• Home
  • »
  • News
  • »
  • south-bengal
  • »
  • Subrata Mukherjee: সময় পেলেই ছুটে চলে যেতেন, সুব্রত মুখোপাধ্যায়কে হারিয়ে কাঁদছে নওপাড়া

Subrata Mukherjee: সময় পেলেই ছুটে চলে যেতেন, সুব্রত মুখোপাধ্যায়কে হারিয়ে কাঁদছে নওপাড়া

সুব্রত মুখোপাধ্যায় প্রয়াণে শোকাতুর নওপাড়া

সুব্রত মুখোপাধ্যায় প্রয়াণে শোকাতুর নওপাড়া

Subrata Mukherjee: পূর্ব বর্ধমানের নাদনঘাট থানার নওপাড়া গ্রামে পৈতৃক ভিটে সুব্রত মুখোপাধ্যায়ের।

  • Share this:

#বর্ধমান: তাঁর গ্রামের বাড়ি এবং মামার বাড়ি পূর্ব বর্ধমানে। সময়  পেলেই এই দুই গ্রামে এসে ছোটবেলার স্মৃতিচারণার পাশাপাশি আবেগে ভাসতেন তিনি। বলতেন ঘন্টার পর ঘন্টা পুকুরে সাঁতার কাটা, এর বাগানে তার বাগানে ফলচুরি, দস্যিপনার গল্প। তিনি সদ্যপ্রয়াত মন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায় (Subrata Mukheree)।

রাজ্যের পঞ্চায়েত ও গ্রামোন্নয়ন মন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায়ের প্রয়াণে (Subrata Mukheree Passed Away) শোকাহত বর্ধমান। পূর্ব বর্ধমানের নাদনঘাট থানার নওপাড়া গ্রামে পৈতৃক ভিটে তাঁর। আর মেমারি-২ ব্লকের মণ্ডলগ্রামে মামারবাড়ি। এই দুই গ্রামের সঙ্গে নাড়ির যোগ রয়েছে তাঁর। সময় পেলেই কলকাতা থেকে বারে বারে ছুটে আসতেন এই দুই গ্রামে। এলেই আবেগতাড়িত হয়ে পড়তেন। ছোটবেলার স্মৃতি রোমন্থন করতেন।

আরও পড়ুন: প্রশংসা করেছিলেন বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যও, মেয়র হিসেবে মাত্র পাঁচ বছরেই নিজেকে প্রমাণ করেন সুব্রত

কংগ্রেস আমলে রাজ্যের মন্ত্রী। বাম আমলে কলকাতার মহানাগরিক। তৃণমূল জমানায় রাজ্যের পঞ্চায়েত ও গ্রামোন্নয়ন মন্ত্রী। তা সত্ত্বেও নিজের গ্রাম, মামার বাড়ির বাড়ির গ্রাম নিয়ে বরাবরই চিন্তা করেছেন। শত ব্যস্ততার মধ্যেও বছরে দুই-একবার করে ছুটে আসতেন এই দুই গ্রামে। সেখানকার উন্নয়ন নিয়ে ব্যতিব্যস্ত হয়ে উঠতেন। দুই গ্রামে পাকা রাস্তা তৈরি, পাইপলাইনের মাধ্যমে পানীয় জল সরবরাহে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা নেন তিনি। পাশাপাশি যখনই এই দূই গ্রামে এসেছেন, নস্টালজিক হয়ে পড়তেন সুব্রতবাবু। ছোটবেলায় কোন পুকুরে ঘণ্টার পর ঘণ্টা স্নাধ করতেন। কালীপুজো বা অন্যান্য পুজোর সময় কার বাগানের ফল 'চুরি' করতেন বন্ধুদের সঙ্গে, এই নিয়ে স্মৃতি রোমন্থন করতেন তিনি।

আরও পড়ুন: আর অপেক্ষা নয়, বৃত্ত সম্পূর্ণ করতে কালীপুজোর রাতেই প্রিয়-সোমেনের কাছে চলে গেলেন সুব্রত...

এই দুই গ্রামের উন্নয়ন নিয়ে জেলা পরিষদ, গ্রাম পঞ্চায়েতকে বারে বারে নির্দেশ দিতেন। প্রকল্পের কাজ হলে ছুটে এসেছেন মণ্ডল গ্রামে বা নওপাড়া গ্রামে। কলকাতায় বড় হলেও কোনও দিন ভুলে জাননি নিজের শিকড়কে। সেই শিকড়ের টানে ছুটে আসতেন গ্রামে। গ্রামবাসীরা জানতেন যে কোনও প্রয়োজনে পাশে পাবেন সুব্রতবাবুকে। তাই নির্দ্বিধায় আবদার করতেন তাঁকে। আর কোনও দিন নওপাড়া বা মণ্ডলগ্রামের কোনও আবদার ফেলে দেননি সুব্রতবাবু। তাঁর মৃত্যুতে শোকস্তব্ধ দুই গ্রাম। দিপাবলির রাতে আঁধার নেমেছে সেখানে। কান্নায় ভেঙে পড়েছেন গ্রামবাসীদের অনেকেই। এইভাবে অকালে দীপ নিভে যাবে কল্পনা করতে পারেননি গ্রামবাসীরা।

আরও পড়ুন: 'সুব্রত দা'র দেহ দেখতে পারব না', পুজো ফেলে হাসপাতালে ছুটে এলেন মমতা

পূর্বস্থলীর বকপুর পঞ্চায়েতের অন্তর্গত নওয়াপাড়া গ্রামে রাজ্যের পঞ্চায়েত মন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায়ের পৈত্রিক ভিটেয় শোক জ্ঞাপন অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হলো। উপস্থিত ছিলেন মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ, পঞ্চায়েত প্রধান শহিদুল শেখ, বাল্যকালের বন্ধু তিন করি বৈরাগ্য সহ আরও অনেকে।

Published by:Suman Biswas
First published: