ভোটের আগে কৃষকদের মন পেতে চেষ্টার ত্রুটি রাখছে না রাজনৈতিক দলগুলি

ভোটের আগে কৃষকদের মন পেতে চেষ্টার ত্রুটি রাখছে না রাজনৈতিক দলগুলি

কৃষকদের মন পেতে চেষ্টার কসুর করছেন না রাজনৈতিক দলের নেতারা। কে কত কৃষক দরদী বা কৃষকদের স্বার্থে কারা কতটা বেশি ভাবছেন তা বোঝাতে আপ্রাণ চেষ্টা চালাচ্ছেন তাঁরা।

কৃষকদের মন পেতে চেষ্টার কসুর করছেন না রাজনৈতিক দলের নেতারা। কে কত কৃষক দরদী বা কৃষকদের স্বার্থে কারা কতটা বেশি ভাবছেন তা বোঝাতে আপ্রাণ চেষ্টা চালাচ্ছেন তাঁরা।

  • Share this:

#পূর্ব বর্ধমান: বিধানসভা নির্বাচন যত এগিয়ে আসছে পূর্ব বর্ধমান জেলায় ততই কৃষকদরদী মনোভাব নিয়ে প্রচারে তৎপরতা বাড়াচ্ছে রাজনৈতিক দলগুলি। কৃষকদের মন পেতে চেষ্টার কসুর করছেন না রাজনৈতিক দলের নেতারা। কে কত কৃষক দরদী বা কৃষকদের স্বার্থে কারা কতটা বেশি ভাবছেন তা বোঝাতে আপ্রাণ চেষ্টা চালাচ্ছেন তাঁরা।

মূলত ভোটের ফসল তুলতেই তারা এই জেলায় প্রচারে কৃষিকে হাতিয়ার করতে চাইছেন বলেই মনে করা হচ্ছে। তাই ভোট যত এগিয়ে আসবে ততই এই জেলায় কৃষকদের মন পেতে মরিয়া হয়ে ঝাঁপাবে সব রাজনৈতিক দল- এমনটাই মনে করছেন বাসিন্দারা।

রাজ্যের শস্য ভান্ডার হিসেবে পরিচিত পূর্ব বর্ধমান জেলা। শুধু এ রাজ্যের নয়, সারা দেশের ধান উৎপাদনে অগ্রগণ্য জেলাগুলির মধ্যে অন্যতম পূর্ব বর্ধমান। বিধানসভা নির্বাচনে ক্ষমতা দখলের লড়াইয়ে এই জেলার ১৬টি আসন ও তার আশপাশ জেলার আসনগুলি নির্ণায়ক ভূমিকা নিতে পারে বলেই মনে করছেন ভোট বিশেষজ্ঞরা। তাই দক্ষিণবঙ্গের কৃষিপ্রধান এই এলাকায় প্রভাব বিস্তার করতে চেষ্টার ত্রুটি রাখতে চাইছে না রাজনৈতিক দলগুলি। তার উপরে এখন দেশজুড়ে কেন্দ্রের নয়া কৃষি আইনের পক্ষে বিপক্ষে নানা মত উঠে আসছে। সেই ইস্যুতে তাই এখন কৃষকদের মন পেতে চাইছে সব পক্ষই।

পূর্ব বর্ধমান জেলা থেকেই 'শোনো চাষী ভাই' কর্মসূচির সূচনা করেছেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডা। এই জেলা থেকেই তিনি কৃষকদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে এক মুঠো করে চাল সংগ্রহ অভিযান শুরু করেছেন। সেই সঙ্গে কৃষকদের নয়া কৃষি আইনের সুফল বোঝাতে কর্মসূচি নিয়েছে বিজেপি।

আবার রাজ্যের শস্য গোলা হিসেবে পরিচিত গলসিতে দুই নম্বর জাতীয় সড়ক অবরোধ করে কেন্দ্রের কৃষি আইন বাতিলের দাবিতে সরব হয়েছে রাজ্যের মন্ত্রী সিদ্দিকুল্লা চৌধুরীর দল জমিয়তে উলামায়ে হিন্দ। কেন্দ্রীয় কৃষি আইন বাতিলের দাবিতে এই জেলার সদর শহর বর্ধমানে ট্রাক্টর মিছিল করেছে কংগ্রেস। কেন্দ্রের কৃষি আইনের কড়া সমালোচনা করে বিভিন্ন জনসভায় বক্তব্য রাখছেন তৃণমূল কংগ্রেসের নেতা মন্ত্রীরা।

নির্বাচন বিশেষজ্ঞরা বলছেন, শুধু পূর্ব বর্ধমান নয়, পাশের জেলা হুগলি, বীরভূম, মুর্শিদাবাদ,নদীয়া, বাঁকুড়ার বিস্তীর্ণ এলাকার বাসিন্দারা কৃষির উপর নির্ভরশীল। এই কৃষি অঞ্চলের বাসিন্দাদের সমর্থন বিধানসভা নির্বাচনে নির্ণায়ক ভূমিকা হিসেবে দেখা দিতে পারে। সেজন্যই কৃষকদের মন পেতে সবরকম চেষ্টা চালাচ্ছে রাজনৈতিক দলগুলি। ভোট যত এগিয়ে আসবে সেই প্রবণতা ততই বাড়বে বলে মনে করছেন তাঁরা।

Published by:Swaralipi Dasgupta
First published:

লেটেস্ট খবর