PM Modi in Bengal: 'বাংলার মেয়ে' স্লোগানকে নিশানা মোদির, মমতাকে অস্বস্তিতে ফেলতে বড় অভিযোগ

PM Modi in Bengal: 'বাংলার মেয়ে' স্লোগানকে নিশানা মোদির, মমতাকে অস্বস্তিতে ফেলতে বড় অভিযোগ
মমতাকে আক্রমণ মোদির৷

হুগলির সভা থেকে এ দিন সরাসরি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নাম নিয়ে আক্রমণ করেননি প্রধানমন্ত্রী৷

  • Share this:

    #সাহাগঞ্জ: কয়েকদিন আগেই বিধানসভা নির্বাচনের আগে নিজেদের রাজনৈতিক স্লোগান প্রকাশ করেছিল তৃণমূল৷ যেখানে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে বাংলার মেয়ে হিসেবে তুলে ধরে ভোটে বাজিমাতের কৌশল নিয়েছে শাসক দল৷ হুগলির সাহাগঞ্জের সভা থেকে বাংলার মেয়ে হিসেবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে তুলে ধরার এই রাজনৈতিক কৌশলকেই পাল্টা নিশানা করলেন প্রধানমন্ত্রী৷ তাঁর অভিযোগ, রাজ্যে ঘরে ঘরে পরিস্রুত পানীয় জল পৌঁছে দিতে কেন্দ্রীয় সরকার যে বিপুল অর্থ বরাদ্দ করেছিল, তার সিংহভাগই খরচ করেনি রাজ্যের তৃণমূল সরকার৷ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নাম না নিয়েই প্রধানমন্ত্রীর প্রশ্ন, 'যাঁরা জলের অভাবে কষ্ট পাচ্ছেন তাঁরা কি বাংলার মেয়ে নন?'

    হুগলির সাহাগঞ্জের সভা থেকে এ দিন কেন্দ্রীয় জল প্রকল্পের অর্থ খরচ নিয়ে রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে গুরুতর অভিযোগ তোলেন প্রধানমন্ত্রী৷ তাঁর অভিযোগ, বাংলায় দেড় থেকে দু' কোটি পরিবারের মধ্যে মাত্র ২ লক্ষ পরিবার পরিস্রুত পানীয় জল পায়৷ অথচ কেন্দ্রীয় সরকার এই উদ্দেশ্যে রাজ্য সরকারকে ১৭০০ কোটি টাকারও বেশি বরাদ্দ করেছে বলে দাবি করেন প্রধানমন্ত্রী৷ তিনি বলেন, 'এই টাকার মধ্যে মাত্র ৬০৯ কোটি টাকা এখানকার সরকার খরচ করেছে৷ বাকি ১১০০ কোটি টাকা এখানকার সরকার চেপে বসে আছে৷ এতেই প্রমাণিত হয় যে তৃণমূল সরকার গরিবের জন্য, পশ্চিমবঙ্গে মেয়ে-বোনেদের কথা বিন্দুমাত্র ভাবে না৷ যাঁরা জলকষ্টে ভুগছেন, তাঁরা কি বাংলার মেয়ে নন? বাংলার মেয়েদের জল পাওয়া উচিত কি উচিত নয়? বাংলার মেয়েদের সঙ্গে যাঁরা অন্যায় করছেন, তাঁদের কি ক্ষমা করা উচিত?'


    প্রধানমন্ত্রীর এই আক্রমণের পাল্টা জবাব দিয়েছে তৃণমূলও৷ দলের মুখপাত্র কুণাল ঘোষ বলেন, 'বাংলার মা-বোনেদের জন্য কন্যাশ্রী, রূপশ্রী প্রকল্প যেমন রয়েছে, সেরকমই স্বাস্থ্য সাথী প্রকল্পও মহিলাদের কেন্দ্র করেই করা হয়েছে৷ ঘরে ঘরে জলের প্রকল্প পিএইচই থেকেই চলছে৷ এই বক্তৃতার সঙ্গে মানুষের এবং বাংলার মেয়েদের অভিজ্ঞতা মিলছে না৷ একবার তো বললেন না পেট্রোল, ডিজেল, রান্নার গ্যাসের দাম বাড়ার জন্য বাংলার মা-বোনেদের সংসার চালাতে কতখানি অসুবিধে হচ্ছে! উনি যেগুলো বলেছেন রাজনীতির জন্য বলেছেন৷ বছরের পর বছরে মোদিজির সরকারই তো রাজ্য সরকারের একের পর এক দফতরকে প্রথম, দ্বিতীয় পুরস্কার দিয়েছে৷ এখন ভোটের আগে অন্য কথা বলছেন কেন?'

    হুগলির সভা থেকে এ দিন সরাসরি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নাম নিয়ে আক্রমণ করেননি প্রধানমন্ত্রী৷ কিন্তু বাংলার মেয়েদের প্রসঙ্গ আলাদা করে উল্লেখ করে তিনি পরোক্ষে তৃণমূলনেত্রীকেই বিঁধলেন৷ বলা ভাল, বাংলার মেয়ে হিসেবে মমতাকে তুলে ধরে রাজ্যের শাসক দল ভোটারদের মধ্যে যে আবেগ তৈরি করতে চাইছে, তাতে ধাক্কা দেওয়ার চেষ্টা করলেন প্রধানমন্ত্রী৷ বলার অপেক্ষা রাখে না, বাংলার মেয়ে হিসেবে মমতাকে তুলে ধরার তৃণমূলের নতুন কৌশলের মোকাবিলা কী ভাবে করতে হবে, বিজেপি নেতাদেরও সেই পথ দেখিয়ে গেলেন তিনি৷ এর পাশাপাশি এ দিন কাটমানি থেকে সিন্ডিকেট, বাংলার সংস্কৃতির অধঃপতন, তোষণের রাজনীতির মতো বিভিন্ন অভিযোগে রাজ্যের শাসক দল এবং তৃণমূল সরকারের বিরুদ্ধে সরব হয়েছেন নরেন্দ্র মোদি৷ ফের একবার সোনার বাংলা গড়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন তিনি৷

    Published by:Debamoy Ghosh
    First published:

    লেটেস্ট খবর