একা উৎপল নয়, আরও কেউ জড়িত বলে চাঞ্চল্যকর দাবি বিউটির পরিবারের

একা উৎপল নয়, আরও কেউ জড়িত বলে চাঞ্চল্যকর দাবি বিউটির পরিবারের

বন্ধুপ্রকাশের সঙ্গে সম্পত্তি নিয়ে দুই আত্মীয়ের অশান্তি চলছিল বলে দাবিও করেছে তারা। খুনে তাদের যোগ থাকতে পারে বলে অভিযোগ নিহত বিউটি পালের পরিবারের।

  • Share this:

#জিয়াগঞ্জ: সম্পত্তির জন্যই খুন করা হয় তাঁর মেয়ে-নাতিকে। ধৃত রাজমিস্ত্রি উৎপল একা এই খুনের সঙ্গে জড়িত নয়। খুনের পিছনে পরিবারের একাংশের হাত রয়েছে বলে অভিযোগ নিহত বিউটি পালের মায়ের।

জিয়াগঞ্জে খুনে সিবিআই তদন্তের দাবি নিহত বিউটি পালের পরিবারের। খুনে আরও কেউ জড়িত বলে দাবি তাদের। বন্ধুপ্রকাশের সঙ্গে সম্পত্তি নিয়ে দুই আত্মীয়ের অশান্তি চলছিল বলে দাবিও করেছে তারা। খুনে তাদের যোগ থাকতে পারে বলে অভিযোগ নিহত বিউটি পালের পরিবারের।

সাতদিন পর জিয়াগঞ্জে খুনে ধৃত মূল অভিযুক্ত উৎপল বেহেরা। তিনটি খুন করে পেশায় রাজমিস্ত্রি উৎপল। খুনের পর পোশাক বদল করে চম্পট দেয়। পুলিশের দাবি, টানা জেরায় খুনের কথা কবুল করে উৎপল। খুনের আগে এলাকা রেইকি করে সে। আজিমগঞ্জ থেকে কেনে খুনের অস্ত্র। ঘটনার দিন বন্ধুপ্রকাশকে ফোন করে উৎপল। তাকে বাড়িতে ডাকেন শিক্ষক। দরজা খুলতেই তাঁকে রামদার কোপ মারে উৎপল। তারপর খুন করে স্ত্রী বিউটি ও পাঁচ বছরের ছেলেকে।

পুলিশ সূত্রে খবর, বেআইনি লগ্নি সংস্থার সঙ্গে যুক্ত ছিলেন নিহত বন্ধুপ্রকাশ পাল। শিক্ষকের পরিচিতি কাজে লাগিয়ে বিমা করাতেন। বন্ধুপ্রকাশের কাছে বিমা করান উৎপল। দু'দফায় আটচল্লিশ হাজার টাকা নিলেও , রসিদ দেন চব্বিশ হাজার টাকার। ফোন করলে খারাপ ব্যবহার করতেন বন্ধুপ্রকাশ। প্রতিশোধ নিতেই খুনের ছক কষে উৎপল। দাবি পুলিশ সুপার মুকেশের।

First published: 05:23:51 PM Oct 15, 2019
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर