corona virus btn
corona virus btn
Loading

লক ডাউন ভেঙে রাস্তায়! আইন লঙ্ঘনকারীদের ধরপাকড় শুরু করল পুলিশ 

লক ডাউন ভেঙে রাস্তায়! আইন লঙ্ঘনকারীদের ধরপাকড় শুরু করল পুলিশ 

লক ডাউন অমান্য করে দোকান খোলার অভিযোগেও বেশ কয়েক জনকে আটক করেছে বর্ধমান থানার পুলিশ।

  • Share this:

#বর্ধমানঃ লক ডাউন অমান্যকারীদের ধর পাকড় শুরু করল পুলিশ। বৃহস্পতিবার দুপুরে বর্ধমানের কার্জন গেট এলাকা থেকে পাঁচ যুবককে আটক করা হয়। লক ডাউন অমান্য করে সাইকেল নিয়ে শহরে ঘুরে বেড়াচ্ছিল তাঁরা। পুলিশ তাঁদের আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করে। পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে বাইরে বেরনোর যথাযথ কারণ দেখাতে পারেনি তাঁরা। এরপরই তাঁদের ধরে পুলিশের গাড়িতে তুলে থানায় নিয়ে যাওয়া হয়।

লক ডাউন অমান্য করে দোকান খোলার অভিযোগেও বেশ কয়েকজনকে আটক করেছে বর্ধমান থানার পুলিশ। বেশি দামে খাদ্য সামগ্রী বিক্রির অভিযোগে থানায় তুলে নিয়ে যাওয়া হয়েছে কয়েক জনকে। লক ডাউন উপেক্ষা করে বাইরে আসা রুখতেই ধর পাকড় করতে বাধ্য হচ্ছে পুলিশ।

লক ডাউন যত এগোচ্ছে ততই যেন ধৈর্যের বাঁধ ভাঙছে বর্ধমান শহরের এক শ্রেণীর মানুষের। সুযোগ পেলেই ঘরের বাইরে বেরিয়ে পড়ছেন তাঁরা। এলাকায় ঘুরে বেড়াচ্ছেন। পাড়ার রকে বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডা জমাচ্ছেন। আবার অন্য সময় সপ্তাহে এক দিন বাজার করেন এমন কিছু ব্যক্তি মুখে মাস্ক বেঁধে নিয়মিত বাজারের থলি হাতে বেরিয়ে পড়ছেন। সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার সতর্কতা ভুলে বাজারে মানুষের ভিড়ে মিশে যাচ্ছেন। আবার সকাল বিকেল অনেকেই বের হচ্ছেন মোটর সাইকেলে।বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এই সময় বাড়ির বাইরে পা দেওয়া একদমই উচিত নয়। যে কেউ যে কোনও সময় করোনা ভাইরাসের সংক্রামিত হতে পারেন। তাতে তাঁর অজান্তেই তিনি পরিবারের অন্যান্যদের মধ্যে, পাড়া প্রতিবেশী-সহ যাদের সঙ্গে মেলামেশা করবেন তাদের শরীরেই এই ভাইরাস দ্রুত ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা রয়েছে। এই সতর্ক বার্তা অসংখ্য বার শোনার পরও অবিবেচকের মতো বাড়ির বাইরে পা রাখছে অনেকেই।

বেলা দশটায় বর্ধমান শহরের প্রাণ কেন্দ্র কার্জনগেটে গিয়ে দেখা গেল লোকে লোকারণ্য। যেন কিছুক্ষণ হল লক ডাউন তুলে নেওয়া হয়েছে। দলে দলে পুরুষ মহিলা মোটর সাইকেল নিয়ে বেরিয়ে পড়েছেন। অনেকে আবার শহরের বাইরে জাতীয় সড়কের ধারে ধাবায় যাচ্ছেন মুখের স্বাদ পাল্টাতে। পুলিশের রাশ আলগা দেখে পাড়ার মোড়ে মোড়ে গুমটি চায়ের দোকান খুলে ফেলেছিলেন কেউ কেউ। পুলিশ অভিযান চালিয়ে সেই সব দোকান বন্ধ করার পাশাপাশি দোকানের মালিকদের ধরে থানায় নিয়ে যায়।

Saradindu Ghosh 

Published by: Shubhagata Dey
First published: April 2, 2020, 7:07 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर