সময় ৭ দিন, নাহলে প্রাণে মারা হবে! দল বদল করা বিধায়ককে দেওয়ালে লিখে খুনের হুমকি

সময় ৭ দিন, নাহলে প্রাণে মারা হবে! দল বদল করা বিধায়ককে দেওয়ালে লিখে খুনের হুমকি
অরিন্দম ভট্টাচার্য৷

কয়েকিদন আগেই দিল্লিতে গিয়ে বিজেপি-তে যোগ দিয়েছিলেন শান্তিপুরের তৃণমূল বিধায়ক অরিন্দম ভট্টাচার্য৷

  • Share this:

    #শান্তিপুর: কয়েক দিন আগেই দিল্লিতে গিয়ে দল বদল করেছিলেন৷ নদিয়ার শান্তিপুরের সেই বিধায়ক অরিন্দম ভট্টাচার্যের বিরুদ্ধেই এবার দেওয়ালে লিখে খুনের হুমকি দেওয়া হল৷ শুক্রবার সকালে শান্তিপুরের করমচাপুর এবং বাগদেবীপুর এলাকায় একাধিক দেওয়ালে নীল কালিতে খুনের হুমকি দেওয়া দেওয়াল লিখন ঘিরে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে।

    বিধায়কের অভিযোগ, তার বিরুদ্ধে গত ২ জানুয়ারি সকালে শান্তিপুর পৌর এলাকার একাধিক জায়গায় রঙিন কুরুচিকর পোস্টার পড়ে। তার পর ফের শুক্রবার এ ভাবে দেওয়ালে লিখে খুনের হুমকি দেওয়া হল৷ শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেসই এই কাজ করেছে বলে অভিযোগ বিজেপি-তে যোগ দেওয়া বিধায়কের৷ যদিও সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করেছেন শান্তিপুর পুরসভার মুখ্য প্রশাসক পৌর অজয় দে। পরে অবশ্য পুলিশের পক্ষ থেকে দেওয়াল লিখনগুলি মুছে দেওয়া হয়৷

    দেওয়াল লিখনে হুমকি দেওয়া হয়, সাত দিনের মধ্যে অরিন্দম ভট্টাচার্য শান্তিপুর না ছাড়লে তাঁর খুনের দায় তাঁকেই নিতে হবে৷


    অরিন্দম ভট্টাচার্যের অভিযোগ, 'শাসক দল ভয় পেয়েছে৷ জনসমর্থন যে হারিয়ে ফেলেছে সেটা বুঝতে পেরেছে ওরা৷ আর সেই ভয়-ভীতির প্রতিফলনই এ ভাবে দেওয়াল লিখে হুমকি দেওয়া হচ্ছে৷ এর আগেও বিজেপি-কে ভোট দিলে রক্তগঙ্গা বইয়ে দেওয়ার হুমকি দেওয়া হয়েছে৷ এর আগে এই শান্তিপুরের মাটিতে আমার রক্ত পড়েছে, আবারও না হয় পড়বে৷ কিন্তু আমি শান্তিপুর ছেড়ে যাইনি৷ এক পা নড়ব না শান্তিপুর ছেড়ে৷ ক্ষমতা থাকলে অরিন্দম ভট্টাচার্যকে মেরে শান্তিপুর দখল করুক৷ আমি সেই চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করলাম৷ আমরা শান্তিপুরে জিতছি৷ সেটা বুঝেই এই হুমকি৷'

    বিধায়কের অভিযোগ, এর আগেও দেওয়াল লিখে হুমকি দেওয়ার পরেও পুলিশের তরফে কোনও পদক্ষেপ করা হয়নি৷ তাই নতুন করে তিনি আর পুলিশের থেকে সাহায্য চাইবেন না বলেই জানিয়েছে অরিন্দম৷

    শান্তিপুরের পুর প্রশাসক এবং তৃণমূল নেতা অজয় দে অবশ্য বলেন, 'এই অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যে৷ তৃণমূল কংগ্রেস কখনও এই ধরনের কাজের সঙ্গে যুক্ত থাকে না৷ আমার ধারণা উনি যাওয়ার পরে দলের বিজেপি-র মধ্যেই যে অসন্তোষ তৈরি হয়েছে, এটা তারই বহিঃপ্রকাশ৷ '

    Ranjit Sarkar

    Published by:Debamoy Ghosh
    First published:

    লেটেস্ট খবর