগে এমন কিছু একটা হতে পারে, আন্দাজই করতে পারেননি আবহাওয়াবিদরা। মুহূর্তের ঝড় যেন ইয়াসের ট্রেলর হয়ে থাকল। বুধবারের প্রলয় কতটা ক্ষতি করবে, তার আন্দাজ অবশ্য এদিন পেলেন ব্যান্ডেল, হালিশহরবাসী।

    আলিপুর আবহাওয়া দফতরের তরফে সঞ্জীব বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছেন, “এটা ইয়াস-এর সঙ্গে যুক্ত। কোনও সাইক্লোন তৈরী হওয়ার সময় এই ধরণের মেসোসাইক্লোন বা ছোট রকমের টর্নেডো হয়। সাইক্লোন ল্যান্ড ফল হলে নিচের ও উপরের বাতাসের পার্থক্য হয়। ফলে সাইক্লোনের আগে এই ধরণের টর্নেডো হয়।” এদিন বিপর্যয় মোকাবিলা সচিব বলেন, ”বুধবার ১২টার মধ্যে ইয়াস-এর ল্যান্ড ফল হতে পারে। ইয়াস-এর গতিপ্রকৃতির ওপর নির্ভর করে কোথাও কোথাও পকেট টর্নেডোর মতো হতে পারে।” মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এদিন বলেন, ”আগে ঝড়টা চলে যেতে দিন। কারও কাজ থাকলে বাইরে না গিয়ে ফোনে কাজটা করে নিন। আমি বলছি ক্ষয় ক্ষতির বিষয়টা প্রশাসন দেখে নেবে। আমি রাতে নবান্নে থাকব। সব খোঁজ খবর রাখছি। এখানে ওয়ার রুম করে আমরা কাজ করছি। সবাই সাবধানে থাকবেন। রাতে প্রয়োজন না হলে আমি আর আপনাদের সঙ্গে কথা বলতে আসছি না।

    সোমবার থেকেই রাজ্যের বিভিন্ন জেলায় হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টি শুরু হয়েছে। মঙ্গলবার বেলা গড়াতেই বহু জায়গায় ভারি বৃষ্টিও হয়েছে। তবে টর্নেডোর ঘটনা ঘটেছে হুগলি ও উত্তর ২৪ পরগণার ওই দুটি জায়গাতেই। মুখ্যমন্ত্রী আগেই বলেছিলেন, “আমরা তিন দিন সারা দিনরাত সজাগ থাকছি। আমাদের উপর মানুষের ভরসা আছে। আর মানুষের আমাদের ওপর ভরসা থাকুক এটাই চাই। জেলাগুলির সঙ্গে আমরা নিবিড় যোগাযোগ রেখে চলছি। তবে কেউ এমন কিছু করবেন না যাতে আতঙ্কের সৃষ্টি হয়।”

    Published by:Suman Majumder
    First published: