corona virus btn
corona virus btn
Loading

এবার চোখ রাঙাচ্ছে ভরা কোটাল! আমফান মোকাবিলায় নেমে ত্রস্ত প্রশাসন

এবার চোখ রাঙাচ্ছে ভরা কোটাল! আমফান মোকাবিলায় নেমে ত্রস্ত প্রশাসন
এখনও বাড়ি ফিরতে পারেননি অনেকেই। তার মধ্যেই ভরা কোটালের ভ্‌রুকুটি

আপাতত আমফন ঝরে ক্ষতিগ্রস্থ এলাকার পুনর্নির্মাণের কাজে কোটাল যে একটা বড় বাঁধা হয়ে দাঁড়াল, তা এক কথায় স্বীকার করেছে প্রশাসনের শীর্ষ কর্তারা।

  • Share this:

#কলকাতা: আমফন তাণ্ডবে ভেঙেছে নদী বাঁধ। জলের তলায় চলে গিয়েছে গ্রাম। ভেসে গিয়েছে পুকুর, চাষের জমি।এরই মধ্যে, আমফনের রেশ কাটতে না কাটতেই চোখ রাঙাচ্ছে ভরা কোটাল ।

আমফন তান্ডব সামলে ত্রান শিবির থেকে ঘরমুখী হচ্ছিলের মানুষ ।কিন্তু আগামী ৫ জুনের ভরা কোটালের জেরে পরের দু'দিন ফের ট্রানশিবিরে আশ্রয় নিতে হবে তাঁদের। আমফান ও করোনা জোড়া ফলায় বিদ্ধ রাজ্য প্রশাসনের অন্যতম মাথা ব্যাথার কারণ এখন ভরা কোটাল ।

আমফানে শুধুমাত্র দক্ষিণ চব্বিশ পরগনা জেলাতেই ভেঙেছে ৬৬.৫ কিলোমিটার নদী বাঁধ। ১৪৪ টি ছোট বাঁধ ক্ষতিগ্রস্থ । উত্তর চব্বিশ পরগনা জেলার চিত্রও তথৈবচ । ফলে এই দুই জেলায় কোটালের জল গ্রামে ঢুকে আবারও অরাজক পরিস্থিতি তৈরি করতে পারে, সেই আশঙ্কায় এখন কপালে চিন্তার ভাঁজ প্রশাসনের। জেলা প্রশাসনের সঙ্গে হাত মিলিয়ে ক্ষতিগ্রস্থ নদী বাঁধ অঞ্চল ঘুরে দেখছেন সেচ দপ্তরের কর্তারা। দীর্ঘসূত্রিতা এড়াতে 'অন স্পট মানি স্যাংশন' এর পথেও হাটছে সেচ দপ্তর।

উত্তর ও দক্ষিণ মিলিয়ে আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায় ও নবীন প্রকাশকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে আমফনে ক্ষতিগ্রস্থ জেলা পুনর্গঠন পর্যালোচনা করতে ।শুরু হয়েছে প্রাথমিক পর্বের কাজও ।এরই মধ্যে কোটালের জল আবার গ্রামে ঢুকলে জটিলতা যে বাড়বে , আপাতত তা নিয়েই চিন্তিত প্রশাসন।

কোটালের জল ঢোকা রুখতে আপাতত‌ বহুমুখী উদ্যোগ নিয়েছে প্রশাসন। চোখ বোলানো যাক সেই কর্মসূচিতে-

ক .দ্রুত পরিস্থিতি সামাল দিতে বাঁধ মেরামতির কাজে লাগানো হয়েছে একশো দিনের কাজের কর্মীদের ।শুধুমাত্র দক্ষিণ চব্বিশ পরগনায় এই সংখ্যাটা এক লক্ষ্যের বেশি । খ.বাঁধের ক্ষতিগ্রস্থ জায়গা ভরাতে আপাতত বালির ব্যাগ ব্যবহার করা হচ্ছে। গ.অতি ক্ষতিগ্রস্থ বাঁধ মেরামতির অযোগ্য হলে তার দুশো কিলোমিটারের মধ্যে সমান্তরাল বাঁধ নির্মাণ। ঘ.ত্রান শিবির গুলোতে জল ঢোকার আগেই লোকজনকে নিয়ে যাওয়া র পরিকল্পনা করেছে প্রশাসন ।

আপাতত আমফন ঝরে ক্ষতিগ্রস্থ এলাকার পুনর্নির্মাণের কাজে কোটাল যে একটা বড় বাঁধা হয়ে দাঁড়াল, তা এক কথায় স্বীকার করেছে প্রশাসনের শীর্ষ কর্তারা। কোটাল সামলানোই এখন বড় দায় প্রশাসনের।

Published by: Arka Deb
First published: May 31, 2020, 4:18 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर