শপিং মলের যুগেও, শুক্রবারের হাটই ভরসা নওয়াডিহী গ্রামের বাসিন্দাদের

শপিং মলের যুগেও, শুক্রবারের হাটই ভরসা নওয়াডিহী গ্রামের বাসিন্দাদের

নওয়াডিহী-সহ প্রায় ১৪ টি গ্রামের মানুষের এর জেরে অনেকটা সুবিধা হল।

  • Share this:

#বীরভূম: বীরভূমের সিউড়ি থেকে কিছুটা দূড়ের নওয়াডিহী গ্রাম। এই গ্রামে এতদিন কোন হাট বা বাজার না থাকায় গ্রামবাসীদের নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিস বা শাক সবজি কিনতে যেতে হত গ্রাম থেকে প্রায় ৬ কিলোমিটার দূরের ঝাড়খন্ডের রানীশ্বরের হাটে। সেই সব ক্ষেত্রে সবজীর দামও দিতে হত বেশি।

এবার সেই ৬ কিলোমিটার পাড়ি দিয়ে সবজি আনার খাটনি সঙ্গে অত্যাধিক অর্থব্যয় দুটোই কমল গ্রামবাসিদের। উপরি পাওনা হিসেবে টাটকা সবজিও পাচ্ছেন তারা ৷ কারণ এই নওয়াডিহী গ্রামের গ্রামবাদিরা নিজেরাই নিজেদের উদ্যোগে স্থানীয় নগরী গ্রাম পঞ্চায়েতের সহায়তায় গ্রামে বসল হাট।

নওয়াডিহী-সহ প্রায় ১৪ টি গ্রামের মানুষের এর জেরে অনেকটা সুবিধা হল। গ্রামবাসীরাই নিজেদের চাষ করা টাটকা সবজি বিক্রি করছে নিজেদের গ্রামের হাটেই ৷ প্রতি শুক্রবারই বসবে এই হাট নওয়াডিহী গ্রামের স্কুলের মাঠে। খুশি গ্রামবাসিরা।

তবে ওই হাটে বর্তমানে হাতেগোনা কয়েকটি দোকান থাকলেও আগামী দিনে এই হাটে যে বড় আকার নিতে চলেছে তা নিয়ে কোন সন্দেহ নেই ৷ কারণ ওই গ্রামের যে সমস্ত কৃষকরা বাইরে যেতেন সবজি বিক্রি করতে তারাও ওই হাটে এবার থেকে তাদের উৎপাদন হওয়ার সবজি বিক্রি করবে।

Supratim Das

First published: March 10, 2020, 11:42 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर