corona virus btn
corona virus btn
Loading

মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে ভার্চুয়াল বৈঠককে ঘিরে পূর্ব বর্ধমানে প্রশাসনিক প্রস্তুতি তুঙ্গে

মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে ভার্চুয়াল বৈঠককে ঘিরে পূর্ব বর্ধমানে প্রশাসনিক প্রস্তুতি তুঙ্গে

মুখ্যমন্ত্রী কোন কোন বিষয় নিয়ে পর্যালোচনা করবেন, নতুন কি কি নির্দেশ দেবেন তা নিয়ে প্রশাসনিক মহলে জল্পনা তুঙ্গে।

  • Share this:

#বর্ধমান: মঙ্গলবার দক্ষিণবঙ্গের কয়েকটি জেলার সঙ্গে  পূর্ব বর্ধমান জেলার বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে ভার্চুয়াল বৈঠক করবেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেই বৈঠক উপলক্ষে এখন পূর্ব বর্ধমান জেলায় প্রশাসনিক প্রস্তুতি তুঙ্গে। মুখ্যমন্ত্রী কোন কোন বিষয় নিয়ে পর্যালোচনা করবেন, নতুন কি কি নির্দেশ দেবেন তা নিয়ে প্রশাসনিক মহলে জল্পনা তুঙ্গে। জেলায় আমফানের ক্ষতিপূরণের অগ্রগতি থেকে শুরু করে করোনা মোকাবিলায় প্রশাসন কতটা তৎপর তা উঠে আসবে বলে মনে করা হচ্ছে। সেইসঙ্গে বর্ষা মরশুমে রাস্তাঘাটের কি অবস্থা তা মুখ্যমন্ত্রী জানতে চাইতে পারেন বলে মনে করছেন জেলা প্রশাসনের পদস্থ আধিকারিকরা। সেই সব তথ্য হাতের কাছে রাখার জোর প্রস্তুতি চলছে।

জানা গিয়েছে, এদিন বিকেল তিনটে থেকে জেলা পর্যায়ের আধিকারিকদের সঙ্গে ভার্চুয়াল প্রশাসনিক  বৈঠক করবেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেই বৈঠকে জেলাশাসক বিজয় ভারতী অন্যান্য জেলাশাসকদের নিয়ে উপস্থিত থাকবেন। সেখানে জেলার মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিককে রাখা হতে পারে। এছাড়া পূর্ব বর্ধমান জেলা পরিষদের সভাধিপতি শম্পা ধারা ওই বৈঠকে উপস্থিত থাকবেন। বৈঠক সন্ধ্যা পর্যন্ত গড়াতে পারে বলে মনে করছেন জেলা প্রশাসনের আধিকারিকরা।

পূর্ব বর্ধমান জেলায় বেশ কয়েকটি রাস্তা তৈরির কাজ  চলছে।এস টি কে কে রোড সহ চারটি গুরুত্বপূর্ণ রাস্তা তৈরির কাজ অনেকদিন আগে শুরু হলেও সে কাজে গতি পায়নি। এছাড়া কালনা থেকে শান্তিপুরের মধ্যে গঙ্গার উপর সেতু তৈরির জমি অধিগ্রহণের কাজ চলছে। এইসব প্রকল্প সহ জেলার উন্নয়ন প্রকল্পগুলির কি অবস্থা, কোন কোন রাস্তাঘাট অবিলম্বে সংস্কার জরুরি সেসব ব্যাপারে মুখ্যমন্ত্রী বিস্তারিত আলোচনা করতে পারেন বলে মনে করছে জেলা প্রশাসনে আধিকারিকরা।

সেই সঙ্গে বন্যা পরিস্থিতি তৈরি হলে প্রশাসন তা মোকাবিলায় কতটা প্রস্তুত জানতে চাইতে পারেন মুখ্যমন্ত্রী। দামোদর ছাড়াও অজয় ভাগীরথী সহ বেশ কয়েকটি ছোট নদী জেলার ওপর দিয়ে বয়ে গিয়েছে। প্রতিবারই বর্ষার শেষের দিকে এই নদীগুলি এলাকার বাসিন্দাদের দুর্দশার কারণ হয়ে দাঁড়ায়। বৃষ্টির কারণে ইতিমধ্যেই জলে পূর্ণ রয়েছে নদীগুলি। বিহার ঝাড়খন্ডে  ভারি বর্ষণ হলে কিংবা জলাধার থেকে জল ছাড়া শুরু হলে বেশ কিছু এলাকা প্লাবিত হবার আশঙ্কা থেকেই যাচ্ছে। তাই বন্যা মোকাবিলায় বাড়তি গুরুত্ব দেবেন মুখ্যমন্ত্রী এমনটাই মনে করছে জেলা প্রশাসন।

Published by: Dolon Chattopadhyay
First published: August 25, 2020, 10:48 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर