বাজছিল সানাই, চলছিল ভুরিভোজের আয়োজন, পুলিশ এসে রুখল নাবালিকার বিয়ে

প্রতীকী ছবি

চারিদিকে আত্মীয়-পরিজনের আনাগোনা। ভুরিভোজের আয়োজনে সবেমাত্র জমে উঠেছিল বিয়ের আসরে।

  • Share this:

#বেলডাঙা: চারিদিকে আত্মীয়-পরিজনের আনাগোনা। ভুরিভোজের আয়োজনে সবেমাত্র জমে উঠেছিল বিয়ের আসরে। তবে এতকিছুর পরেও রবিবার শেষ রক্ষা হলো না হরিহরপাড়া থানার তরতিপুর এলাকায় নবম শ্রেণীর পড়ুয়া নাবালিকার বিয়ে। গোপন সূত্রে খবর পেয়ে  পুলিশ সটান  বিয়ের আসরে হানা দেয়। ঘটনাস্থলে হাজির হন হরিহরপাড়া থানার ওসি রবীন্দ্রনাথ বিশ্বাস-সহ অন্যান্য পুলিশ আধিকারিকরা। আর তাতেই মাঝপথে বন্ধ হয়ে যায় নাবালিকার বেআইনি বিয়ে।

গ্রামের বাসিন্দা মোস্তাফা মণ্ডলের মেয়ে তরতিপুর হাই স্কুলের নবম শ্রেণির পড়ুয়া। তার সঙ্গে বিয়ে ঠিক হয় পেশায় দিনমজুর পার্শ্ববর্তী বহড়ান দক্ষিণপাড়া গ্রামের রুহুল মণ্ডলের। পরিবারের ইচ্ছে মোতাবেক বিয়ের আসর সাজিয়ে ধুমধাম করে পাড়া-প্রতিবেশী থেকে শুরু করে আত্মীয়-পরিজনদের নিয়ে চলছিল বিয়ের প্রস্তুতি।

হঠাৎ সেখানে এসে হাজির হন খাকি উর্দিধারীর দল। প্রথমে পুলিশ  প্রশাসনের কর্তাদের দেখে খানিকটা হতভম্ব হয়ে যায় কনের বাবা। এরপর তাদের এই বেআইনি কাজের ব্যাপারে পুলিশের তরফে জবাবদিহি চাওয়া হলে রীতিমত নিজেদের দোষ স্বীকার করতে বাধ্য হয় নাবালিকার পরিবার।

এখানেই শেষ নয় মুচলেকা দিয়ে ১৮ বছরের আগে কখনওই মেয়ের বিয়ে দেবেন না এমন প্রতিশ্রুতি প্রশাসনকে দেন ওই পড়ুয়ার অভিভাবক। তারপরেই করোনা আবহের মধ্যে বন্ধ হয়ে যায় নাবালিকার বিয়ে।

Pranab Kumar Banerjee

Published by:Shubhagata Dey
First published: