corona virus btn
corona virus btn
Loading

যাত্রী নেই, বাড়ছে জ্বালানি খরচ, পুরনো ভাড়ায় রাস্তায় বাস নামিয়ে ফাঁপড়ে বেসরকারি বাস মালিকরা

যাত্রী নেই, বাড়ছে জ্বালানি খরচ, পুরনো ভাড়ায় রাস্তায় বাস নামিয়ে ফাঁপড়ে বেসরকারি বাস মালিকরা

জেলা জুড়ে বাস চলাচল স্বাভাবিক হয়েছে ঠিকই, কিন্তু পথে যাত্রীর দেখা মিলছে না। ফাঁকা বাস নিয়ে যাতায়াত করতে গিয়ে লোকসানের বহর দিন দিন বাড়ছে।

  • Share this:

Saradindu Ghosh

#বর্ধমান: বাস রাস্তায় নামিয়ে মহা ফাঁপড়ে পড়েছেন পূর্ব বর্ধমান জেলার বেসরকারি বাস মালিকরা। তাঁরা বলছেন, লকডাউনের পর জেলা জুড়ে বাস চলাচল স্বাভাবিক হয়েছে ঠিকই, কিন্তু পথে যাত্রীর দেখা মিলছে না। ফাঁকা বাস নিয়ে যাতায়াত করতে গিয়ে লোকসানের বহর দিন দিন বাড়ছে। এই অবস্থায় অনেক বাস মালিক বাস চালানোর উৎসাহ হারাচ্ছেন। তাঁরা বলছেন, লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে জ্বালানি তেলের দাম। যাত্রীর দেখা নেই। অথচ পুরনো ভাড়াতেই বাস চালাতে হচ্ছে। এ ভাবে কতদিন বাস চালানো সম্ভব হবে, তা বুঝে উঠতে  পারছেন না বাস মালিকরা।

আনলক ওয়ানের হাত ধরে রাজ্য জুড়ে বেসরকারি বাস চলাচল শুরু হলেও পূর্ব বর্ধমান জেলায় বেসরকারি বাস পথে নেমেছে অনেক দেরিতে। মূলত যাত্রী না হওয়ার আশঙ্কাতেই রাস্তায় বাস নামাতে চাইছিলেন না অধিকাংশ বেসরকারি বাস মালিক। তাঁরা বলছিলেন, জ্বালানি তেল-সহ আনুষঙ্গিক খরচ মিটিয়ে চালক কর্মীদের বেতন দিয়ে দিনের শেষে যা রোজগার হবে তাতে লাভ হওয়া তো দূরের কথা লোকসানের বহরই বাড়বে। জেলা প্রশাসন বার বার বাস মালিক ও শ্রমিক সংগঠনগুলোর সঙ্গে বৈঠকে বসেছে বাস চলাচল স্বাভাবিক করার জন্য। প্রশাসনের পক্ষ থেকে তাঁদের কাছে বাস চালানোর আবেদন জানানো হয়। বর্তমানে বেশিরভাগ বাস পথে নামলেও সে ভাবে যাত্রী না হওয়ায় চিন্তিত বাস মালিকরা।

বর্ধমান জেলা বাস মালিক অ্যাসোসিয়েশনের সদস্যরা বলছেন, বর্ধমান আরামবাগ, বর্ধমান কাটোয়া, বর্ধমান কালনা সহ বিভিন্ন রুটে বাস চলাচল অনেকটাই স্বাভাবিক হলেও সে ভাবে যাত্রীদের দেখা মিলছে না। ফলে হাতেগোনা কয়েকজন যাত্রী নিয়ে বেশিরভাগ সময় যাতায়াত করতে হচ্ছে। তাঁরা বলছেন, সরকারি অফিস চালু হলেও এখনও স্কুল কলেজ বিশ্ববিদ্যালয় সহ সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ। তার ওপর করোনা সংক্রমণ বেড়েই চলেছে। প্রতিদিনই নতুন নতুন এলাকায় করোনা আক্রান্তের হদিস মিলছে। সেই সব এলাকাগুলোকে কন্টেইনমেন্ট জোন হিসেবে ঘোষণা করছে জেলা প্রশাসন। তার ফলে উদ্বিগ্ন বাসিন্দারা খুব প্রয়োজন ছাড়া এলাকার বাইরে যাচ্ছেন না।সে কারণেই মূলত যাত্রীদের সে ভাবে দেখা মিলছে না।

তাঁরা বলছেন, লকডাউনের জেরে অনেকের হাতেই সে ভাবে অর্থ নেই। তার ওপর আমফানে বহু কৃষক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। তাই বিশেষ প্রয়োজন ছাড়া অর্থ খরচের বিপক্ষে অনেকেই। সেই কারণেই এলাকার বাইরে যাওয়ার প্রবণতা কম। তাঁরা বলছেন, এখনই এই অবস্থা। ট্রেন চলাচল শুরু না হওয়ায় অনেকে বাধ্য হয়ে বাসে যাতায়াত করছেন। ট্রেন চলাচল শুরু হলে যাত্রী আরও কমে যাবে। তখন ভাড়া না বাড়লে রাস্তায় বাস নামানো কঠিন হয়ে দাঁড়াবে। সব মিলিয়ে লকডাউন পরবর্তী সময়ে ব্যবসার ভবিষ্যৎ নিয়ে চিন্তিত বাস মালিকদের সকলেই।

Published by: Simli Raha
First published: June 22, 2020, 7:56 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर