বিয়ের দেখাশোনা চলছিল সুদীপের, বলেছিলেন তাড়াতাড়ি বাড়ি ফিরবেন ! 'ফিরছেন', তবে কফিনবন্দি হয়ে

বিয়ের দেখাশোনা চলছিল সুদীপের, বলেছিলেন তাড়াতাড়ি বাড়ি ফিরবেন ! 'ফিরছেন', তবে কফিনবন্দি হয়ে

  • Share this:

    #নদিয়া: পুলওয়ামায় ভয়াবহ জঙ্গি হামলায় প্রাণ হারালেন নদিয়ার তেহট্টের হাঁসপুকুরিয়া গ্রামের ছেলে জওয়ান সুদীপ বিশ্বাস। বৃহস্পতিবার বিকেল ৩টেয় গ্রামের বাড়িতে ফোন করেছিল সুদীপ। সেটাই ছিল শেষ ফোন। পরিবারের সঙ্গে শেষবারের মতো তখনই সুদীপের কথা হয়। ফোনে সুদীপ মা, বাবকে চিন্তা করতে বারণ করেছিল। এবার তাড়াতাড়ি বাড়ি ফিরবে বলে আশ্বস্তও করেছিল, বাড়ি ফিরছে সুদীপ, তবে কফিনবন্দি হয়ে।

    ছোট থেকেই সুদীপের স্বপ্ন ছিল সেনাবাহিনী যোগ দেওয়ার। সেই স্বপ্ন সত্যিও হয়েছিল। সিআরপিএফ-এর ৯৮ নম্বর ব্যাটেলিয়নের জওয়ান ছিলেন সুদীপ। কিন্তু সবটাই এখন অতীত! বাড়িতে ফোন করার আধঘণ্টার মধ্যেই জম্মু-শ্রীনগর হাইওয়ের উপর সিআরপিএফ কনভয়ে ফিঁদায়ে হামলা চালায় জইশ-ই-মহম্মদ জঙ্গি আদিল। ৩৫০ কেজি বিস্ফোরকবোঝাই এসইউভি নিয়ে এসে ধাক্কা মারে কনভয়ের একটি গাড়িতে। বিস্ফোরণের তীব্রতায় পুড়ে খাক হয়ে যায় কনভয়ের সেই গাড়িটি। সেই কনভয়েই ছিল তেহট্টের সুদীপ।

    বৃহস্পতিবার সন্ধ্যাতেই কনভয়ে জঙ্গি হামলার খবর পেয়েছিল সুদীপের বাড়ির লোক। আশঙ্কায় বুক কেঁপে উঠেছিল। রাতে সুদীপের সঙ্গে বার বার ফোনে যোগাযোগ করার চেষ্টা করে বাড়ির লোক। কিন্তু কোনভাবেই তা সম্ভবপর হয়নি। শুক্রবার বেলা গড়াতে শেষপর্যন্ত সত্যি হল আশঙ্কা-ই। জঙ্গি হামলায় শহিদ হয়েছে ঘরের ছেলে। মা, বাবা আর এক বোনকে নিয়ে ছোট্ট ছিমছাম সংসার ছিল সুদীপের। সিআরপিএফ-এ যোগ দেওয়ার পর ঘরে কিছু টাকা এসেছিল। সেই উপার্জনকে সম্বল করেই সদ্য বোনের বিয়ে দিয়েছিল সিআরপিএফ জওয়ান দাদা। নিজের এখনও বিয়ে হয়নি। দেখাশোনা শুরু হয়েছিল। বিয়ের আগে একটা পাকা ঘর তৈরি করার দরকার ছিল , শুরু হয়ে গিয়েছিল কাজও! কিন্ত, বৃহস্পতিবারের আত্মঘাতী জঙ্গি হামলায় এক মুহূর্তের মধ্যে ভেঙে গুঁড়িয়ে চুরমার করে দিল সব স্বপ্ন।

    অন্য ভিডিও দেখুন--

    First published:

    লেটেস্ট খবর