গোপন সূত্রে খবর, ডাকাতির আগেই ডাকাতদের হাতেনাতে ধরল পুলিশ !

গোপন সূত্রে খবর পেয়ে ৪ ডাকাতকে আগ্নেয়াস্ত্র সহ আটক করল পুলিশ

গোপন সূত্রে খবর পেয়ে ৪ ডাকাতকে আগ্নেয়াস্ত্র সহ আটক করল পুলিশ

  • Share this:

SANKU SANTRA

#সুন্দরবন: গোপন সূত্রে খবর পেয়ে সোমবার রাতে স্থানীয় কাশীনগরের চক্রতীর্থ এলাকা থেকে তাদের আগ্নেয়াস্ত্র সমেত আটক করে পুলিশ। এক জায়গায় সন্দেহজনক কয়েক জনের জড়ো হওয়ার খবর গোপন সূত্রে পেয়েছিল পুলিশ। এরপর, ওসি দেবাশীষ রায়ের নেতৃত্বে বিশাল পুলিশ বাহিনী পুরো এলাকা ঘিরে ফেলে। দুষ্কৃতীরা পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলেও, শেষমেশ পুলিশের হাতে ধরা পড়ে।

ধৃতদের কাছ থেকে উদ্ধার হয়েছে একটি দেশি বন্দুক, ৪টি কার্তুজ, বোমা, দুটি ভোজালি, দুটি ছুরি, একটি লোহার রড ও এক গোছা চাবি। পুলিশ সূত্রে জানা যায়, ধৃতদের নাম নুরউদ্দিন মোল্লা ওরফে লাল্টু , মজিত পুরকায়েত, আতিবুর মোল্লা ওরফে কানে, সাদ্দাম সেখ ও সুরজিৎ কয়াল। ধৃতরা রায়দিঘির বিভিন্ন এলাকার বাসিন্দা ।

ধৃতদের বিরুদ্ধে একাধিক অসামাজিক কাজের অভিযোগ ছিল আগে থেকেই। বেশ কিছু দিন ধরেই সুন্দরবন পুলিশ, জেলার এস ও জি টিম ও রায়দিঘী থানার পুলিশ তাদের খোঁজে তল্লাশি চালাচ্ছিল। পুলিশ সুত্রে খবর, এলাকায় বড়সড় ডাকাতির ছক কষছিল ধৃতরা। ডাকাতি করার আগে পুলিশ তাদের হাতে নাতে ধরে ফেলে। ধৃতদের মঙ্গলবার ডায়মন্ডহারবার মহকুমা আদালতে তোলা হলে পুলিশি হেফাজতের নির্দেশ দেন বিচারক। নূর উদ্দিন মোল্লার পেশা চাবি তৈরি করা। শহর ও শহর তলির বিভিন্ন এাকায় ঘুরে ,বাড়িতে বাড়িতে গিয়ে তালার চাবি তৈরির কাজ করে। সেই ফাঁকে ওই বাড়ির তথ্যও জোগাড় করে আর সেই তথ্য নিয়ে দল বানিয়ে রাতের অন্ধকারে ডাকাতি করতে যায়। নূর উদ্দিন অতি সহজে যেকোনও তালা খুলতে কিংবা ভেঙে দিতে পারে। তার বিরুদ্ধে এর আগেও প্রচুর অভিযোগ রয়েছে।

মজিত পুরকায়েত, পেশায় কলের মিস্ত্রি। সারাদিন মানুষের বাড়িতে প্লাম্বিংয়ের কাজ করে। ফলে, যেকোনও বাড়ির ঢোকা ও বেরনোর নকশা তার কাছে থাকে। অনায়াসেই যে কোনও বাড়ির ছাদে কোনও সিড়ি ছাড়াই উঠে যেতে পারে। সুন্দর বন জেলা পুলিশের দাবি,এটা তাদের আর একটা বড় সাফল্য।

Published by:Rukmini Mazumder
First published: