নামেই "কন্টেনমেন্ট জোন", লকডাউনের দিনেও জনজীবন স্বাভাবিক মেদিনীপুর শহরের ভোলাময়রার চক এলাকায়

  • Share this:

    #মেদিনীপুর- নিত্যদিনই মেদিনীপুর শহরে হুহু করে বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। করোনা থাবার কারণেই কন্টেনমেন্ট জোন ঘোষণা করা হয়েছে পশ্চিম মেদিনীপুরের জেলা সদর শহর ভোলাময়রারচক এলাকাকে। এই এলাকায় ঢোকা বা বেরোনোর তিন দিকের রাস্তা রীতিমতো বাঁশ দিয়ে ঘিরে ব্যারিকেড করে সিল করা হয়েছে পুলিশের তরফে। তবে আজ লকডাউনের দিনে সেই কন্টেনমেন্ট জোনেই যেমন খুশি ভাবে ঘুরে বেরাচ্ছেন মানুষ।

    আধ ভেজানো দরজায় খোলা ভুষিমালের দোকানও। কন্টেনমেন্ট জোনের আওতার বাইরের থাকা ব্যক্তিরাও আজ কন্টেনমেন্ট ব্যারিকেড টপকে সেই দোকান থেকে ভুষিমাল কিনতে ব্যস্ত। তবে ক্যামেরা দেখেই তড়িঘড়ি দোকান বন্ধ করতে ব্যস্ততা দেখা গেলো দোকান মালিককে। প্রসঙ্গত, ভোলাময়রাচক এলাকাতেই এই কদিনেই করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ১৪ জন। কন্টেনমেন্ট জোনের আওতায় পড়েছে এলাকার বিদায়ী কাউন্সিলার বিশ্বেশ্বর নায়েকের বাড়িও। সেই বাড়ির ঢিল ছোঁড়া দূরত্বেই কন্টেনমেন্ট জোনের বিধি ভঙ্গের ঘটনা ঘটছে প্রতিনিয়ত। বিদায়ী কাউন্সিলরের সাফাই, মানুষ সচেতন নয়। একই সাথে গোটা ঘটনার পিছনে পুলিশকেও দায়ী করেছেন তিনি। পরে এলাকার দুই যুবককে দিয়ে কন্টেনমেন্ট জোনের বাঁশ ভালো করে বেঁধে আটকে দেন এলাকার বিদায়ী কাউন্সিলর। গোটা ঘটনায় প্রশ্নের মুখে পুলিশের ভূমিকা। করোনার হটস্পটেও কেন লকডাউন কড়াভাবে কার্যকর করা গেলো না সেই প্রশ্নও ঘুরপাক খাচ্ছে বিভিন্ন মহলে।

    SUJIT BHOWMIK

    Published by:Elina Datta
    First published: