'হাতির হাত থেকে বাঁচান'... একটাই আর্তি ঝাড়গ্রামের বাসিন্দাদের

'হাতির হাত থেকে বাঁচান'... একটাই আর্তি ঝাড়গ্রামের বাসিন্দাদের
representative image
  • Share this:

#ঝাড়গ্রাম: মূল শহর ঢোকার ৫ কিলোমিটার আগেই গড়শালবনী গ্রাম। পাঁচ নম্বর রাজ্য সড়কের পাশে অবস্থিত জঙ্গলে ঘেরা গড় শালবনী। বর্তমানে আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছে এই অঞ্চলের ধিতখাম,কৌইমা,জিতুশোল গ্রামের মানুষজন! কারন একটাই! হাতির তান্ডব। দীর্ঘ দিন ধরেই এই এলাকায় ছড়িয়ে ছিটিয়ে অবস্থান করছে প্রায় তিরিশটি হাতি। সন্ধে নামার আগেই ঘরবন্দী হয়ে পড়ছেন গ্রামবাসী। এমনকী অনেক সময়েই রাজ্য সড়কের ওপর হাতি চলে আসায় ঘণ্টার পর ঘণ্টা দাঁড়িয়ে থাকতে বাধ্য হন নিত্য যাত্রী থেকে পণ্যবাহী যানবাহন। রীতিমতো অসুবিধার সম্মুখীন হতে হয় কচিকাঁচাদের...স্কুল থেকে শুরু করে টিউশন সবিই শিকেয় উঠেছে হাতির উপদ্রবের জেরে। গতকাল, বুধবার হাতির আক্রমণে মৃত্য হয় এক বৃদ্ধের।

এমনিতেই গরমকাল, গ্রামে আম, কাঁঠাল থেকে শুরু করে ভরপুর খাবারের জোগানে হাতির সংখ্যা ক্রমশ বেড়েই চলেছে। গ্রামবাসীদের অভিযোগ, বনদফতরের কর্মীরা এই হাতির পালকে সরাতে অক্ষম। বনদফতরের তরফে জানানো হয়েছে, প্রত্যেক বছরই খাবারের সন্ধানে হাতিরা গ্রামে চলে আসে। মনিটরিং চলছে। হুলা পার্টিকেও এলার্ট রাখা রয়েছে। সাহায্য করছেন স্থানীয় মানুষজনও।

দিন তিনেক আগেই হাতির আক্রমণে মৃত্য হয় ১ যুবকের। যুবকের মৃত্যুকে কেন্দ্র করে ঝাড়গ্রামের লেদাবহড়া এলাকায় উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। মৃতদেহ নিয়ে বিক্ষোভ নিহতের পরিবারের। ‘৪ লক্ষ ক্ষতিপূরণ চাই না, চাই স্থায়ী চাকরি’--প্রশাসনের কাছে দাবি নিহতের পরিবারের।

মাস দুয়েক আগেই, ঝাড়গ্রামের ৫ নম্বর রাজ্য সড়কে প্রায় ১ ঘণ্টা ধরে চলতে থাকে হাতির তাণ্ডবলীলা।রাস্তার আশপাশের বাড়ির পাঁচিল-জানলা ভেঙে ফেলে হাতিটি। রাস্তায় আটকে পড়ে একাধিক গাড়ি! ঘটনাস্থলে পৌঁছায় বনদফতরের কর্মীরা। শেষমেশ, অনেক প্রচেষ্টার পর দামাল হাতিটিকে কলামণি জঙ্গলে ফেরায় বনদফতরের কর্মীরা।

গত বছরের হাতির তাণ্ডবলীলা এখনও ভোলেনি ঝাড়গ্রামের মানুষজন। ৩০টি হাতির একটি দল লালগড় লাগোয়া চাঁদড়ায় লাগাতার বেশ কয়েকদিন ধরে উপদ্রব চালায়। এরপর, লালগড়ে হানা দেয় দলমার দাঁতালদের অন্য আরেকটি দল। দলে বড়–ছোট মিলিয়ে ছিল ২২টি হাতি। কাঁসাই নদী পেরিয়ে রামগড় ও বিনপুরের মালাবতি হয়ে তারা ঢুকে পড়ে লালগড়ের জঙ্গলে। দলে দুটি বাচ্চা হাতিও ছিল। আগেই ৩০টি হাতির তাণ্ডবলীলায় অতিষ্ট হয়ে পড়েছিল ঝাড়গ্রামবাসী! ফের যোগ হয় আরও ২২টি হাতি! সবমিলিয়ে ঝাড়গ্রামে রাজ চালায় মোট ৫০টি দামাল হাতি! অবাধে চলে লুঠপাট। লক্ষণপুর, হাতিলোট এলাকায় শসাখেত, রোয়া ধান নষ্ট করে, সিজুয়ায় ওষধি বাগানেরও দফারফা !

First published: 08:02:35 PM Jun 20, 2019
পুরো খবর পড়ুন
Loading...
अगली ख़बर