ডিসেম্বরে কি আলুর দাম কমার সম্ভাবনা রয়েছে ? কী বলছেন ব্যবসায়ীরা, দেখে নিন

ডিসেম্বরে কি আলুর দাম কমার সম্ভাবনা রয়েছে ? কী বলছেন ব্যবসায়ীরা, দেখে নিন
Representational Image

রাজ্যের অন্যান্য অংশের মতোই বর্ধমানের বাজারগুলিতে কেজি প্রতি জ্যোতি আলুর দাম ২৫ টাকা। বেশ কয়েকদিন ১৮ থেকে ২০ টাকার মধ্যে এই দাম ঘোরাফেরা করছিল। এবার তা এক লাফে ২৫ টাকায় চলে গিয়েছে।

  • Share this:

Sardindu Ghosh

#বর্ধমান: ডিসেম্বরে আর আলুর দাম কমার সম্ভাবনা নেই । বলছেন বর্ধমানের আলু ব্যবসায়ীরা। তাঁরা বলছেন, হিমঘরে আলু নেই। বাজারে চাহিদা প্রবল। তাই দিন দিন আলুর দাম বাড়ছে। নতুন আলু উঠতে এখনও ১০-১২ দিন লাগবে। তার আগে আলুর দাম কমা তো দূরের কথা বরং আরও বাড়তে পারে বলেই জানাচ্ছেন তাঁরা।

রাজ্যের অন্যান্য অংশের মতোই বর্ধমানের বাজারগুলিতে কেজি প্রতি জ্যোতি আলুর দাম ২৫ টাকা। বেশ কয়েকদিন ১৮ থেকে ২০ টাকার মধ্যে এই দাম ঘোরাফেরা করছিল। এবার তা এক লাফে ২৫ টাকায় চলে গিয়েছে।

আলু ব্যবসায়ীরা বলছেন, অন্যান্য বছর এই সময় নতুন পোখরাজ আলু বাজারে চলে আসে। কিন্তু এবার তা হয়নি। বুলবুলের কারনেও অনেক আলু চাষ নষ্ট হয়েছে। নতুন আলু বাজারে ভালোভাবে আসতে এখনও দেড় দু সপ্তাহ লাগবে। ততদিন পুরনো জ্যোতি আলুর দাম কমার সম্ভাবনা কম।

এমনিতেই পেঁয়াজ বেশ কিছুদিন আগেই সেঞ্চুরি হাঁকিয়েছে। কেজি প্রতি পেঁয়াজের দাম ১৫০ ছাড়িয়ে ২০০-র দিকে ছোটা শুরু করেছিল। দাম কিছুটা কমে ১০০-র কাছে এলেও আবার তা বাড়তে শুরু করেছে। বর্ধমানের মূল বাজারগুলিতে এদিন পেঁয়াজের কেজি প্রতি দাম ছিল একশো দশ টাকা। খুচরো বাজারে পেঁয়াজ ১২০ থেকে ১৩০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে।

পেঁয়াজের পাইকারি ব্যবসায়ীরা বলছেন, এখান থেকে পেঁয়াজ জেলার বিভিন্ন প্রান্ত এবং বাঁকুড়া, পুরুলিয়া, হুগলির আরামবাগে যায়।​ বছরের অন্যান্য সময় বর্ধমানে প্রতিদিন গড়ে তিন চার ট্রাক করে নাসিক থেকে পেঁয়াজ আসে। এবার সেখানে এক দু’দিন অন্তর দু-ট্রাক করে পেঁয়াজ আসছে। ​চাহিদার তুলনায় আমদানি কম হওয়ায় এই অগ্নিমূল্য।​

সব দেখেশুনে বাসিন্দারা বলছেন, খেয়ে পরে বেঁচে থাকাই দায়। পেঁয়াজ ভাজা দিয়ে ডাল-আলুসিদ্ধ এসব আর সাধারণের খাবার নয়। এখন এগুলি উচ্চবিত্তের খাদ্য হয়ে দাঁড়িয়েছে।

First published: 03:30:26 PM Dec 19, 2019
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर