Home /News /south-bengal /
Murshidabad: শেষকৃত্য সম্পন্ন হল কলকাতায় কাজ করতে এসে নিউটাউনে মৃত্যু হওয়া মুর্শিদাবাদের ৩ শ্রমিকের

Murshidabad: শেষকৃত্য সম্পন্ন হল কলকাতায় কাজ করতে এসে নিউটাউনে মৃত্যু হওয়া মুর্শিদাবাদের ৩ শ্রমিকের

কলকাতায় শ্রমিকের কাজ করতে এসে মৃত্যু হয় খড়গ্রামের তিন শ্রমিকের

  • Share this:

#মুর্শিদাবাদ: কলকাতায় শ্রমিকের কাজ করতে এসে মৃত্যু হয় খড়গ্রামের তিন শ্রমিকের। মুর্শিদাবাদ জেলাতে সেই ভাবে কল কারখানা বা শিল্প এখনও গড়ে ওঠেনি। ফলে পরিবারের মুখে অন্ন ও হাসি ফুটানোর জন্য মুর্শিদাবাদ জেলা থেকে ভীন রাজ্যে পাড়ি দিতে হয় শ্রমিকদের। এবার, শ্রমিকের কাজে গিয়ে কলকাতায় প্রাণ দিতে হল মুর্শিদাবাদ জেলার একই গ্রামের তিনজন শ্রমিককে। মুর্শিদাবাদ জেলার খড়গ্রাম ব্লকের অন্তর্গত গুরুলিয়া গ্রামের বাসিন্দা নবকুমার বায়েন, অমর বায়েন ও সুজিত দাস। ৭ জুন কলকাতায় কাজের জন্য রওনা দেন ৩ শ্রমিক। বাড়িতে জামাই ষষ্ঠী করে কলকাতার উদ্দেশ্যে রওনা দিয়েছিলেন। কলকাতার ইকো পার্কের সামনে তাঁরা শ্রমিকের কাজ করছিলেন। গত ১২ জুন বিকেলে কাজ করে রাস্তার ধারে বসে টিফিন করছিলেন মুর্শিদাবাদ জেলার পাঁচজন শ্রমিক। তখন একটি গাড়ি এসে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ধাক্কা মারে। গুরুতর আহত হন পাঁচজন। আশঙ্কাজনক অবস্থায় নবকুমার বায়েন ও সুজিত দাসকে আরজিকর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়, অমর বায়েন ও বিপদ বায়েন-সহ আরও একজনকে বারসাত হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। চিকিৎসাধীন অবস্থায়ই গত বৃহস্পতিবার মৃত্যু হয় অমর বায়েন ও নবকুমার বায়েনের । শুক্রবার রাতে আর জি কর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে মৃত্যু হয় সুজিত দাসের। তিনজনের দেহ ধাপে ধাপে খড়গ্রাম ব্লকের গুরুলিয়া গ্রামে পৌঁছতেই শোকের ছায়া নেমে এসেছে গোটা পরিবার ও গ্রাম জুড়ে।

শনিবার সকালে নিথর দেহ ফিরে আসে গ্রামের তরতাজা যুবক সুজিত দাসের। মা, বাবা স্ত্রী ও সন্তান নিয়ে সংসার ছিল সুজিতের। পরিবারের মুখে হাসি ফোটাতেই কলকাতা পাড়ি দিয়েছিলেন, কিন্তু আর ফেরা হল না! তিনিই ছিলেন সংসারের একমাত্র রোজগেরে সদস্য, আগামিদিনে কীভাবে সংসার চলবে, বুঝে উঠতে পারছেন না অসহায় পরিবার। শুক্রবার অমর বায়েন ও নবকুমার বায়েনের শেষকৃত্য সম্পন্ন হয়। শনিবার শেষকৃত্য সম্পন্ন হল সুজিত দাসের । অন্যদিকে এই দুর্ঘটনায় আহত বাকি ২ শ্রমিকের চিকিৎসা চলছিল, আপাতত তাঁরা সুস্থ, বাড়ি ফিরে এসেছেন।

Pranab Kumar Banerjee
Published by:Rukmini Mazumder
First published:

Tags: Murshidabad

পরবর্তী খবর