অষ্টমঙ্গলায় পাশাপাশি শুয়ে রক্ত দিলেন নবদম্পতি

অষ্টমঙ্গলায় পাশাপাশি শুয়ে রক্ত দিলেন নবদম্পতি
photo: Blood Donation

ছোট থেকেই দীপান্বিতা দেখে এসেছেন তার বাবাকে রক্তদান আন্দোলনের সঙ্গে কাজ করতে।

  • Share this:

#চন্দ্রকোনা: বিয়ের পর প্রথম বাপের বাড়ি এসে একই রক্তদান করলেন মেয়ে৷ পাশে শুয়ে রক্ত দিলেন স্বামীও৷ বিয়ের সময়ই রক্তদান শিবির করার আবদার করেছিলেন মেয়ে৷ মেয়ের আবদারে সাড়া দিয়ে রক্তদান শিবিরের আয়োজন করেন তার বাবা।

চন্দ্রকোনার ক্ষীরপাই পুরসভার ২ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা দীপান্বেষা ঘোষ। তনুপ ঘোষের একমাত্র কন্যা দীপান্বেষা। তনুপ বাবু রক্ত দান আন্দোলনের একজন সক্রিয় কর্মী। ছোট থেকেই বাবার হাত ধরে অনেক রক্তদান শিবিরে গিয়েছে দীপান্বেষা। খুব ছোট থেকেই দীপান্বেষা বাবার কাছে  রক্তদান সম্পর্কে নানা প্রশ্ন করে আসতো৷  যেমন  রক্ত কারা দিতে পারে? কত বছর বয়স পর্যন্ত রক্ত দেওয়া যেতে পারে? বছরে কতবার রক্ত দেওয়া যেতে পারে? রক্ত দিলে কী অসুবিধা হতে পারে? এই রক্ত কী কাজে লাগে? এই রকম নানান প্রশ্নের  উত্তর দিতেন  তনুপ বাবু।

দীপান্বেষার বর্তমান বয়স ২২ বছর। দীপান্বেষা যখন ১৮ বছরে পা দিয়েছিলেন, ঠিক একই ভাবে বাবার কাছে আবদার জানিয়েছিলেন তার জন্মদিনে রক্তদান শিবির করার।   শুধু তাই নয়, তার জন্মদিনে আমন্ত্রিত যে বন্ধু, বান্ধবরা ছিলেন তাদেরকেও রক্তদানে অংশগ্রহণ করার জন্য উদ্বুদ্ধ করেছিলেন দীপান্বেষা। নিজের জন্মদিনে বন্ধুদের সঙ্গে প্রথম রক্ত দেওয়া শুরু। সেই থেকে প্রতি বছর  জন্মদিনে  রক্তদান শিবির করে আসছেন দীপান্বেষা।

ছোট থেকেই দীপান্বিতা দেখে এসেছেন তার বাবাকে রক্তদান আন্দোলনের সঙ্গে কাজ করতে। মঙ্গলবার বাপের বাড়িতে নতুন স্বামীকে নিয়ে পৌঁছেই দুজনে একসঙ্গে রক্তদান করলেন।  রক্তদাতাদের' হাতে ফলের চারা গাছ তুলে দিলেন নব দম্পতি। দীপান্বেষা বলেন, একটি গাছ একটি প্রাণ বা এক ফোঁটা রক্ত ফিরিয়ে দিতে পারে একটি মুমূর্ষু মানুষের প্রাণ৷ তাই যুব সমাজ রক্ত দানে স্বতঃস্ফূর্তভাবে এগিয়ে এলেই আমাদের রাজ্যে রক্ত সংকট  মিটবে। নতুন মেয়ে জামাইয়ের সঙ্গে রক্ত দেন তনুপ বাবুও।

First published: 06:42:46 PM Aug 13, 2019
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर