Home /News /south-bengal /

বাড়ির সামনে সারি দিয়ে দাঁড়িয়ে হাতি ঘোড়া, করোনার গেরোয় বিপাকে কুমোর পাড়া

বাড়ির সামনে সারি দিয়ে দাঁড়িয়ে হাতি ঘোড়া, করোনার গেরোয় বিপাকে কুমোর পাড়া

Potters are facing huge problem for selling their products again with this Coronavirus wave

Potters are facing huge problem for selling their products again with this Coronavirus wave

পশ্চিম মেদিনীপুর (Paschim Medinipur) জেলার চন্দ্রকোনা ২ নম্বর ব্লকের বাচকা গ্রামের কুমোরপাড়া বাসিন্দাদের।

  • Share this:

    #পশ্চিম মেদিনীপুর: অন্যান্য বছর এই সময় কুমোরপাড়ায় (Potter) বাসিন্দারা নাওয়া-খাওয়া ভুলে মাটির জিনিস বাড়িতে পসরা সাজিয়ে বসে বিক্রি করতে ব্যস্ত থাকত।আর করোনার (Coronavirus) গেরোয় এই বৎসর একেবারেই চিত্রটা অন্য, প্রতিটি কুমোর পাড়ার বাসিন্দাদের বাড়ির সামনে দাঁড়িয়ে রয়েছে হাতি, ঘোড়া থেকে শুরু করে একাধিক মাটির সামগ্রী কিন্তু দেখা নেই ক্রেতাদের। এতে মন ভার পশ্চিম মেদিনীপুর  (Paschim Medinipur) জেলার চন্দ্রকোনা ২ নম্বর ব্লকের বাচকা গ্রামের কুমোরপাড়া বাসিন্দাদের।

    পশ্চিম মেদিনীপুর  (Paschim Medinipur) জেলার চন্দ্রকোনা ২ নম্বর ব্লকের বাচকা গ্রামের প্রায় ২৫ পরিবার চাষবাস এর সাথে মাটির জিনিস (Potter) তৈরি করে জীবিকা নির্বাহ করে। মূলত পৌষ সংক্রান্তির তে যে সমস্ত বন দেবতার পূজো হয়, বা তাকে ঘিরে মেলা বসে সেই মেলাতে এই মাটির (Potter) জিনিস বিক্রি হত, এবং চাহিদা থাকতো তুঙ্গে।

    আরও পড়ুন - IPL 2022: ১০ দলের অধিনায়ক ঠিক! ৪ ভারতীয় ক্রিকেটার মুখোমুখি টক্করে,৩ বিদেশি পাবেন সুযোগ

    কিন্তু এই বৎসর করোনার  (Coronavirus) জেরে ইতিমধ্যে অধিকাংশ বন দেবতার পুজো হবে না বলে জানা গিয়েছে মেলা বসবে না, বাইরে থেকে আসবে না লোকজন। তাই মাটির তৈরি ঘোড়া, হাতি বিক্রি নেই, লক্ষ টাকা সরঞ্জামের পসরা সাজিয়ে বসলেও দেখা নেই পাইকারি ক্রেতার, তাই চরম বিপাকে কুমোর পাড়ার (Potter) বাসিন্দারা।

    আরও পড়ুন - Oracle Speaks: ওরাকল স্পিকস ১১ জানুয়ারি; দেখে নিন ভাগ্যফল, জেনে নিন কোন চিহ্ন বয়ে আনছে সৌভাগ্য!

    তারা যেটা বলছে এই বৎসর এমনিতেই কৃষি কাজের প্রাকৃতিক দুর্যোগের ফলে চরম ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছিলেন, ভেবেছিল হয়তো মাটির জিনিস তৈরি করে কিছুটা হলেও ঘুরে দাঁড়াবে। কিন্তু করোনার গেরোয় মাটির জিনিসপত্র প্রায় এক বছর ধরে তৈরি করে রাখার পরেও বিক্রি না হওয়ায় বিপাকে কুমোর পাড়ার বাসিন্দারা। তাঁদের দাবি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী তাঁদের কথা ভাবুক।

    Sukanta Chakraborty

    Published by:Debalina Datta
    First published:

    Tags: Coronavirus, Paschim medinipur

    পরবর্তী খবর