corona virus btn
corona virus btn
Loading

সোশ্যাল মিডিয়ায় কবি প্রণামের মধ্যে দিয়ে রবি স্মরণ

সোশ্যাল মিডিয়ায় কবি প্রণামের মধ্যে দিয়ে রবি স্মরণ

জীবন মরনের সীমানা ছাড়ায়ে বন্ধুকে আপন করে নেওয়া যায় কবির গানের মাধ্যমে

  • Share this:

#বর্ধমান: করোনা সংক্রমণে উদ্বেগে গোটা বিশ্ব। গৃহবন্দি সকলেই। পরিচিতদের একে অপরের কাছাকাছি আসতেও মানা। এই সময় কবিগুরুই বোধহয় একমাত্র মাধ্যম। বিনি সুতোর মালায় তিনিই শুধুমাত্র তাঁর সৃষ্টির মাধ্যমে সবাইকে আবদ্ধ করতে পারেন। জীবন মরনের সীমানা ছাড়ায়ে বন্ধুকে আপন করে নেওয়া যায় কবির গানের মাধ্যমে।

এই উদ্বেগের মাঝে একমাত্র রবি ঠাকুরই নতুন ভোরের সন্ধান দিয়ে  অনুপ্রাণিত করেন। তাই বিশ্বকবির জন্মদিন বৃথা যেতে দিলেন না অনেকেই। অনেকে কবি প্রণাম করলেন মুখে মাস্ক বেঁধে  সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে, অনেকে পঁচিশের ডাকে সাড়া দিলেন অন লাইনে, সোস্যাল মিডিয়ায়।

বাঙালির শয়নে-স্বপনে-জাগরণে রবীন্দ্রনাথ। জন্ম-মৃত্যু-পুজোয় রবীন্দ্রনাথ। কবিগুরু আছেন প্রভাতে, সায়হ্নে, বর্ষায়, বসন্তের মাতাল সমীরণে। ঋতুতে ঋতুতে নতুন ভাবে ধরা দেন কবি। হৃদয়ের অন্তস্থলে সোনার সিংহাসনে যাঁর স্থায়ী আসন পাতা বিশেষ একটা দিনে আলাদা করে তাঁর পুজো করে না বাঙালি। সেই মহাপ্রাণকে তাঁরই আবির্ভাব দিবসে শ্রদ্ধা জানানোর রীতি বাঙালির আবেগে, মননে। তাই পয়লায় একলা বৈশাখ কাটানো গেলেও রবি ছাড়া পঁচিশে বৈশাখ হতে দিল না এই বাংলা।

বাঙালির কাছে পঁচিশের ডাক মানেই পাঞ্জাবি পরে বেরিয়ে পড়া। পঁচিশে বৈশাখ মানেই আকাশজোড়া লাল কৃষ্ণচূড়া রবির আলো। পঁচিশে বৈশাখ  মানেই নৃত্যে গানে প্রভাতফেরি। রবির গানে প্রকৃতি প্রেমের মাখামাখি, সবার মনে রবীন্দ্রনাথ। যথার্থই বলছিলেন মেহবুব হাসান, 'ভোর পাঁচটা থেকে তোড়জোড় শুরু হয়ে যায়। ছেলে মেয়েরা আসে। সবাইকে নিয়ে রাস্তায় বেরিয়ে পড়া। পথনৃত্য। প্রভাতফেরি। তারই মাঝে অনুষ্ঠান। দিনটা যে কীভাবে পার হয়ে যায় টের পাইনা। আজ সকালে ঘুম থেকে উঠে বড় ফাঁকা লাগছিল। কয়েক জন শিক্ষার্থী ঘরে থাকতে না পেরে চলে এসেছিল। তাদের নিয়ে মুখে মাস্ক বেঁধে দূরত্ব বজায় রেখে কবি প্রণাম সাড়া হল।' অন্যান্য বারের মতো এবারও পঁচিশে পালনের উদ্যোগ আগে থেকেই নিয়েছিলেন পিয়ালী। প্রতিভা কালচারাল সেন্টারের পিয়ালী ঘোষ এই করোনা আবহে প্রস্তুতি নিয়েছিলেন একটু অন্যরকমভাবে। এবার প্রতিভার কবি প্রণাম তাই অনলাইনে। সোস্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে দিয়েছেন ছাত্র ছাত্রীদের পরিবেশনা। কবি তো বলেইছেন, 'আমার মুক্তি আলোয় আলোয়।' অনেকেই একক নৃত্য পরিবেশন করে তা ক্যামেরা বন্দি করে পোস্ট করেছেন অনলাইনে। অনেকে ভিড় এড়াতে লাইভ অনুষ্ঠান করেছেন সোস্যাল মিডিয়ায়। অনেকে শুধুই ইজি চেয়ারে চোখ বুজে আত্মস্থ করেছেন রবীন্দ্রসঙ্গীত।

SARADINDU GHOSH

Published by: Rukmini Mazumder
First published: May 8, 2020, 9:22 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर