corona virus btn
corona virus btn
Loading

শনিবার থেকে লকডাউন, যাত্রী নেই, কালনায় বন্ধ হয়ে গেল বেসরকারি বাস চলাচল

শনিবার থেকে লকডাউন, যাত্রী নেই, কালনায় বন্ধ হয়ে গেল বেসরকারি বাস চলাচল

সংক্রমণ ব্যাপকভাবে বেড়ে যাওয়ায় বাসিন্দাদের বেশিরভাগই খুব একটা বাইরে বের হচ্ছেন না।

  • Share this:

# কালনা : করোনার সংক্রমণের কারণে যাত্রী না মেলায় বুধবার পর্যন্ত সব রুটে বাস চলাচল বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিলেন কালনার বেসরকারি বাস মালিকরা। হঠাৎ করে বাস চলাচল বন্ধ হয়ে যাওয়ায় দুর্ভোগে পড়েছেন মহাকুমার বাসিন্দারা। তাঁরা বলছেন,এমনিতেই বাস কম চলছে। যা দু-একটা চলছিল তাও বন্ধ হয়ে গেল। জরুরি প্রয়োজনে কোথাও যাওয়ার প্রয়োজন পড়লে খুবই সমস্যা হবে। অনেকে বলছেন, আলাদা করে গাড়ি ভাড়া করে রোগী নিয়ে হাসপাতালে যাওয়ার আর্থিক সামর্থ্য  অনেকেরই নেই। তাই ডাক্তার দেখানো দেখে হাসপাতাল যাওয়া সবকিছুতেই বেসরকারি বাসই ভরসা। সেই বাস চলাচল বন্ধ হয়ে যাওয়ায় স্বাভাবিকভাবেই সমস্যায় পড়েছেন অনেকেই। পূর্ব বর্ধমান জেলার সদর শহর বর্ধমান, কাটোয়া, মেমারির মতোই কালনা শহরেও শনিবার থেকে টানা লকডাউন চলছে। সংক্রমণ ব্যাপকভাবে বেড়ে যাওয়ায় বাসিন্দাদের বেশিরভাগই খুব একটা বাইরে বের হচ্ছেন না। অনেকেই যা কিছু প্রয়োজন তা এলাকার মধ্যে মিটিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করছেন। ফলে বাসে যাত্রী একেবারেই মিলছে না। মূলত সেই কারণেই বাস চলাচল বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত। কালনার বেসরকারি বাস মালিকরা বলছেন,এখন জেলা প্রশাসনের নির্দেশে টানা লকডাউন চলছে। বুধবার আবার রাজ্যজুড়ে লকডাউন। তাই যাত্রী হবে না ধরে নিয়েই বাস চলাচল বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। রাস্তায় বাস নামালেই আড়াই তিন হাজার টাকা খরচ। অথচ বাস চালিয়ে চালক কর্মীদের মুড়ি খাবার পয়সাটুকুও উঠছে না। লোকসানের বহর  দিন দিন বেড়েই চলেছে। তাছাড়া করোনার সংক্রমণ ব্যাপকভাবে বেড়ে যাওয়ায় আতঙ্কের মধ্যে রয়েছেন বাসচালক কর্মীরাও। তাঁরাও কাজে যোগ দিতে ভয় পাচ্ছেন। যেকোনো সময় তাঁরাও করোনা আক্রান্ত হতে পারেন। সবকিছু দিক বিবেচনা করেই বাস বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে - বলছেন বাস মালিকরা।

কালনা থেকে বর্ধমান, আসানসোল, নবদ্বীপ,মেমারি, গুড়াপ, পান্ডুয়া, বাঁকুড়া সহ বেশ কয়েকটি রুটে শতাধিক বাস চলে। কিন্তু এই করোনা আবহে যাত্রীদের দেখা মিলছিল না। বাস মালিকরা বলছেন, এমনিতেই স্কুল-কলেজ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ। ফলে শিক্ষক পড়ুয়া কেউই বাসে উঠছেন না। তার ওপর সরকারি কর্মীদেরও তেমনভাবে দেখা নাই। সংক্রমণের ভয়ে স্থানীয়  বাসিন্দারাও বাস এড়িয়ে চলছেন। তাই হাতে গোনা দু একজন যাত্রী নিয়ে যাতায়াত করে লোকসান বেড়েই চলেছিল। তাই বুধবার পর্যন্ত বাস চলাচল পুরোপুরি বন্ধ থাকবে। তারপর পরিস্থিতি বিচার করে রাস্তায় বাস নামাবেন বাস মালিকরা।

Saradindu Ghosh

Published by: Debalina Datta
First published: July 28, 2020, 2:36 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर