রামপুরহাট মেডিক্যাল কলেজে মরণোত্তর দেহদানের অঙ্গীকার করলেন নার্স

রামপুরহাট মেডিক্যাল কলেজে মরণোত্তর দেহদানের অঙ্গীকার করলেন নার্স

এদিন দেহদানের অঙ্গীকার পত্র সাক্ষর করে জমা দিলেন মেডিক্যাল কলেজ কর্তৃপক্ষের কাছে।

  • Share this:

Supratim Das

# বীরভূম: বীরভূমের রামপুরহাট মেডিক্যাল কলেজে মরণোত্তর দেহদান করলেন ওই হাসপাতালেরই নার্স ঝর্ণা দাস ৷ দেহদানের অঙ্গীকার পত্রে সই করে মেডিক্য়াল কলেজের অ্যানাটমি বিভাগ কর্তৃপক্ষের হাতে জমা দেন  তিনি ৷

রামপুরহাটের চাল ধোয়ানি পাড়ার বাসিন্দা ঝর্ণা ৷ অনেক দিন ধরেই তাঁর ইচ্ছে ছিল মৃত্য়ুর পর দেহ যেন চিকিৎসা বিজ্ঞানের কাজে লাগে ৷ কিন্তু ইচ্ছে থাকলেও উপায় ছিল না ৷ কারণ কলকাতা মেডিক্য়াল কলেজে দেহ দান করলে মৃত্য়ুর পর রামপুরহাট থেকে কলকাতায় দেহ নিয়ে যাওয়ার ঝামেলা পোহাতে হত পরিবারকে৷ তাই এতদিন দেহ দান করেননি ঝর্ণা ৷ কিন্তু রামপুরহাটেই মেডিক্য়াল কলেজ তৈরির পর আর থেমে থাকতে পারেননি তিনি ৷ এদিন দেহদানের অঙ্গীকার পত্র স্বাক্ষর করে জমা দিলেন মেডিক্যাল কলেজ কর্তৃপক্ষের কাছে।

4387_FB_IMG_1579604045544

ঝর্ণা দাস ওই হাসপাতালেরই গাইনি বিভাগের নার্সিং ইনচার্জ। তার এই দেহদানের পদক্ষেপ দেখে সহকর্মীরাও ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন দেহ দানের। ঝর্ণা দাস নিজে একজন নার্স হলেও তিনি কিন্তু একাধারে সমাজসেবী,  তিনি বীরভূম ভলেন্টিয়ারি ব্লাড ডোনার অ্য়াসোসিয়েশনের সদস্য ৷ অনেকক্ষেত্রে তিনি রোগীদের দরকারে রক্তদাতা জোগাড় করা থেকে শুরু করে বিভিন্ন ধরণের সাহায্য় করেন।

এখনও পর্যন্ত রামপুরহাট মেডিক্যাল কলেজের এনাটমি বিভাগে ১৩ জন মরণোত্তর দেহ দান করেছেন নিজেদের এলাকায় থাকা রামপুরহাট মেডিকেল কলেজে ৷ যাতে চিকিৎসা বিজ্ঞানে গবেষণার কাজে এগিয়ে যেতে পারে সেই লক্ষ্যেই এই মরণোত্তর দেহদান।

First published: January 21, 2020, 7:41 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर