Home /News /south-bengal /
Mysterious death of newly wed bengali woman in Himachal Pradesh: মধুচন্দ্রিমায় মারণ 'সেলফি', হিমাচলের সুইসাইড পয়েন্টে খাদে পড়ে মৃত্যু দমদমের নববধূর

Mysterious death of newly wed bengali woman in Himachal Pradesh: মধুচন্দ্রিমায় মারণ 'সেলফি', হিমাচলের সুইসাইড পয়েন্টে খাদে পড়ে মৃত্যু দমদমের নববধূর

কিন্নৌরের এই সুইসাইড পয়েন্ট থেকেই খাদে পড়ে যান জয়িতা৷

কিন্নৌরের এই সুইসাইড পয়েন্ট থেকেই খাদে পড়ে যান জয়িতা৷

  • Share this:

    #আগরপাড়া: মধুচন্দ্রিমায় গিয়ে মর্মান্তিক পরিণতি হল নববধূর ৷ হিমাচল প্রদেশের (Himachal Pradesh) কিন্নৌরের সুইসাইড পয়েন্টে (Suicide Point) খাদে পড়ে গিয়ে রহস্যজনক ভাবে মৃত্যু হল উত্তর চব্বিশ পরগণার আগরপাড়ার বাসিন্দা জয়িতা দাস (২৮) নামে এক তরুণীর৷

    জানা গিয়েছে, গত ২০ ফেব্রুয়ারির আগরপাড়ার নর্থ স্টেশন রোড এলাকার বাসিন্দা জয়িতার সঙ্গে বিয়ে হয়েছিল দমদম পাইকপাড়ার বাসিন্দা রাহুল পোদ্দারের৷ বিয়ের পর অষ্টমঙ্গলা সেরে গত ৪ মার্চ হিমাচল প্রদেশে বেড়াতে যায় নবদম্পতি৷

    আরও পড়ুন: গ্রেফতার আরও দুই, হরিদেবপুরের নৃশংস হত্যার রহস্য ফাঁস

    শুক্রবার সন্ধ্যায় হিমাচল প্রদেশের কিন্নৌর পুলিশ স্টেশনের তরফে ফোন পান জয়িতার বাবা৷ এক পুলিশ আধিকারিক জানান, কিন্নৌরের সুইসাইড পয়েন্ট থেকে খাদে পড়ে গিয়ে মৃত্যু হয়েছে জয়িতার৷ প্রায় চারশো থেকে পাঁচশো ফুট গভীর খাদে পড়ে যান ওই তরুণী৷ যদিও অক্ষতই রয়েছেন তাঁর স্বামী রাহুল৷ জয়িতার দেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের ব্যবস্থা করেছে হিমাচল প্রদেশের পুলিশ৷

    আরও পড়ুন: নদীতে উদ্ধার হয় গলাকাটা দেহ, নৃশংস হত্যাকাণ্ডে ধৃত ৩

     এই খবর পাওয়ার পরই কার্যত দিশেহারা হয়ে পড়ে জয়িতার পরিবার৷ খবর যায় জয়িতার শ্বশুরবাড়িতেও৷ দুই পরিবারের সদস্যরাই তড়িঘড়ি হিমাচল প্রদেশে রওনা হন৷ শনিবার জানা যায়, সুইসাইড পয়েন্টে দাঁড়িয়ে সেলফি তুলছিলেন জয়িতা৷ তখনই অসাবধনতায় এই মর্মান্তিক দুর্ঘটনা ঘটে৷ প্রাথমিক ভাবে অবশ্য জয়িতার স্বামীর দিকে কোনও অভিযোগ তোলেনি মৃতার পরিবার৷ জয়িতার বাবা যাদব চন্দ্র দাস বলেন, 'অন্যরকম কিছু এখনই মনে হচ্ছে না৷ কিন্তু মেয়ে পড়ে যাওয়ার সময় জামাই তাঁকে বাঁচানোর চেষ্টা করেছে কি না, জানি না৷'

    ঘটনায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে জয়িতার প্রতিবেশীদের মধ্যেও৷ স্থানীয় কাউন্সিলর অনুপম দত্ত বলেন, 'এমন প্রাণবন্ত একটি মেয়ের মৃত্যু কেউই মেনে নিতে পারছেন না৷ রাজ্য সরকারকে অনুরোধ করব যাতে দেহ দ্রুত ফেরানো যায়, সেই ব্যবস্থা করতে৷ পাশাপাশি, মৃত্যুর পিছনে প্রকৃত কারণ কী, তাও খুঁজে বের করা প্রয়োজন৷ '

    Arun Ghosh
    Published by:Debamoy Ghosh
    First published:

    Tags: Himachal Pradesh

    পরবর্তী খবর