PM Modi in Bengal: 'বাংলার মন বুঝে নিয়েছি, আসল পরিবর্তন হচ্ছেই', হুগলি মাতালেন মোদি

PM Modi in Bengal: 'বাংলার মন বুঝে নিয়েছি, আসল পরিবর্তন হচ্ছেই', হুগলি মাতালেন মোদি
সাহাগঞ্জে নরেন্দ্র মোদি।

তোলাবাজি মুক্ত, রোজগার যুক্ত বাংলা গড়ার লক্ষ্যে এদিন ঝাঁঝালো বক্তব্য রাখেন প্রধানমন্ত্রী। বাংলার বিকাশের সামনে দেওয়াল তৈরি করেছে মা-মাটি-মানুষের সরকার। এমনই তীব্র আক্রমণ করেন মোদি।

  • Share this:

    #সাহাগঞ্জ: সকালে অসমে দাঁড়িয়েও মুখে ছিল 'পশ্চিমবঙ্গাল' -এর কথা। আর বিকেল চারটেয় খাস হুগলির সাহাগঞ্জের বুকে দাঁড়িয়ে বারবার 'সোনার বাংলা'র স্বপ্ন দেখালেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। সভার মেজাজ আর ভিড় দেখে বক্তব্যের শুরুতেই ইদানিং বাংলা বলা প্রধানমন্ত্রী 'ঘোষণা' করে দেন, 'বাংলা পরিবর্তনের জন্য মন করে ফেলেছে। এবার আসল পরিবর্তন হবে।' স্বাধীনতা সংগ্রামের ধাত্রীভূমি কেন আজ সিন্ডিকেট রাজ আর 'তুষ্টিকরণ'-এর রাজনীতির আখড়া হয়ে উঠেছে, তা নিয়ে বিঁধেছেন মা - মাটি - মানুষের সরকারকে। দাবি করেছেন, বাংলায় বিজেপি সরকার এলে লগ্নি থেকে শিক্ষা, বাঙালির পুরনো 'গর্ব' ফিরিয়ে দেবেন তিনি। মার্চের শুরুতেই মোদির ব্রিগেড। আশা করা হয়েছিল, ভোট ঘোষণার আগে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে সুর সপ্তমে তুলবেন না প্রধানমন্ত্রী। তবে, এদিন তাঁর বক্তব্যের ঝাঁঝে স্পষ্ট হয়ে গিয়েছে, বাকি চার রাজ্যের ভোট ততটাও নয়, মোদির আসল চোখ বাংলাতেই।

    তোলাবাজি মুক্ত, রোজগার যুক্ত বাংলা গড়ার লক্ষ্যে এদিন ঝাঁঝালো বক্তব্য রাখেন প্রধানমন্ত্রী। বাংলার বিকাশের সামনে দেওয়াল তৈরি করেছে মা-মাটি-মানুষের সরকার। এমনই তীব্র আক্রমণ করেন মোদি। তাঁর কথায়, 'আমার বিশ্বাস, একজোটে বাংলার কৃষক, শ্রমিক এবং যুবকদের জন্য উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ গড়তে পারব আমরা।' একই মাসের মধ্যে দ্বিতীয় বার বাংলায় ভোট প্রচারে এসে ফের একবার প্রাক-স্বাধীনতায় বাংলার ঐহিত্য নিয়ে মন্তব্য করেছেন মোদি। তিনি বলেছেন, 'স্বাধীনতার আগে দেশের অন্য রাজ্যের থেকে এগিয়ে ছিল বাংলা। কিন্তু যারা এত দিন বাংলায় রাজত্ব করেছে, তারা বাংলাকে দুর্দশার দিকে ঠেলে দিয়েছে।'

    আযুষ্মান ভারতের প্রসঙ্গে টেনে এনে এদিন মোদি বলেছেন, 'বাংলার উন্নতির সামনে বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে মা-মাটি-মানুষের সরকার। কৃষক ও গরিবের পয়সা তাদের অ্যাকাউন্টে ঢুকছে। যে কারণে তৃণমূলের নেতাদের প্রতিপত্তি বেড়ে চলেছে, আর সাধারণ মানুষ কষ্টে দিন কাটাচ্ছেন। বাংলার মানুষের অধিকার এখানকার সরকার ছিনিয়ে নিয়েছে। বাংলার লক্ষ লক্ষ দরিদ্র পরিবার আয়ুষ্মান ভারতের আওতায় ৫ লক্ষ টাকার সুবিধা থেকে আজও বঞ্চিত।'


    দেশভক্তির বদলে তৃণমূল সরকার ভোটব্যাঙ্কের রাজনীতি করে বলে দাবি করেছেন নরেন্দ্র মোদি। তিনি বলেছেন, 'বঙ্কিমচন্দ্রের বন্দেমাতরম ভবনের রক্ষণাবক্ষণে নজর দেয়নি কেউ। এর পিছনে অনেক বড় রাজনীতি লুকিয়ে রয়েছে। এই রাজনীতি দেশভক্তির বদলে ভোটব্যাঙ্কের, সকলের বিকাশের পরিবর্তে তোষণের। এখানে দুর্গাপুজোর ভাসানও বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। বাংলার মানুষ এদের ক্ষমা করবে না। বাংলার মানুষকে প্রতিশ্রুতি দিচ্ছি, ’২১-এ বিজেপির সরকার এলে বাংলার মানুষ নিজের সংস্কৃতি নিয়ে মাথা উঁচু করে বাঁচবে। কেউ ভয় দেখাতে পারবে না। বিজেপি সোনার বাংলা তৈরি করতে কাজ করবে, যার মধ্যে এখানকার সংস্কৃতি ও ইতাহাস আরও মজবুত হবে। এমন বাংলা যেখানে সবার উন্নতি হবে।'

    মোদির খোঁচা, 'পূর্ব ভারতের লোকগীতিতে একসময় বলা হত, বাড়ির পুরুষরা কাজের খোঁজে কলকাতা গিয়েছেন। বাড়ি ফেরার সময় সেখান থেকে উপহার আনবেন। কিন্তু সব পাল্টে গিয়েছে। এখন বাংলার মানুষকেই কাজের খোঁজে অন্য রাজ্যে যেতে হয়।' তাঁর দাবি, এই পরিস্থিতি থেকে বাংলাকে বার করে আনবে বিজেপি, হবে 'আসল পরিবর্তন'। এদিন হুগলির জনসভাতে মানুষের ভিড়ও সেকথাই জানান দিচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী।

    Published by:Raima Chakraborty
    First published: