• Home
  • »
  • News
  • »
  • south-bengal
  • »
  • অসহায় বৃদ্ধা মাকে ১২ দিনের জন্য তালা বন্ধ করে ঘুরতে গেলেন মেয়ে-জামাই

অসহায় বৃদ্ধা মাকে ১২ দিনের জন্য তালা বন্ধ করে ঘুরতে গেলেন মেয়ে-জামাই

নিজস্ব চিত্র

নিজস্ব চিত্র

  • Share this:

    #দুর্গাপুর: বন্ধ ঘরে অসহায় বার্ধক্য। প্রতিবেশীদের কাছে উদ্ধারের জন্য কাতর আর্তনাদ বৃদ্ধার। অভিযোগ, বারোদিন ধরে দুর্গাপুরের বিদ্যাপতি রোডের বাড়িতে বৃদ্ধা মা-কে ঘরে আটকে আত্মীয়ের বাড়িতে চলে যান মেয়ে ও জামাই। প্রতিবেশীরা দেখতে পেয়ে পুলিশের সাহায্যে তাদের ডেকে পাঠান। ক্ষুব্ধ প্রতিবেশীরা জড়ো হয়ে মারধর করেন মেয়ে-জামাইকে। দু'জনকেই আটক করেছে পুলিশ।

    ১২/৯ বিদ্যাপতি রোড। দুর্গাপুরের এই বাড়িতেই মেয়ে ও জামাইয়ের সঙ্গে থাকেন বৃদ্ধা দেবযানী কুমার। মঙ্গলবার সকালে এই বাড়ি থেকেই ভেসে আসে দেবযানী দেবীর সাহায্যের আর্তনাদ। কিন্তু কেন সাহায্য চাইছিলেন তিনি? অভিযোগ, বারোদিন ধরে তাঁকে ঘরে আটকে চলে গিয়েছেন মেয়ে ও জামাই। খাবার বলতে নামমাত্র কিছুই।

    প্রতিবেশীরা দেখতে পেয়ে খবর দেন পুলিশে। পুলিশ অভিযুক্ত মেয়ে প্রিয়াঙ্কা কুমার ও জামাই বিজয় বনোয়ালকে ডেকে পাঠায়। তাঁরা ঘটনাস্থলে এলেই আছড়ে পড়ে স্থানীয়দের ক্ষোভ।

    মেয়ে ও জামাইয়ের সাফাই, বৃদ্ধা আত্মীয়ের বাড়িতে যেতে রাজি হননি। মানসিক ভারসাম্যহীন হওয়ায় মাকে ঘরে বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেন দু'জন। বৃদ্ধাকে দুর্গাপুর ইস্পাত হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। প্রিয়াঙ্কা ও তাঁর স্বামীর প্রতি ক্ষোভ উগরে দিয়েছেন প্রতিবেশীরাও।

    ইস্পাত কারখানার কর্মী শিশির কুমারের মৃত্যুর পর সেই চাকরিই পান মেয়ে প্রিয়াঙ্কা। পাঁচবছর আগে তাঁর বিয়ে হয়। মা-স্বামী ও দু'মাসের একটি সন্তান িনয়ে এই বাড়িতে থাকেন প্রিয়াঙ্কা। মেয়ে জামাইয়ের দাবি মতো যদি বৃদ্ধা মা মানসিক ভারসাম্যহীন হনও তাঁকে কীভাবে ঘরে আটকে বেড়াতে চলে গেলেন দু'জনে ? উত্তর চেয়ে হতবাক বিদ্যাপতি রোডের পাড়া।

    First published: