বীরভূমে খাসির মাংসের দাম বেঁধে দিল সিউড়ি পুরসভা, অমান্য করলেই গ্রেফতার !

পুরসভা ও খাসির মাংস বিক্রেতাদের এই দ্বন্দ্বে আগামী দিনে খাসির মাংসের দাম কোন জায়গায় গিয়ে দাঁড়ায়, সেটাই এখন দেখার বিষয়।

পুরসভা ও খাসির মাংস বিক্রেতাদের এই দ্বন্দ্বে আগামী দিনে খাসির মাংসের দাম কোন জায়গায় গিয়ে দাঁড়ায়, সেটাই এখন দেখার বিষয়।

  • Share this:

#সিউড়ি: রাতারাতি খাসির মাংসের দামে বাড়বাড়ন্ত, হস্তক্ষেপ পুরসভার, পাল্টা অভিযোগ ব্যবসায়ীদেরও ৷ করোনা ভাইরাসের ত্রাস ছড়িয়ে পড়েছে বিশ্বজুড়ে। আর এই ত্রাসকে আরও বাড়িয়েছে বেশকিছু গুজব। এই গুজবের মধ্যে অন্যতম মুরগির মাংস নিয়ে। যার পরে অনেকেই মুরগির মাংস খাওয়া ছেড়ে দিয়েছেন ৷ মাংস খাওয়ার তাগিদে ঝুঁকছেন খাসির দিকেই। আর সেই সুযোগকে কাজে লাগিয়ে খাসির মাংস বিক্রেতারা সুযোগ বুঝে কোপ মারছেন বলে অভিযোগ।

খাসির মাংসের দাম ৫৫০ টাকা থেকে রাতারাতি ৭০০ টাকা করে কেজি করে দিয়েছে বলে অভিযোগ। যার পরেই নড়েচড়ে বসে সিউড়ি পুরসভা। অস্বাভাবিকভাবে খাসির মাংসের দাম বৃদ্ধি করার ঘটনা ঘটেছে বীরভূমের সিউড়ি পুরসভা এলাকায় বেণীমাধব স্কুলের কাছে ব্যবসা করা খাসির মাংস বিক্রেতারা। আর এমন অভিযোগ শুনে রবিবার সকালে খাসির মাংসের দোকানগুলিতে সিউড়ি থানার পুলিশকে নিয়ে হানা দেন সিউড়ি পৌরসভার চেয়ারম্যান উজ্জ্বল মুখোপাধ্যায়। সেখানে গিয়ে সাধারণ ক্রেতা ও বিক্রেতাদের সঙ্গে কথা বলে তিনি তার সিদ্ধান্তের কথা জানান।

তিনি জানান, "ইচ্ছে মত যখন খুশি দাম বাড়িয়ে দেব, সেটা করতে পারেনা। পুরসভার একটা আইন রয়েছে ৷ যে আইনের বাইরে গেলে এই খাসির মাংস বিক্রেতাদের লাইসেন্সপ্রাপ্ত বাজেয়াপ্ত করে দেওয়া হবে। আজ, রবিবার থেকে ৬০০ টাকার বেশি কেজি দর কোনওভাবেই নেওয়া যাবে না। আমার কাছে অভিযোগ এলেই আমি ব্যবস্থা গ্রহণ করব। দোকান উঠিয়ে দেব।"

যদিও খাসির মাংস বিক্রেতাদের পাল্টা দাবি, "আমরা নিজেরাই এত অল্প দামে খাসি কিনতে পারছিনা। তাই আমরা কি করে বিক্রি করব ৬০০ টাকা কিলো দরে। পুরসভা আমাদের খাসি কিনে দিলে আমরা পুরসভার নির্ধারিত দরেই বিক্রি করব। আর তা না হলে আমাদের দোকান বন্ধ রাখতে হবে।"

পুরসভা ও খাসির মাংস বিক্রেতাদের এই দ্বন্দ্বে আগামী দিনে খাসির মাংসের দাম কোন জায়গায় গিয়ে দাঁড়ায়, সেটাই এখন দেখার বিষয়।

Supratim Das

Published by:Siddhartha Sarkar
First published: