Suicide: স্বামী বিদেশে, 'অবৈধ' সম্পর্কে জড়াল স্ত্রী! নামখানায় মর্মান্তিক পরিণতি মহিলার

মর্মান্তিক

Suicide: সম্প্রতি জামাই ষষ্ঠীর সময় এই ঘটনা জানাজানি হতেই মৃতার বাপের বাড়ি থেকে ফোন নিয়ে নেয়।

  • Share this:

    #নামখানা: গলায় ফাঁস নিয়ে আত্মঘাতী হলেন এক গৃহবধূ। ঘটনাটি ঘটেছে নামখানা থানার শিবরামপুর গ্রাম পঞ্চায়েত এালাকায়। মৃতার নাম মৌমিতা মণ্ডল (২৮)। স্থানীয় বাসিন্দা ও পরিবার সূত্রে জানা গিয়েছে, বছর দশেক আগে নামখানার হরিপুরের বাসিন্দা রবীন মাইতির মেয়ে মৌমিতার সঙ্গে শিবরামপুরের বাসিন্দা জগদীশ চন্দ্র মণ্ডলের ছেলে শুভাশিষ মণ্ডলের প্রেম করে বিয়ে হয়। কাজের সুত্রে শুভাশিস দীর্ঘদিন ধরে বিদেশে থাকেন। মাস দেড়েক আগে শিবরামপুরের নিজের বাড়িতে ফেরে।

    মৃতা মৌমিতার স্বামী শুভাশিস বিদেশে থাকায় মৌমিতা অবৈধ সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ে বলে অভিযোগ শ্বশুর বাড়ির লোকজনের। সম্প্রতি জামাই ষষ্ঠীর সময় এই ঘটনা জানাজানি হতেই মৃতার বাপের বাড়ি থেকে ফোন নিয়ে নেয়। সেই মোবাইল ফোন নিয়ে প্রায় অশান্তি লেগে থাকত তাদের সংসারে। মৌমিতার স্বামী, শ্বশুর ও দুই ছেলে-মেয়েকে নিয়ে তাদের সংসার। মৌমিতার ১ বছরের একটি মেয়ে ও রয়েছে।

    ঘটনার দিন অর্থাৎ রবিবার সকাল ১০টা নাগাদ শুভাশিস পুকুরে কাজ করছিলেন। শ্বশুর মশাই বাড়িতেই ছিলেন সেই সময়। হটাৎই সবার অলক্ষ্যে নিজের ঘরের ভেতর গলায় ফাঁস দেয় মৌমিতা। প্রতিবেশী একটি ১২ বছরের মেয়ে জানালা দিয়ে মৌমিতাকে গলায় ফাঁস লাগা অবস্থায় দেখতে পেয়ে চিৎকার করে। তখন তাঁর স্বামী ও প্রতিবেশীরা ছুটে এসে মৌমিতার ঝুলন্ত দেহ দেখতে পায়। তড়িঘড়ি তাঁকে দ্বারিকনগর গ্রামীণ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে মৌমিতাকে মৃত বলে ঘোষণা করেন চিকিৎসকরা। খবর দেওয়া হয় নামখানা থানায়।

    ঘটনাস্থলে নামখানা থানার পুলিশ এসে দেহটিকে ময়না তদন্তের জন্য কাকদ্বীপ হাসাপাতালে পাঠায়। মৌমিতার বাবা জানিয়েছেন, 'তাঁদের মেয়ে একটি অবৈধ সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েছিল বলে কয়েকদিন আগে জানিয়েছিল তাদের জামাই। তারপর মেয়ের ফোনটা নিয়ে নেওয়া হয়েছিল। এর থেকে আর বেশি কিছু জানি না। আজকে সকালে হঠাৎই আমাদের জামাই ফোন করে জানায়, মেয়ে গলায় ফাঁস দিয়েছে।' নামখানা থানার পুলিশ পুরো বিষয়টার ওপর তদন্ত শুরু করেছে।

    Published by:Suman Biswas
    First published: