Rajib Bandyopadhyay : বঙ্গ বিজেপিকে জোড়া চিঠি! দূরত্ব ভুলে BJP’র সঙ্গে ফের ঘনিষ্ঠতা বাড়াচ্ছেন রাজীব?

রাজীবের জোড়া চিঠি Photo : File Photo

তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দিয়েছিলেন প্রাক্তন মন্ত্রী তথা ডোমজুড়ের বিধায়ক রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়(Rajib Bandopadhyay)। কিন্তু নির্বাচনে আরও অনেক দলবদলকারী নেতার মতনই পরাজয় সহ্য করতে হয়েছে তাঁকে। ডোমজুড়ের মানুষ রায় দেননি তাঁর পক্ষে।

  • Share this:

    #কলকাতা : একুশের নির্বাচনের দল বদলুদের মধ্যে তিনি ছিলেন প্রথম সারিতে। নির্বাচনের আগে 'কাজ করতে না পারা'-ইস্যুতে তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দিয়েছিলেন প্রাক্তন মন্ত্রী তথা ডোমজুড়ের বিধায়ক রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়(Rajib Bandopadhyay)। কিন্তু নির্বাচনে আরও অনেক দলবদলকারী নেতার মতনই পরাজয় সহ্য করতে হয়েছে তাঁকে। ডোমজুড়ের মানুষ রায় দেননি তাঁর পক্ষে। আর তারপর থেকেই একটু একটু করে দলে নিস্ক্রিয় এবং সোশ্যাল মিডিয়ায় বেসুরো হতে শুরু করেন রাজীব। সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রকাশ্যেই দলের সমালোচনায় মুখর হন তিনি।

    নিজের ফেসবুক পোস্টে পরিষ্কার লেখেন, '৩৫৬ ধারা জুজু বারবার দেখালে মানুষ ভালোভাবে নেবে না। শাসকদলের সমালোচনা ছেড়ে নিজেদের সমালোচনা করা উচিত।' ইত্যাদি। এছাড়াও তৃণমূলের হেভিওয়েট নেতাদের সঙ্গে তাঁর ‘সৌজন্য সাক্ষাৎ’ তাঁর সুর বদলের ইঙ্গিত দিয়েছে বার বার। নির্বাচনের ফল প্রকাশের পর বেসুরো মানেই আবার দল বদলের চিন্তা, এমনটাই ধরে নিয়েছিল রাজনৈতিক মহলের একাংশ। যার জেরে তৃণমূলের অন্দরে শুরু হয় বিক্ষোভও। ডোমজুড়ের অনেক তৃণমূল কর্মীও রাস্তায় নেমে কার্যত বিক্ষোভ দেখান রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়ের (Rajib Bandopadhyay) বিরুদ্ধে।

    অন্যদিকে, গেরুয়া শিবিরের সঙ্গেও দূরত্ব বাড়াচ্ছিলেন তিনি। কিন্তু শনিবার সেসব জল্পনা ওলটপালট হয়ে গেল। বিজেপি (BJP) রাজ্য দপ্তরে জোড়া চিঠি পাঠিয়ে রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় বোঝালেন, তিনি রয়েছেন বিজেপিতেই। দলের কাজই করছেন। ফলে তা নতুন সমীকরণের সূচনা করে দিল বলে মত রাজনৈতিক মহলের একাংশের।

    বিজেপি সূত্রে খবর, রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়ের (Rajib Bandopadhyay) তরফে শনিবার দুটি চিঠি (Two Letters) এসে পৌঁছেছে দলের রাজ্য দপ্তরে। নিজের এলাকা ডোমজুড়ে (Domjur) ভোট পরবর্তী হিংসার জেরে কতজন বিজেপি কর্মী এখনও ঘরছাড়া রয়েছেন তা বিস্তারিত ভাবে খোলা চিঠিতে জানিয়েছেন রাজীব। তালিকা করে সেসব নাম চিঠিতে লিখেছেন তিনি। দলের রাজ্য সাধারণ সম্পাদক অমিতাভ চক্রবর্তী এবং সহ-সম্পাদক প্রতাপ বন্দ্যোপাধ্যায়কে দুটি চিঠি পাঠিয়েছেন ডোমজুড়ের প্রাক্তন বিধায়ক। তিনি জানিয়েছেন, ভোটের পর থেকে ডোমজুড়ে যেসব অশান্তির ঘটনা ঘটেছে, তাতে যাঁরা নানাভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন, তাঁদের ক্ষতিপূরণের আবেদন জানিয়ে বিজেপি রাজ্য দপ্তরে পাঠানো হয়েছে তালিকা।

    তৃতীয় তৃণমূল সরকার ক্ষমতায় আসার পর বিজেপি নেতারা লাগাতার সমালোচনা, আক্রমণ করছিলেন শাসকদলকে। সেই সময়ে রাজীবকে কিন্তু ‘বেসুরো’ই শুনিয়েছিল। ফেসবুক পোস্টে বিজেপি নেতাদের এই সমালোচনার জবাবে তিনি তৃণমূলের পাশেই দাঁড়ান। তারপর তৃণমূলের মুখপাত্র কুণাল ঘোষ, মন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের বাড়িতে ছুটে যাওয়ায় অনেকেই মনে করছিলেন, বিজেপিতে গিয়ে ব্যর্থতার মুখ দেখে হয়ত পুরনো ঘরে ফিরতে চাইছেন রাজীব। কিন্তু শনিবারের পর রাজনৈতিক মহলের একাংশের মত, হয়ত তৃণমূলে ফেরার পথ প্রত্যাশিতভাবে প্রশস্ত করতে পারেননি তিনি। তাই ফের গেরুয়া শিবিরেই সক্রিয়তা দেখাচ্ছেন। সূত্রের খবর, আগামী ২৯ তারিখ কলকাতায় দলের কার্যকরী বৈঠকে তাঁকে আমন্ত্রণ জানানো হচ্ছে। তবে আমন্ত্রণপত্র পেলেই ঠিক করবেন, বৈঠকে যোগ দেবেন কি না। এমনই জানিয়েছেন রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়।

    Published by:Sanjukta Sarkar
    First published: